আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

সাভারে পুলিশ হত্যাচেষ্টা মামলায় টুন্ডা আরিফ গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক :

পুলিশ সদস্য হত্যাচেষ্টা মামলায় সাভারের সন্ত্রাসী টুন্ডা আরিফকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) সন্ধ্যায় সাভারের গেন্ডা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে গত মঙ্গলবার (২ মার্চ) সাভারের আনন্দপুরের বিমান বিল্ডিং জামে মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় পুলিশ কনস্টেবল রাব্বি হত্যাচেষ্টার ঘটনায় ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে ৫ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠায় পুলিশ।

আহত পুলিশ সদস্য হলেন কনস্টেবল মোহাম্মদ রাব্বি হোসেন (২৫), তিনি টাঙ্গাইল জেলার নাগরপুর থানার মৃত রকিব মিয়ার ছেলে।

গ্রেফতার টুন্ডা আরিফ পৌরসভা গলির রফিকুল ইসলাম কচির ছেলে, তার বিরুদ্ধে কিশোর গ্যাং পরিচালনাসহ বিভিন্ন অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। একই সাথে তিনি গ্রেপ্তারকৃতদের ডন বলে জানা গেছে।

অন্যান্য গ্রেপ্তাররা হলেন গোপালগঞ্জ জেলার মোকসেছপুর থানার পলারগাতি গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে সাব্বির হোসেন (২৫), চাঁদপুর জেলার হাইমচড় থানার কমলাপুর গ্রামের মৃত মোসলেম খানের ছেলর জহিরুল ইসলাম (৩৮), ছবি শেখের ছেলে লাল মিয়া (২০), মোহাম্মদ আলী (২৮), হাসমত আলীর ছেলে আব্দুর রহিম বাবু, মোহাম্মদ রাসেদ (২৬), আলী আকবর খানের ছেলে নজরুল ইসলাম খান (৩৮), হামেদ আলীর ছেলে আল-আমীন (৩০), কামাল হোসেন (৩৩), খোকার ছেলে সুজন শিকদার (৪৩), সবাই সাভারের আন্দপুর এলাকার বাসিন্দা জানা গেছে। এছাড়া অজ্ঞাত আরও ৪ থেকে ৫ জনকে এই মামলায় আসামি করা হয়েছে। তাদের ৫ দিনের রিমান চেয়ে আদালতে পাঠালে দুই জনের ২ দিন ও বাকিদের ১ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।

পুলিশ জানায়, সাভার থানায় কর্মরত কনস্টেবল রাব্বি পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় আসামিরা ছুড়িকাঘাত করে। পরে অভিযান চালিয়ে রাতেই ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত রিমান্ড মঞ্জুর করলে আজ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তাদের স্বীকারোক্তি মতে, এই টুন্ডা আরিফ গ্যাংটি পরিচালনা করেন। এই স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে টুন্ডা আরিফকে আজ গ্রপ্তার করা হয়।

প্রসঙ্গত, ইকবাল হোসেন নামের এক বাসের কন্ট্রাক্টরকে ছনের বনে ডেকে নিয়ে হাত-পা রশি দিয়ে বেঁধে চাঁদা দাবি করে আসামিরা। পরে এক পথচারীর মোবাইল থেকে ‘৯৯৯’ ফোন করলে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। এসময় রাব্বিকে ছুড়িকাঘাত করে তারা। এঘটনায় ভুক্তভোগী ও পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন।

সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক এএফএম সায়েদ জানান, ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে টুন্ডা আরিফকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার তাকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ