আজ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

মাগুরার হাজরাপুর ইউনিয়নে গণসচেতনতা ও জীবাণুনাশক পানি ছিটালেন চেয়ারম্যান

এইচ এম হুমায়ুন কবির (বিশেষ প্রতিনিধি)

 

চীনের ওহান থেকে সৃষ্ট করোনা ভাইরাসের থাবায় থমকে গেছে গোটা পৃথিবী। আক্রান্ত হাজার হাজার রোগী যোগ হচ্ছেন লাশের মিছিলে। মহামারীর এমন দৃশ্য কোনোদিন দেখেনি বিশ্ববাসী। বাংলাদেশেও প্রতিনিয়ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা পাল্লা দিয়ে বেড়েই চলছে। দেশে সর্বশেষ ৪৪ জন আক্রান্ত ও পাঁচ জনের মৃত্যু নিশ্চিত হয়েছে। আতঙ্ক, উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে মানুষ। অনেকে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না।

ঠিক এমনই এক দুর্যোগপূর্ণ সময়ে গোটা বিশ্ব জুড়ে মহামারী আকার ধারণ করা নভেল করোনা ভাইরাসের মাধ্যমে সংক্রমিত হওয়া থেকে নিজের ইউনিয়নের সাধারণ নাগরিকদের রক্ষার্থে মাগুরার হাজরাপুর ইউনিয়ন জুড়ে ব্লিচিং পাউডার মিশ্রিত জীবাণুনাশক পানি ছিটালেন মাগুরা সদর থানার ৫ নং হাজরাপুর ইউনিয়নের ‌ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কবির হোসেন। দলের নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) নিজ হাতে হাজরাপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে জীবাণুনাশক পানি ছিটিয়েছেন সফল এই চেয়ারম্যান।

এছাড়াও এলাকার সাধারণ মানুষদের করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষা করতে হাজরাপুর ইউনিয়ন বাসিকে সচেতন করতে প্রতিদিনই মাইকিংসহ নানামুখী প্রচার-প্রচারণা মূলক কার্যক্রম নিজের নির্বাচনী এলাকার সাধারণ জনগণকে সাথে নিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন। বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টিকারী করুনার বিস্তার রোধে এলাকাবাসীর আত্ম সচেতনতা তৈরি করতে সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও জানান তিনি।

সরকার করোনার বিস্তার ঠেকাতে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে উল্লেখ করে ইউনিয়নটির চেয়ারম্যান কবির হোসেন এই প্রতিবেদককে বলেন -সরকারের পাশাপাশি নিজের বিবেক বোধ এবং দায়িত্ববোধ থেকে প্রতিদিনই সচেতনতামূলক নানা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করি এবং কোথাও কোনো গণজমায়েত যেন না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার জন্য আমার ইউনিয়ন পরিষদের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছি। সাধ্য অনুযায়ী এলাকায় মাস্ক ও বিভিন্ন জীবাণুনাশক সরঞ্জাম সরবরাহেরও চেষ্টা করে যাচ্ছি। এলাকায় কোন বিদেশগামী লোকের অবস্থান নিশ্চিত হওয়া মাত্রই আমরা তাকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা ও নির্দেশনা দিচ্ছি। কোনভাবেই যাতে এলাকায় অসাধু ব্যবসায়ীরা দ্রব্যমূল্যে বৃদ্ধির মাধ্যমে সাধারণ অসহায় খেটে খাওয়া মানুষদের সমস্যার কারণ না হয় সেদিকেও লক্ষ্য রাখছি।
করুনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে তিনি সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছেন উল্লেখ করে বলেন , গোটা দেশ লকডাউন করা হয়েছে। কোন কাজকর্ম তো দূরের কথা মানুষ করোনা আতঙ্কে ঘর থেকেই বের হতে পারছে না এতে করে যারা দিন আনে দিন খায় এবং শ্রমজীবী খেটে খাওয়া মানুষদের তিন বেলা খাবার যোগাতে কষ্ট হচ্ছে। তাই তিনি সমাজের বিত্তবানদের সাধ্যানুযায়ী জাতীয় এই দুর্যোগপূর্ণ মুহূর্তে শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ