আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

কোভিড-১৯ চিকিৎসায় কনভালসেন্ট প্লাজমা থেরাপি

 

আবু নঈম বায়োজিদ, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ প্রতিনিধি:

বর্তমানে প্লাজমা থেরাপি অনেক আলোচিত বিষয়।দেশে দিন দিন করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলছে।অনেকেই ঘরে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হচ্ছেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে কোভিড আক্রান্ত ২০% রোগীর হাসপাতালে চিকিৎসার প্রয়োজন।এদের মধ্যে আবার ৫% রোগীর ক্ষেত্রে দরকার হয় আইসিইউ সাপোর্ট।মনে রাখতে হবে যে প্লাজমা থেরাপি শুধুমাত্র সিরিয়াস কন্ডিশনের রোগীদের জন্য।

আমাদের শরীরের রক্তের হলুদ বর্নের জলীয় উপাদানকে প্লাজমা বলে।প্লাজমায় এন্টিবডি থাকে।এন্টিবডি হলো দেহে বহিরাগত পদার্থের(অ্যান্টিজেন) উপস্থিতির প্রত্যুত্তর হিসেবে দেহের প্রতিরক্ষাতন্ত্র কর্তৃক উৎপন্ন এক ধরনের প্রতিরক্ষামূলক প্রোটিন জাতীয় পদার্থ।
কোভিড আক্রান্ত কোন ব্যাক্তি সুস্থ হলে তার রক্তে করোনা ভাইরাসের বিপক্ষে এক ধরনের এন্টিবডি(প্রতিরক্ষামুলক প্রোটিন) তৈরী হয়।যার কারনে একজন কোভিড আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে যাওয়া ব্যাক্তির দ্বিতীয়বার কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম তবে সম্ভাবনা একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

আমাদের মনে রাখা জরুরী যে প্লাজমা থেরাপি এখনো একটি ট্রায়াল।করোনা ভাইরাস চিকিৎসার কার্যকর ওষুধ বা ভ্যাক্সিন আবিষ্কার করার জন্য যেমন ট্রায়াল চলছে একইভাবে প্লাজমা থেরাপিও এখনো আমাদের দেশে ট্রায়াল এর পর্যায়ে আছে।কনভালসেন্ট প্লাজমা ডোনার থেকে নেওয়ার জন্য এফেরেসিস মেশিনের দরকার হয়।প্লাজমা দেওয়ার জন্য কিন্তু সবাই উপযুক্ত নয়।

যারা প্লাজমা দিতে পারবেনঃ-

১/একজন করোনা পজিটিভ রোগী সুস্থ হয়ে করোনা নেগেটিভ হওয়ার ১৪ দিন পর থেকে প্লাজমা দেওয়া শুরু করতে পারবেন

২/একজন করোনা পজিটিভ ব্যাক্তি সম্পূর্ণ সুস্থ(উপসর্গ মুক্ত) হবার পর ২৮ দিন অতিবাহিত হবে (সেই ক্ষেত্রে করোনা নেগেটিভ পরীক্ষা না থাকলেও চলবে)।

প্লাজমা দাতার ওজন ৫০ কেজির উপরে হতে হবে।
কোনো এন্টিবায়োটিক খাওয়ার পর সাত দিনের মধ্যে প্লাজমা দেওয়া যাবে না।
কোনো গর্ভধারন করা মহিলা প্লাজমা দানের জন্য উপযুক্ত নন।
ডোনারের প্লাজমায় এন্টিবডি টাইটার ১ঃ১৬০ হতে হবে।

একজন ডোনার প্লাজমা দিতে চাইলে অবশ্যই এই ক্রাইটেরিয়াগুলো পূর্ণ করতে হবে।

একজন দাতার প্লাজমা দেওয়ার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে ৪০-৫০ মিনিট সময় লাগে।
একজন ডোনারের কাছ থেকে ২০০-৪০০ মিলি প্লাজমা নেওয়া হয়।
একজন ডোনার ৭ দিন অথবা কোথাও বলা হয়েছে১৪ দিন পর পর প্লাজমা দিতে পারেন।
ডোনারের প্লাজমায় এন্টিবডি টাইটার ১ঃ১৬০ থাকা জরুরী।প্লাজমা নিয়ে প্লাজমা টাইটার পরীক্ষা করা হয়,ক্রসম্যাচিং করা হয়।তারপর রোগীর শরীরে দেওয়া হয়।
প্লাজমা দান করার পর ডোনার ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৩ লিটার পানি পান করলেই এর অভাব পুরন হয়ে যায়।

প্লাজমা থেরাপির দেওয়ার ক্ষেত্রে সেইরকম ঝুকি নেই/এখনো পাওয়া যায়নি।তবে মনে রাখতে হবে প্লাজমা থেরাপি এখনো ট্রায়াল এবং রোগী সুস্থ হওয়ার কোনো নিশ্চিয়তা দেওয়া যাবে না।
ক্রিটিক্যাল প্যাসেন্টকে সুস্থ করার শেষ চেষ্টা হিসেবে প্লাজমা থেরাপি এখন দেশের অনেক হাসপাতালেই শুরু হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ