আজ ২১শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ ইং

পলাশ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাসিম আজাদ

 

মোশারফ হোসেন,
নরসিংদী প্রতিনিধি,

নরসিংদী জেলা পলাশ উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ পরিবারের এক কৃতি সন্তান মোঃনাসিম আজাদ।যিনি প্রায় তিন যুগ ১৯৮৯সাল থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে নিয়ে বটবৃক্ষের মতো দাড়িয়ে আছেন।তৎকালীন পলাশ উপজেলা আওয়ামী লীগের একনিষ্ঠ কর্মী।দলের জন্য বিভিন্ন সময় নিজের জীবন কে বাঁজি রেখে মাঠে নামেন।শুধু তাই নয় ১৯৮৭ সাল থেকে সাহিত্য চর্চা শুরু করে।আহবান, স্বাধীনতা থেকে শপথ, শহীদ স্বরনেও মাহে রমজানের ডাক সহ বেশ কিছু কবিতা অত্যান্ত সমাদৃত ছিল। ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশ ছাএ ইউনিয়নের সদস্য হওয়ার মধ্য দিয়ে সক্রীয় ছাত্র রাজ নীতিতে প্রবেশ।৯০এর স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে সক্রীয় ভূমিকা পালনের মধ্যে দিয়ে চুড়ান্ত বিজয় অর্জন করে।১৯৯২সাল থেকে সাপ্তাহিক নরসিংদীর খবর, সাপ্তাহিক আজকের চেতনা, ঢাকা থেকে প্রকাশিত ততকালীন ক্রাইম পত্রিকা সাপ্তাহিক তদন্ত রিপোর্টে নরসিংদী জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন।পাশাপাশি নরসিংদী সরকারি কলেজ ১৯৯২/৯৩ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে অংশ গ্রহন করেন।ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক রাজপথ বার্তা সহ আরো কয়েকটি পত্রিকায় সংবাদ কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন। ১৯৯৫ সালে তৎকালীন পলাশ উপজেলা ছাত্র লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি জনাব ওবায়দুল কবির মৃধার অনুপ্রেরণায় আওয়ামী রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। এবং ১৯৯৬ এর অসহযোগ আন্দোলনে ছাত্র নেতা জনাব ওবায়দুল কবির মৃধার নেতৃত্বে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।এরই মধ্যে ১৯৯৬ এর ৩১ মে বাবু মহাদেব সাহার সভাপতিত্বে পাঁচদোনা মোড়ে আওয়ামী লীগের এক সমাবেশে ততকালীন বিরোধী দলীয় নেতৃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা বর্তমান প্রধানমনত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিক ভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে অংশ গ্রহন করে।আমার যোগদান অনুষ্ঠানের ঐ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ততকালীন আওয়ামিলীগ সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত রাস্ট্রপতি মোঃ জিল্লুর রহমান, নরসিংদী জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি জননেতা মরহুম এড আসাদুজ্জামান, বর্তমান শিল্প মন্ত্রী মোঃ নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্তী মোঃরাজিউদ্দী আহমেদ রাজু,পলাশ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি জননেতা মরহুম হাসানুল হক হাসান ও ছাত্র নেতা জনাব ওবায়দুল কবির মৃধা সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। পরবর্তী সময়ে সাংগঠনিক কর্ম কান্ডকে আরও গতিশীল করার লক্ষে কাজ শুরু করেন। ১৯৯৯ সালে গজারিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী সেচ্ছাসেবেক লীগের সভাপতি নির্বাচিত হই। বর্তমানে কলম সৈনিক হিসেবে লেখা – লেখীর পাশাপাশি পলাশ উপজেলা আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের ও করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় গণসচেতনতায় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “আমরা করবো জয় ” এর মাধ্যমে মানব সেবায় নিয়োজিত আছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ