আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

হোটেলে কাজ করে সংসার চালায় নয়াহাটের আমির 

কে এম নজরুল ইসলাম :
যে বয়সে তার যাওয়ার কথা স্কুলে সে বয়সে সংসারের হাল ধরার জন্য তাকে করতে হচ্ছে হোটেলের কাজ। ১৫ বছরের আমির হোসেন সংসারের বড় ছেলে হওয়ায় এবং বাবা জীবিত না থাকায় তার দায়িত্ব বেড়ে গেছে আরও কয়েকগুণ।
সংসারের খরচ, ভাইবোনের লেখাপড়ার দায়িত্ব নিতেই দিনরাত বড়দের মতো কষ্ট করে কোনোমতে সংসার চালাচ্ছে সে।
ডাকাতিয়া নদীর পাশেই ছায়া ঢাকা পাখি ডাকা গ্রাম ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৯নং গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের চরমথুরা গ্রামের খান বাড়ির মৃত নূরুল হক খানের ছেলে এই আমির হোসেন। তার পিতা মারা যায় তাকে ছোট রেখেই।
পিতা মারা যাওয়ার পর মানুষের বাড়ি বাড়ি কাজ করে এবং এলাকার মানুষের আর্থিক সহযোগিতায় কোনোমতে সংসার চালাতে থাকে তার মা লুৎফা বেগম। কিন্তু কিশোর বয়সী আমির তার মাকে মানুষের বাড়িতে কাজ করতে দিতে নারাজ। অন্যদিকে তার মা অসুস্থ হওয়ায় নিজেই ৬/৭ বছর পূর্বে নয়াহাট বাজারের সিদ্দিকের হোটেল দৈনিক ২০ টাকা বেতনে প্লেট ধোয়ামোছার কাজ নেয়।
হোটেলে প্রতিদিনের খাওয়া শেষে বাড়িতে ফিরে পুরনো বাসি খাবার নিয়ে, সেখানে যে তার মা এবং ভাইবোন আছে! আমির হোসেনের দায়িত্ববোধ তাকে চিন্তাচেতনায় আরও বড় করে তোলে।
লেখাপড়ার ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অভাবের কারণে লেখাপড়া করতে পারছিল না, ভবিষ্যতে পারবে কী না সন্দেহ আছে। এখন সে কাজ করছে নয়াহাট বাজারের আলম সুইটমিটে। এখানেও তার কাজ প্লেট ধোয়া, টেবিল মোছা। কাজের ধরন না বদলালেও বেতন বেড়েছে কিছুটা।
প্রতিদিন তার কাজের রোজ ২০০ টাকা। মাস শেষে বেতনের ৬ হাজার টাকা এবং ভাগ্যগুণে যদি কোনো বকশিশ পায় তা দিয়ে চালিয়ে নিচ্ছে সংসারের সবকিছু। কথা প্রসঙ্গে আমির জানায় তার মামারা তেমন একটা সহযোগিতা করে না। তবে প্রতি রোজার ঈদে ১ হাজার টাকা দেয় কিছু কেনার জন্য।
আমির আরও জানায় তার বড়বোন রিমা আক্তার (১৭) নয়াহাট স্কুলে দশম শ্রেণীতে পড়ছে, ছোটভাই নবীর হোসেন (১০) পড়ছে একটি মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেণীতে। মাঝেমধ্যে বিভিন্নজনের কাছ থেকে ভাইবোনের পরীক্ষার ফি ও বই কেনার জন্য সাহায্য পায় সে।
দিনের পর দিন খেয়ে না খেয়ে ছোট্ট একটা জরাজীর্ণ দোচালা ঘরে মা ও ২ ভাইবোনকে নিয়ে দিনাতিপাত করছে আমির হোসেন। তার মৃত পিতার তেমন কোনো জমিজমা নাই। সহায়সম্বল বলতে বাড়িতে এই ভাঙাচোরা দোচালা ছোট্ট ঘরটি ছাড়া আর কিছুই নেই। সামান্য ঝড়বৃষ্টিতে ঘরের চালা দিয়ে পানি পড়ে। মানুষের সাহায্য সহযোগিতায় জীবন চালায় সে।
তাতে তার অসুস্থ মায়ের পরিচালকের ভূমিকা থাকে। কিশোর আমির হোসেন আক্ষেপ করে বলে, ‘আমাদের দুঃখের কথা কেউ শোনে না। এতো মানুষ সরকারি ঘর পায়, আমাকে কেউ একটা ঘর দেয় না। একটা ঘর হলে অসুস্থ মা ও অপর দুই ভাইবোনকে নিয়ে ভালোভাবে বসবাস করতে পারতাম।’
আমিরের মা লুৎফা বেগমের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, ‘সরকারি কোনো ভাতা তারা পাই না। একটা ভাতার কার্ডের ব্যবস্থা হলে সংসারের কাজে লাগতো, পোলাপানরা একটু ভালোমতোন খাইতে পারতো। আর বাপ মরা এতিম ছেলেমেয়েদের নিয়ে আমি একটু শান্তিতে থাকতে চাই।’
এদিকে আমির হোসেনের ইচ্ছা নিজে তো লেখাপড়া করতে পারছে না, কিন্তু সে কষ্ট করে হলেও ভাইবোনকে লেখাপড়া করিয়ে শিক্ষিত করে গড়ে তুলবে। তিন বছর পূর্বে মোটরসাইকেল এক্সিডেন্টে মাথা ফেটে মারাত্মকভাবে জখম হয়েছিল সে। কিন্তু অসুস্থ হয়ে তবুুও দমেনি সে।
সুস্থ হয়ে ফিরে এসেছে কাজের কাছে। মাথায় চোট আছে, মনেও চোট আছে, কিন্তু মনোবলে চোট নেই তার। তাকে তার সংসারের হাল ধরতেই হবে। সহজসরল ছেলে আমিরের কথাবার্তায়ও সরলতা খুঁজে পাওয়া যায়।
আমির হোসেনকে ছোটবেলা থেকেই দেখেন এবং মাঝেমধ্যে সাহায্য-সহযোগিতা করেন এমন একজন মাইদুল ইসলাম রাজু বলেন, ‘আমির খুবই ভদ্র একটা ছেলে। তার এবং তার পরিবারের জন্য কিছু করতে পারা সৌভাগ্যের মনে করি।
তবে আমার সাধ্যমতো সহযোগিতা করে থাকি। সমষ্টিগত সাহায্য পেলে আমিরের পরিবারের অনেক উপকার হতো। সরকারের তরফ থেকে তো অসহায় গরীব মানুষদের কতকিছুই দেওয়া হয় জানি, সেখান থেকে যদি একটা ফান্ড ওরা পায় তাহলে খুবই ভালো হয়। তাছাড়া আমিরের বিধবা মায়ের একটা ভাতা কার্ডের ব্যবস্থা করতে পারলে সেটাও ভালো হতো।’
চরমথুরা গ্রামের মো. আব্দুল কুদ্দুস জানান, ‘ওরা খুবই অসহায়। বাবা মারা যাওয়ার পর আমিরের মা বিভিন্নস্থানে কাজকর্ম করে তাদের ভাইবোনকে নিয়ে সংসার চালাচ্ছে। আমির হোসেনও ছোটবেলা থেকেই হোটেলে ছোটখাটো কাজকর্ম করে যা ইনকাম করে তা তার মায়ের হাতে তুলে দেয়। তাদের জন্য কিছু করা দরকার।’
৯নং ওয়ার্ড মেম্বার মো. আব্দুল মান্নান মুন্সি বলেন, ‘আমি চেষ্টা করব ওনার জন্য কিছু করতে। মাঝেমধ্যে কার্ডের চাল দিই ওনাকে। আর বিধবা ভাতার কার্ডের বিষয়ে চেয়ারম্যান সাহেব বলতে পারবেন।’
গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল চৌধুরী বলেন, ‘জানুয়ারি মাসে ইউনিয়ন পরিষদের নতুন বিধবা ভাতার কার্ডের চাহিদা চাওয়া হয়; ওই সময় যোগাযোগ করলে অবশ্যই একটা ব্যবস্থা করে দেওয়া যাবে। এখন তো সম্ভব নয়। আর যদি অন্য কোনো সুযোগও থাকে, সেটাও দেখা হবে।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ