আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

সাভারে ১২ ইউনিয়নে টিকা কেন্দ্র, কমেনি টিকা প্রত্যাশীদের ঢল

নিজস্ব প্রতিবেদক :

সাভারে করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন প্রত্যাশীদের স্রোত কমানোর জন্য ১২ টি ইউনিয়নে টিকা কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে। এই ১২ কেন্দ্রে ২৮ হাজার ৭০০ জনকে টিকা প্রদান করা হবে।

তবে কমেনি টিকা প্রত্যাশীর স্রোত। প্রতিটি কেন্দ্রে বরাদ্দের প্রায় ৫ গুন বেশি মানুষ উপস্থিত হয়েছেন টিকা কেন্দ্রে।

শনিবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে আশুলিয়ার ইয়ারপুর, ধামসোনা, আশুলিয়া ও শিমুলিয়া ইউনিয়নের টিকা কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায়,

১২ টি ইউনিয়নে ১২ টি টিকা কেন্দ্র প্রস্তুত করা হলেও টিকা নিতে আসা মানুষের ভীড় লক্ষনীয়। যেখানে ২ হাজার ৫০০ টিকা বরাদ্দ, সেখানে ভ্যাকসিন প্রত্যাশির উপস্থিতি আনুমানিক ৭ হাজার।।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্য মতে, শনিবার সাভারের ১২ টি ইউনিয়নে ১২ টি টিকা কেন্দ্রে এক যোগে প্রদান করা হবে করোনার ভ্যাকসিন।

সাভার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পার্শ্ববর্তী টিকা কেন্দ্র “বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব হেলথ ম্যানেজমেন্টে (বিআইএইচএম) টিকা প্রত্যাশীদের চাপ কমাতে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে এই কেন্দ্রে টিকা প্রত্যাশীদের চাপ কমেছে। সব কিছু স্বাভাবিক রয়েছে বলে দাবি কর্মকর্তাদের।

টিকা কেন্দ্র গুলো হলো- শিমুলিয়া ইউনিয়নের গোহাইলবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তিন হাজার টিকা প্রত্যাশীকে ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে।

ধামসোনা ইউনিয়নের ডেন্ডাবর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিন হাজার টিকা প্রত্যাশীদের দেওয়া হবে এই ভ্যাকসিন। এছাড়া পাথালিয়া ইউনিয়নের গণ বিদ্যাপিঠ উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ হাজার ৪০০ জন, ইয়ারপুর ইউনিয়নের গোমাইল উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ হাজার ৫০০ জন,

আশুলিয়ার দোসাইদ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩ হাজার, বিরুলিয়ার আকরান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১ হাজার ৮০০, সাভার সদর ইউনিয়নের কলমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২ হাজার, তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়নের তেঁতুলঝোড়া কলেজে ৩ হাজার,

বনগাঁও এর কোন্ডা উচ্চ বিদ্যালয়ে ২ হাজার, আমিন বাজারের ২০ শয্যা হাসপাতালে ২ হাজার, কাউন্দিয়া ইউনিয়নে ২ হাজার ও ভাকুর্তা ইউনিয়নের ভাকুর্তা ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে এই টিকা কার্যক্রম চলবে।

“বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব হেলথ ম্যানেজমেন্টে (বিআইএইচএম) টিকা কেন্দ্র থেকে টিকা না নিয়ে ফিরে আসা নাজিম উদ্দীন ঢাকাপোস্টকে বলেন, এবারের টিকা প্রদানের ব্যবস্থাপনা ভাল হয়েছে।

তবে প্রতিটি ইউনিয়নে ইউনিয়নে টিকার কেন্দ্র করা হলেও মানুষের ভীড় কমেনি। আমি ধামসোনা ইউনিয়নে টিকা নিতে এসেছি।

এখানে তিন হাজার টিকা প্রত্যাশীকে টিকা প্রদান করা হবে। তবে প্রায় ৬ হাজার মাসুষ এখানে এসেছেন টিকা নিতে। আজও টিকা পাবো কি না সংশয় রয়েছে।

অপর টিকা প্রত্যাশী শাহজালাল বলেন, আমি সাভারে টিকা নিতো যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু সেখানের পরিস্থিতি শুনে আর যাই নি।

যেহেতু এখন নিজ ইউনিয়নে টিকা কেন্দ্র সেহেতু এখানেই টিকা নেওয়ার জন্য এসেছি। তবে মানুষ ভাগাভাগি হয়ে প্রতি ইউনিয়নের কেন্দ্রে গেলেও ইউনিয়ন কেন্দ্রে যেন টিকা নেওয়া মানুষের ঢল নেমেছে।

তবে এখনও বিশৃঙ্খলা চোখে পড়েনি। ভ্যাকসিন বরাদ্দ দেওয়া হয়েছ৷ আড়াই হাজার। কিন্তু ভ্যাকসিন নিতে এসেছেন প্রায় ৭ হাজার। সেক্ষেত্রে শেষের দিকে একটু বিশৃঙ্খলা হতেই পারে।

সাভার উপজেলা পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা সায়েমুল হুদা বলেন, সকলের আন্তরিক সহযোগিতায় টিকা কেন্দ্রের পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক।

গতকাল ছুটির দিনেও কাজ করেছেন আমাদের সকল স্বাস্থ্যকর্মীরা। আজ ১২ টি ইউনিয়নের ১২ টি কেন্দ্রে চলছে টিকা কার্যক্রম। এখন পর্যন্ত সব কেন্দ্রে সুন্দরভাবে চলছে টিকা কার্যক্রম। আমি সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ