আজ ২৬শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৯ই এপ্রিল, ২০২১ ইং

প্রেগন্যান্ট অবস্থায় ঝুঁকি নিয়ে বিজয়নগর চষে বেড়াচ্ছেন ইউএনও

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

সারা বিশ্বে যখন করোনা ভাইরাস সংক্রমণের প্রভাবে গোটা জাতি ক্ষতিগ্রস্ত’ ,প্রশাসনের লোক, ইউপি, বিভিন্ন রাজনীতিবিদসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ত্রান সামগ্রী বিতরন করছেন ঠিক তখনই মানবতার অগ্রদূত হয়ে নিজে ৫ মাসের অন্তসত্তা হওয়া সত্বেও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয় নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহের নিগার উপজেলার ১০ টি ইউনিয়নের অসহায় মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের মাঝে দ্রুত খাদ্য সামগ্রীর পৌঁছে দিচ্ছেন।

এতে অসহায় মানুষগুলো জরুরী ত্রান সহায়তা পেয়ে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে।বর্তমান সৃষ্ট করোনা ভাইরাসের দূর্যোগ মুহূর্তে নিজের এবং অনাগত সন্তানের জীবনের ঝুকি নিয়ে দিনে রাতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন জনগণের কল্যানে। পাশাপাশি তিনি মানুষের মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যেও কাজ করে যাচ্ছেন। এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার একমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন সেন্টার বিজয়নগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স তার সরাসরি তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে।এমনকি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাসপাতালের সকল রোগীদের জন্য ৩ বেলা খাবার পাঠানো সহ সকল কর্ম সম্পাদন করা হচ্ছে ইউএনও র সরাসরি তত্ত্বাবধানে।রাখছেন উপজেলার প্রত্যেকটি করোনা আক্রান্ত রোগীর সার্বক্ষনিক খবরাখবর।

বিজয় নগরে বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রামণ রোধে সরকারি নির্দেশনায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন ইউএনও।

করোনা ভাইরাস যখন পুরো পৃথিবী সহ বাংলাদেশ মহামারি আকার ধারণ করেছে সরকার থেকে নির্দেশনা আসলো সকলকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সকলকে হোম কোয়ারান্টাইন মেনে চলতে হবে।
বিজয় নগর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রথম ধাপে ইউএনও রাজনৈতিক ও স্বেচ্ছাসেবী দল গুলোর পাশাপাশি বিভিন্নভাবে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে আসছেন এই উপজেলায়।পরর্বতীতে যখন করোনা কে কেন্দ্র করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ীরা নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে উঠেপড়ে লেগেছে ঠিক তখনই তিনি নিজেই উপজেলার প্রতিটা বাজারে বাজারে ঘুরেঘুরে দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে জরিমানা করে বাজার নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছেন।

জরুরি সেবার জন্য তিনি সরকারি নাম্বারের পাশাপাশি তার ব্যক্তিগত নাম্বারটি খোলা রেখেছেন। দেশে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ৩১ দফা নির্দেশনা সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত বলে তিনি বলেন পাশাপাশি জনসমাগম রোধে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় এখনও পর্যন্ত এই ভাইরাসের মহামারি রূপ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব হয়েছে বলেও মনে করছেন।

ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে ত্রাণ সামগ্রী। ভাইরাস নিয়ে গুজব ছড়ানোর প্রমাণ পেলেই মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে করা হচ্ছে জরিমানা। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে জরুরী ভিত্তিতে সেনাবাহিনী,পুলিশ যুক্ত হয়েছে করোনা মোকাবিলার কাজে এবং উপজেলা প্রশাসনের সাথে তারা সমন্বয় করে কাজ করে যাচ্ছেন।

করোনা সচেতনতায় প্রচারণার পাশাপাশি মানুষের মুখে মাস্ক ব্যবহার এবং হাত পরিষ্কার রাখার ব্যাপারে সচেতন করা হচ্ছে। আসুন, সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশের স্বার্থে, পরিবার ও সমাজের স্বার্থে সবাই ঘরে থাকি, নিরাপদ সাভার উপজেলা ইউ এন ও সুবিধাবঞ্চিতদের জন্য চালু করেছেন ‘হটলাইন’। চলমান করোনা পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক সমস্যায় পতিত যে কেউ হটলাইনে ক্ষুদে বার্তা (এসএমএস) পাঠালেই সর্বোচ্চ গোপনীয়তার সাথে বিশেষ টিমের মাধ্যমে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে ‘মানবিক সহায়তা’।

হটলাইনে পাওয়া আবেদন যাছাই-বাছাই করে ইতোমধ্যে অনেক পরিবারে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়েছে।
বিজয় নগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহের নিগার জানান, সম্মানিত জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নির্দেশে মুঠোফোনে সরাসরি যোগাযোগ, ক্ষুদেবার্তা ও ই-মেইলের মাধ্যমে আবেদন পেয়ে তাৎক্ষণিক যাচাই-বাচাই করে সম্মানের সহিত ভুক্তভোগী পরিবারগুলোর হাতে আমরা ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছি।

তিনি আরো জানান, ইতিমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি
যুদ্ধাহত বীরমুক্তিযোদ্ধা র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি মহোদয়ের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বিজয় নগর অঞ্চলে উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসনের আয়োজনে হাজার হাজার পরিবারের হাতে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়েছে এবং এই ত্রাণ তৎপরতা দুর্যোগ চলাকালীন সময় পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ