আজ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২৯শে মে, ২০২৩ ইং

সাভারে ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা 

সাভার প্রতিনিধি :

ঢাকার সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নের এক ইউপি সদস্যকে মেরে দাঁত ভেঙে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এঘটনায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। ওই ইউপি সদস্য বর্তমানে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে জানা গেছে।

রবিবার (০৯ এপ্রিল) বিকেল ৪ টার দিকে সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নের মোগরকান্দা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মাটি বোঝাই গাড়ি আটক করে ঈদ খরচের নামে চাঁদা দাবিকে কেন্দ্র করে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই ইউপি সদস্যের ভাই কবির হোসেন একজন মাটি ব্যবসায়ী। তিনি ভাকুর্তার চাপড়া এলাকার একটি ইট ভাটায় মাটি সরবরাহ করেন।

রবিবার  বিকেল ৪ টার দিকে কবির হোসেনের মাটি বোঝাই ট্রাক ইটভাটার দিকে যাচ্ছিলো। এসময় মাটি বোঝাই ট্রাকটি ইটভাটার দিকে পৌঁছলে স্থানীয় আরিফসহ তার ১ জন সহযোগী ট্রাকটি আটক করে ঈদ খরচের নামে চাঁদা দাবি করে।

খবর পেয়ে ইউপি সদস্যদের ভাই কবির হোসেন তার লোকজন নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। এসময় আরিফসহ তার সহযোগিকে মারধর করেন। পরে আরিফ সংঘবদ্ধ হয়ে ভাকুর্তার মোগড়াকান্দা এলাকায় যায়।

এসময় কবির হোসেনের ইউপি সদস্য জাকির হোসেনকে পেয়ে তার ওপর হামলা করেন। এতে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে জাকির মেম্বারের মাথায়, মুখে ও হাতে গভীর ক্ষত হয় এবং তার দাঁত ভেঙে দেয় যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায় স্থানীয়রা।

সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেের জরুরি বিভাগের ডাক্তার জান্নাতুল বাকী বলেন, তার মাথায় মুখে ও হাতে কমপক্ষে ১৮/২০ টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। তার একটি দাঁতও পড়ে গেছে। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানীতে রেফার্ড করা হয়।

ইউপি সদস্যের ভাই মাটি ব্যবসায়ী কবির হোসেন বলেন, আরিফ হোসেন ও তার লোকজনই আমাকে মারধর করে ও আমার গাড়ি ভাঙ্গচুর করে। এঘটনায় অভিযুক্ত আরিফ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায় নি।

ভাকুর্তা ইউনিয়ন  ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আহত জাকির হোসেন সোমবার দুপুরে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের বলেন, ভাকুর্তা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী আব্দুল বাতেন গতকাল রবিবার বিকেলে ফোন করে ডেকে নেন আপোষ মিমাংসার কথা বলে ঠিক তখনই আরিফসহ ১৫/১৬ জনলোক অতর্কিতভাবে লোহার রড ও ধারারো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা চালায়।

এ ব্যাপারে ভাকুর্তা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী আব্দুল বাতেন কয়েকবার তার মুঠোফোন যোগাযোগ চেষ্টা তার ফোনটি বন্ধ থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি।

ভাকুর্তা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আসওয়াদুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ