আজ ১৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

মায়ের অনুপ্রেরণায় আমি এডভোকেট 

 

 

খান ইমরান :

 

ঝালকাঠি জেলা জজ কোডে বর্তমানে এডভোকেট হিসেবে অতি অল্প সময়ে শুনামের সাথে অসহায় মানুষকে আইনি সেবা প্রধান করে আসছে জেলা জজ কোটের অন্যতম আইন জীবি এডভোকেট মোঃ রফিকুল ইসলাম। আজকে তার জীবনের ঘুড়ে দাঁড়ানোর গল্প তুলে ধরা হলো।
তার নিজের ভাষা তুলে ধরালাম , এডভোকেট মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি তখন অনেক ছোট ছিলাম ক্লাস টু এর ছাত্র `স্কুল` নামক শব্দটা আমার মাথায় আসতো না, তখন মার্বেল খেলার অনেক শখ ছিলো এতটাই যে পড়ালেখার উপর কোন চিন্তা আমার মাথায় ছিলো না। একদিন সকালে আমি বাল্য বন্ধু ফরিদ, বেল্লাল, শামসুল এদের সাথে বাড়ির পাশে বসে সকালে স্কুলে যাওয়ার টাইমে আমি মার্বেল খেলা শুরু করছি,এমন সময় মা এসে বারবার বলছে স্কুলে যেতে কিন্তু মার্বেল খেলার এতটাই নেশা স্কুলে যাবনা এই সিদ্ধান্ত মনে মনে । হটাৎ মা একটা ব্যাগ হাতে আমার বই, এক হাতে মোটা একটা বাশের লাঠি নিয়ে কিছু বুঝে উঠার আগেই পিছন থেকে এমন জোরে পিটানো শুরু করলো মনে হল কে যেনো, তখন আমি বাড়ির দিকে দৌর শুরু করলাম, তখন মা একটা শব্দ উচ্চারন করলেন স্কুল স্কুল আমি ভাবলাম যেহেতু মা ক্ষেপছে স্কুলে আজ না গিয়ে উপায় নেই, আমি দৌর শুরু করলাম স্কুলের দিকে,,মানে মা এতটা রাগ হইছে হাতের কাছাকাছি পেলেই পিটাতে পিটাতে স্কুলের কাছে যেয়ে দেখি ক্লাস শুরু হয়ে হয়ে গেছে, তখন আমার স্যার ছিলেন, প্রদিপ স্যার’ স্যারের হাতে বই আর অচেতন আমাকে দিয়ে মা বললো ওকে দিয়া গেলাম যেদিন স্কুলে আসবেনা আমার পর্যন্ত বলা লাগবেনা আমি চাই ওর লেখা পড়া,
তখন প্রদিপ স্যার আমাকে বললেন তুমি তো ভাল ছাত্র, এরকম করবা না নিয়মিত স্কুলে আসবা, আমি ছোট হলেও সেদিন আমি বুঝতে পারছিলাম যে আমার লেখাপড়া আল্লাহর দরবারে কবুল হয়ে গেল। তারপর আস্তে আস্তে আমি যখন এস এস সি পরিক্ষা দিব তখনও লেখাপড়ার গুরুত্ব বুঝতাম না, কলেজে ভর্তি হলাম ২ বার এইস এস সি ইংরেজীতে ফেল, তখন আবার সিদ্ধান্ত আর পড়ালেখা করবো না, তখন আমার মা আবার পুড়িয়ে পরিক্ষা দেওয়ার সাহস দিলেন, দোয়া দিলেন ফরম ফিলাপের টাকা দিলেন। যাই হোক পাশ করলাম, তারপর ধাপে ধাপে, এল এল বি কম্পিলিট করে এখন
ঝালকাঠী আইনজীবি সমিতিতে শিক্ষানবীশ আইনজীবি হিসাবে ( practice) প্যাক্টিস করছি । আল্লাহর অশেষ রহমত আমার বাবার দোয়া, আর মায়ের অক্লান্ত পরিশ্রমের কারনে আল্লাহ আমাকে এতদুর পর্যন্ত কবুল করেছেন, আমার মা-বাবা দুজনই আছেন, সবাই দোয়া করবেন আল্লাহ যেনো তাদেরকে নেক হায়াত দান করেন। আর এই মা দিবসে সকল মায়ের প্রতি আমার দোয়া ও ভালবাসা রইল, এক কথায় আজ আমার এই দিনের সকল কৃতিত্ব আমার ‘মায়ের ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ