আজ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুলাই, ২০২৪ ইং

এই যেন সুন্দরবনেরই প্রতিচ্ছবি

ফরহাদ হোসেন :

প্রকৃতি ঘেরা অপার এক সৌন্দর্যের নীলাভূৃমি মিরসরাইয়ের ডোমখালি উপকূলীয় বনাঞ্চল ও সমুদ্র সৈকত।মিরসরাই উপজেলার সর্বদক্ষিণ -পশ্চিমে ১৬ নং সাহেরখালি ইউনিয়নে এর অবস্থান।

ঢাকা -চট্টগ্রাম মহাসড়কে বড়দারগারহাট বাজারে নেমে সিএনজি চালিত অটোরিকশা যোগে যেতে হয় ডোমখালি বেড়িবাঁধ । মোটরসাইকেল এবং কার নিয়ে ও যাওয়া যায় সেখানে।বড়দারগারহাট বাজার থেকে বায়ান্ন বাঁকের গ্রামবাংলার মেঠো পথ ধরে বেড়িবাঁধ সড়কের ওপর গিয়ে গাড়ি থামে ।

পথিমধ্যে বেড়িবাঁধ সড়কের একটু আগে চোখে পড়বে জেলে পল্লী। সাগরকে কেন্দ্র গড়ে উঠেছে এই পল্লী। আপনি চাইলে গাড়ি থেকে নেমে ঘুরে দেখতে পারবেন জেলেদের জীবনবৈচিত্র্য।

বেড়িবাঁধ সড়কে পৌঁছে গাড়ি থেকে নামা মাত্রই কানপাতলে শুনতে পাবেন বিশাল সমুদ্রের গর্জন।দক্ষিণা মিষ্টি ও নির্মল বাতাস আপনার শরীর মন কে করবে শীতল। সড়কের উপর দাঁড়িয়ে পূর্বদিকে তাঁকালেি দেখতে পাবেন দিগন্তহীন বিস্তীর্ণ ফসলের মাঠ।

আর সোনালী ফসলের মাঠে আপন সুখে কাজ করছেন কৃষক।শেষ বিকেলে গরু,ছাগল, বেড়া,মহিষের পাল নিয়ে বাড়ি ফিরছেন রাখাল।বেড়িবাঁধ সড়কের দুইধারে গড়ে উঠেছে গ্রামীণ জনপদ এবং সারি সারি লাগানো আছে খেজুর,নারকেল,তালগাছ,ঝাউগাছ,সেগুন, ইপিল-ইপিল,আকাশমণি,

নীম, বাউল,বাবলা সহ অসংখ্য গাছ।আপনি যদি শীতের মৌসুমে যান তাহলে খেজুরের মিষ্টি রসের স্বাদ নিতে পারবেন। সড়কের দক্ষিণে কেওড়া, বাইন,গড়ান,গেওয়া,সুন্দরী, হারগোজ সহ লবণাক্ত সহিষ্ণু নানা বৃক্ষ, লতা ও গুল্ম। যা স্থানটিকে সবুজের সমারোহে পরিণত করেছে।

যেদিকে তাঁকাবেন শুধু সবুজ আর সবুজ। বাধেঁর উত্তর ও পশ্চিমে বয়ে চলা দৃষ্টি নন্দন সমুদ্র সৈকত।সাগরের কোলজুড়ে গড়ে উঠেছে ম্যানগ্রোভ বন। এই বনভূমিতে রয়েছে জীববৈচিত্র্যের সমাহার।

এই বনে দেখা মিলবে নানা জাতের সামুদ্রিক মাছ,কাঁকড়া, পাখি(শকুন, কোকিল,চিল,ডাহুক) ,সাপ(অজগর),লজ্জাবতী বানর,মেছো বাঘ,কুমির, হরিণ,শিয়াল সহ বিরল ও মহাবিপন্ন প্রজাতির সামুদ্রিক কচ্ছপের বিচিরণ ও প্রজনন।

খুব ভোর বেলায় ও সন্ধা বেলায় ঘাস, লতাপাতা খাওয়ার জন্য বনভূমির বাইরে চরাঞ্চালে চলে আসে হরিণের দল।এছাড়া দিনের বেলায় ও বনের ভিতের প্রবেশ করলে হরিণের পদাচিহ্ন ও আনাগোনা লক্ষ করা যায়।বনের মধ্যে খাবারের খু্ঁজে মহিষের দল চরে বেড়ায়।

ঐ অঞ্চলের অনেক মানুষ বন থেকে কাঠ সংগ্রহ করে জীবিকা নির্বাহ করে।বাউয়ালীদের কাঠ কাটার শব্দ আর পশুর গলায় ঝুলে থাকা কাষ্ঠঘন্টার শব্দে মুখরিত থাকে বন।বনের ভিতর দিয়ে হাঁটার সময় দেখতে পাওয়া যায় কিছুদূর পর পর সাগরের সাথে মিশে যাওয়া ছোট ছোট খালের অবিরাম বয়ে চলা।

এই খাল গুলো দিয়ে ভরা মৌসুমে জোয়ারের পানি বাধঁদের কিনারে চলে আসে। বনের মধ্যে আরো শুনতে পাবেন পাখিদের কলকাকলির শব্দ ।বন শেষ হলে শুরু হয় কাঁদামাটি। সাগরের খুব কাছে জোয়ারের সময় ডুবে থাকা জায়গা গুলোতে বাটার সময় ভেজা মাটিতে ছোট ছোট গর্তে লাল কাঁকড়া,

সাগরের বিভিন্ন জাতের কাঁকড়া ও সামুদ্রিক নানা জাতের মাছ মাথা তুলে বসে থাকে এবং ছুটাছুটি করে। মানুষের আনাগোনা পাওয়া মাত্রই গর্তে ডুকে পড়ে।এছাড়াও সমুদ্র তীরে স্থানীয়রা চিংড়ি ঘের এবং চাষের চাষ করে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরের মেরিন ড্রাইভ সড়ক নির্মাণের কারণে ৪ কি.মি মতো সৈকতের সৃষ্টি হয়েছে। তাই ভ্রমণপিপাসোরা খুব কাছ থেকে উপভোগ করতে পারে সাগরের দৃষ্টি নন্দন, নৈসর্গিক মনোমুগ্ধকর দৃশ্য।সাগরের ঢেউ যেন তাদের হাতছানি দিয়ে ডাকছে। তাই প্রতিদিন বিকেলে সাগর পাড়ের সৌন্দর্য দেখতে যুবক-যুবতীদের ঢল নামে।

কবির মতে
“নদীর এ কূল ভাঙে ও কূল গড়ে এই তো নদীর খেলা। সকাল বেলার আমীর রে ভাই, ফকির সন্ধাবেলা রে ভাই”

বিকেলের সময়টা তে নানা বয়সের মানুষের আগমনে ভিড় জমে সাগর পাড়ে।সমুদ্রের পানির ছুয়াতে দূর করে তাদের মনের ক্লান্তি। ঘাটে বাধা থাকে বাহারি রংয়ের ডিঙি নৌকা।

জেলেরা মাছের জাল তুলতে সাগরে ছুটে চলে ।কেউ আবার সমুদ্রের নানা প্রজাতির তাজা মাছ নিয়ে ঘাটে নৌকা ভিড়ায়। এই মাছ বিক্রি করে তাদের সংসার চলে।অনেক নৌকাভ্রমণ প্রেমিক জেলেদের নৌকা নিয়ে পাড়ি দেয় সাগর মোহনায়।

জেলে পল্লীর পরিবারের বড়দের সাথে ছোটরা ও মাছ ধরতে সাগরে যায়। দুষ্ট ছেলেরা সাগরের পানিতে লাফালাফি করে।বিকেলে সমুদ্রের পাড় থেকে সূর্যাস্তের সৌন্দর্য অবলোকনের মাধ্যমে সমুদ্রের সৌন্দর্যের তৃষ্ণা মেঠাই ভ্রমণপিপাসোরা।

যদিও অনেক ভ্রমণকারী চাই রাত্রি যাপন করতে।কিন্তু ভালো খাবারের হোটেল এবং আবাসিক হোটেল না থাকায় তা সম্ভব হয়ে উঠে না।তবে স্থানীয় প্রতিনিধিরা জানাই মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলের কাজ শেষ হলে পর্যটন শিল্পের সহযোগিতায় পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি পাবে।

লেখক:
ফরহাদ হোসেন
শিক্ষার্থী,
ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগ,
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ