আজ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

কেউ যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েই যায় এটা কি তার অপরাধ?

হিমেল টি রোজারিও :

লেখাঃ
হিমেল টি রোজারিও
সহকারী শিক্ষক ও খণ্ডকালীন প্রভাষক (ইংরেজি)
সেন্ট যোসেফস হাইস্কুল এন্ড কলেজ, ধরেন্ডা, সাভার, ঢাকা।

একটা ঘটনায় আসা যাক, মিঃ রাহাত একজন সামান্য চাকুরে। পরিবারে তার সাতজন সদস্য। সামান্য রোজগার, তা দিয়েই হাসিখুশি জীবন ছিল তার পরিবারের। করোনা মহামারী’তে দীর্ঘদিন ঘরবন্দী হয়ে অর্ধাহারে, অনাহারে থেকেছে তার পরিবার। জীবন ধারণের তাগিদে তাকে ফিরে যেতে হয়েছে তার কর্মস্থলে। ভাইরাস সম্পর্কে সে ও তার পরিবার সচেতন ছিল। সে অনেক ভাবেই চেষ্টা করেছে আক্রান্ত না হতে। কিন্তু বিধি বাম। মনের অজান্তে সে আক্রান্ত হল কোভিড – ১৯ এ। এটা যখন এক কান দু’কান হল, তার আশেপাশের মানুষের সে’কি ব্যবহার। তীব্র ঘৃণা ও আক্রমনাত্মক কথাবার্তা আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে আরোও হেয় প্রতিপন্ন করা হল। যেখানে তাকে সহানুভূতি প্রদর্শন ও মানবিক সহযোগিতা করা উচিত ছিল তা না করে আশেপাশের মানুষগুলি তার বাড়ির সীমানার বাইরে দাঁড়িয়ে তার নাম ধরে তার পরিবারের মানুষগুলোকে অকথ্য ভাষায় জর্জরিত করল। তার পরিবারের মানুষগুলি হয়ে পড়ল গৃহবন্দী, অসহায় ও অনাহারী। নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল না কেউ’ই। তারা খেয়ে আছে না খেয়ে আছে, বেঁচে আছে কি মরে গেছে সে খবর কেউ নিল না । পরম করুণাময় সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদে সে সম্পূর্ণরূপে সুস্থ হল। ঘটনাচক্রে কিছুদিন পরেই রাহাত এর এক প্রতিবেশী জনাব আবিদ করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেন। তাকে বাঁচাতে প্ল্যাজমা থেরাপি দিতে হবে। কাকতালীয়ভাবে রাহাতের ব্ল্যাড গ্রুপের সাথে আবিদের ব্ল্যাড গ্রুপ মিলে গেল। যেহেতু রাহাত করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন সেহেতু তিনি এখন একজন আদর্শ প্ল্যাজমা ডোনার। অথচ, এই আবিদ সাহেবর স্ত্রী রাহাত যখন আক্রান্ত হয়েছিল তাকে নিয়ে নানান কটূক্তি করে বেড়িয়েছিলেন। আজ সেই রাহাতের ডোনেট করা প্ল্যাজমা দিয়ে আবিদের মত আরো কিছু করোনা আক্রান্ত আবিদ সুস্থ হতে চলেছে।

গল্পের চরিত্রগুলি কাল্পনিক, কিন্তু প্রেক্ষাপট অনেকটাই বর্তমান বাস্তবতার সাথে মিলে যাচ্ছে। আমরা সবাই করোনা সম্পর্কে সচেতন থাকব, পরিবারের মানুষগুলিকেও সচেতন ও নিরাপদ রাখব। কিন্তু আমার পরিচিত / প্রতিবেশী কেউ আক্রান্ত হলে আমার কি করা উচিত??
সহানুভূতি, সমবেদনা ও মানবিক সহায়তা অসুস্থ মানুষ ও তার পরিবারের মানুষগুলির মাঝে শান্তি এনে দেয়। যে ব্যাক্তি মরণাপন্ন তার মাঝে নতুন করে বাঁচার আশা ও সাধ জাগে। তার মনোবল অনেক বেড়ে যায়। পরিবারের লোকেরাও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে। আমি কি তা করছি?
তাকে ঘৃণা বা তাচ্ছিল্যের চোখে না দেখে সে কীভাবে স্বাস্থ্যসেবা ও চিকিৎসা পেতে পারে, তার পরিবার কীভাবে দু’টো ডালভাত খেয়ে বাঁচতে পারে সেই সহায়তা করা বা সেই সহায়তা পেতে পথ দেখানো।
একজন আক্রান্ত হয়েছে তার আরোগ্য কীভাবে করানো যায় সেটা চিন্তা করা না’কি কথার বুলি ছুঁড়ে দায় এড়িয়ে যাওয়া? কে জানে তার থেকে আর কে কে আক্রান্ত হয়ে যেতে পারে। সঠিক চিকিৎসায় করোনা ভালো হয়।
করোনার আজকের চিত্র আপনারা দেখেছেন। কত দ্রুত আর গাণিতিক হারে বেড়ে যাচ্ছে আক্রান্তের সংখ্যা আর মৃত্যুর মিছিল। এই পরিস্থিতি শেষ না হওয়া পর্যন্ত সবাইকে সচেতন ও নিরাপদ থাকা জরুরি। তার মানে এই নয় আক্রান্ত ব্যক্তি ও তার পরিবার’কে কোনঠেসা করে, কটূ কথার বানে বিদ্ধ করে। প্রতিষেধক আবিষ্কার ও প্রয়োগ না হলে আর অসচেতন থাকলে ঈশ্বর না করুন, প্রতিটি ঘরেই কেউ না কেউ আক্রান্ত হয়ে পড়বে। আমি মনে করি এখন সময় হয়েছে করোনা থেকে আরোও দূরে কীভাবে থাকা যায় তা কঠোরভাবে পালন করা এবং একই সাথে পরিবারে কেউ আক্রান্ত হয়ে গেলে কি করব তা নিয়ে চিন্তা করা। অনেক মানুষ’ই আছে যারা এখনো ভালোভাবে জানে না করোনা কি করলে ছড়াবে আর কি না করলে ছড়াবে না। অনেকেই লজ্জা বা ভয়ে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে চায় না বা করোনা টেস্ট করাতে যেতে চায় না। সমাজের সকল স্তরের মানুষের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি করা জরুরি। আর আমরা যদি নিজেদের নেতিবাচক মনোভাব পরিবর্তন না করি, মানুষ হয়ে মানুষের প্রতি সহানুভূতি প্রদর্শন না করি তাহলে যিনি আক্রান্ত হবেন বা হয়েছেন তিনি চিকিৎসা পাবার আগেই মারা যাবেন।

পরম করুণাময় ঈশ্বর পৃথিবীর সবাইকে নিরাপদ রাখুন এবং এই মহামারী হতে রক্ষা করুন। ।।

বিঃদ্রঃ লেখাটি সম্পূর্ণ আমার ব্যক্তিগত মতামত। কোন ব্যক্তি বা ঘটনার সাথে মিলে গেলে তা নিতান্তই কাকতালীয় ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ