আজ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুলাই, ২০২৪ ইং

ফুলের স্বর্গরাজ্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

জাবি প্রতিনিধি : হাবিবুর রহমান সাগর:

ভোরের শীতল বাতাসের সাথে ভেসে আসছে হরেক রকম ফুলের ঘ্রাণ। মৌমাছিরা উড়ে যাচ্ছে এক ফুল থেকে অন্য ফুলে।

মধু সংগ্রহে তারা ব্যস্ত।  কোকিলের কুহুকুহু ডাক! পাখির কিচিরমিচিরে বিছানায় শুয়ে থাকা যায় না। দরজা খুলে বারান্দায় পা বাড়াতেই চোখে পড়ে বাহারি রঙের ফুলের হাতছানি।

বলছি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) কথা।
প্রকৃতির রুক্ষতাকে কাটিয়ে  নবপল্লব রাশিতে সেজে উঠেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ।

এক পশলা বৃষ্টির  আদরমাখা স্পর্শে জেগে উঠেছে জাবির বৃক্ষমালা। গাছে গাছে হরেক রকমের ফুল ফসরা সাজিঁয়ে রেখেছে,  মনে হয় প্রকৃতির এক নিপুণ সৃষ্টিকর্ম।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটক দিয়ে পা রাখলেই মনে হবে এ যেন এক স্বর্গরাজ্য। মনের অজান্তে চোখ দুটি চলে যাবে রাস্তার দুধারে দাড়িয়ে থাকা গাছ গুলোর দিকে।

কারন সে গাছেই ঝাঁকে ঝাঁকে, , স্তবকে স্তবকে, ফুটে আছে হরেক রকমের ফুল। কোন ফুল শ্বেত, কোনটা যেন রক্তমাখা, আবার কোনটা হলুদ। কোথাও মৌমাছি, কোথাও ভ্রমর বাসা বেধেঁছে।  বাতাসের সঙ্গে মন মাতানো ফুলের সুরভীতে ছন্দময় হয়ে ওঠেছে জাবির আকাশ-বাতাস।

চারদিকে সবুজের সমারোহ। যেন গ্রীষ্মের এ গরমে সবুজ তারুণ্যে জেগে উঠেছে জাবির প্রতিটি অঙ্গন। প্রাণ জুড়ানো এ দৃশ্য দেখে যে কেউ থমকে দাড়াতে বাধ্য হয়।

গ্রীষ্মের আগমন যে প্রকৃতিতে ঘটেছে তা বেশ ভালো ভাবেই বুঝা যায় এ ক্যাম্পাসে। প্রকৃতি যেন তার সব সম্ভার দিয়ে জাবিকে সাজিঁয়ে তুলেছে। গাছে গাছে কৃষ্ণচূড়া, সোনালু, রাধাচূড়া, ক্যাসিয়া রেনিজারাসহ নানা ফুল। বাহারি এ ফুলের সৌন্দর্যে আর মিষ্টি সুবাস লালন করছে এখন লাল মৃত্তিকার প্রকৃতিতে।

তার সাথে মৌসুমী ফল আম-কাঠাল, নানা জাতের পাখি, বিভিন্ন রকমের প্রজাপতি  এ ক্যাম্পাসে যেন প্রকৃতি তার সব সৌন্দর্যই উজাড় করে দিয়েছে। গাছের জীর্ণতা ভেঙ্গে নতুন কুড়িতে ছেয়ে গেছে গাছগুলো।

জীবননান্দ দাশ হয়তো প্রকৃতির এ সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়েই রচনা করেছেন তার অমর কীর্তি ‘রূপসি বাংলা’ কাব্য। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরুপ লীলাভূমিটি সেজে আছেন এক স্বর্গরাজের নেয়।

মূল ফটক পেরিয়ে সমাজবিজ্ঞান অনুষদ থেকে শহীদ মিনার পর্যন্ত রাস্তার দুই ধারে দেখা মিলে কৃষ্ণচূড়া, জারুল, সোনালু, কনকচূড়া, রাধাচূড়া ফুলের পসরা।

এ ছাড়া মুন্নী সরণি, চৌরঙ্গী, শেখ হাসিনা হল ও বেগম খালেদা জিয়া হলের সামনের সড়কসহ ক্যাম্পাসের প্রায় প্রতিটি আনাচে কানাচে উকি দেয় হরেক রকমের ফুল। কোনো ফুল শ্বেত, কোনোটা যেন রক্তমাখা, আবার কোনোটা গাঢ় হলুদ।

এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ে সুইজারল্যান্ড, শান্তিনিকেতন এলাকা ও মওলানা ভাসানী হল সংলগ্ন পুকুর পাড়ে বেগুনি শোভা ছড়াচ্ছে জারুল। পাশাপাশি সোনালু নিজেদের সৌন্দর্য প্রকাশের প্রতিযোগিতায় মেতেছে।

ফুলে ফুলে সজ্জিত ক্যাম্পাস যেনো শিল্পীর রঙ তুলিতে আঁকা নয়ন জুড়ানো কোনো ছবি। আর প্রতিদিনিই ফুলে ফুলে সুশোভিত ক্যাম্পাস দেখতে আসছেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। কেউ কেউ জারুল, সোনালু ফুলের ছবি তুলে কাব্যিক ক্যাপশনে পোস্ট করছেন ফেসবুকে।

ফুলের সুবাসে মুখরিত ক্যাম্পাসের মুগ্ধতায় দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী মোঃ আলী আকবর  বলেন, ” ফুলের সৌন্দর্যে ক্যাম্পাস নতুন মাত্রায় সেজেছে। সত্যি আমার খুব ভালো লাগছে । এই সবুজ স্বর্গ আমাদের সবাইকে খুব আপন করে নিয়েছে ।

এছাড়াও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের  শিক্ষার্থী মোঃ মেহেদী হাসান রাসেল অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, ” ক্যাম্পাসের এত সুন্দর পরিবেশ আমাকে খুবই মুগ্ধ করে। ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য সম্পর্কে আগে যা জেনেছিলাম এর থেকে বেশি সুন্দর আমার ক্যাম্পাস। যেদিকে তাকাই ফুলের  মুখরিত সুবাস আর সবুজ অরণ্য । “

ঢাকার ইট পাথর ও ধূলিকণার আস্তরণ থেকে হাফ ছেড়ে বাঁচতে প্রতিদিন অনেক দর্শনার্থী ছুটে আসে প্রকৃতির নির্মলতায় সিক্ত হতে। ক্যাম্পাসের সবুজ প্রকৃতিও তার সৌন্দর্যের ডালি নিয়ে পরতে পরতে পাখা মেলে থাকে।

সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ফুল দেখতে স্বজনদের নিয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত মানুষের পদচারণায় মুখরিত থাকে সবুজ ক্যাম্পাস।

প্রকৃতি যেখানে সেঁজেছে অপরুপ সৌন্দর্যে সেখানে তো দর্শনার্থীদের ভিড় জমবেই। প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও তার ব্যতিক্রম নয়। ফুলে ফুলে নতুন সাজে ভরপুর সবুজ এ ক্যাম্পাস।

সবুজ এই ক্যাম্পাসের মনোমুগ্ধকর স্নিগ্ধতায় মুগ্ধ ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীরা। তাই বলতেই হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস যেন এক টুকরো ফুলের স্বর্গরাজ্য।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ