আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২৪ ইং

অস্তিত্ব সংকটে ফরিদগঞ্জের ডাকঘর 

কে এম নজরুল ইসলাম :
হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের চিঠিপত্র। অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার অনেক পোস্ট অফিস। হারিয়ে যেতে বসেছে কালি-কলম-মন এই তিনের সমন্বয়ের চিঠি। হারিয়ে যাচ্ছে হলুদ, নীল খামে প্রিয়জনকে কাগজে লেখার সেই আবেগ।
বিদেশ থেকে খামে ভরে আসা ড্রাফটের চাহিদা মিলিয়ে গেছে ব্যাংকিং ও মানি ট্রান্সফারের কাছে। শহর থেকে দেশের প্রত্যন্ত অজপাড়াগায়ে পৌঁছে গেছে প্রযুক্তির সেবা। যখন ইচ্ছে প্রিয়জনের সঙ্গে বার্তা আদান-প্রদানে চিঠির বদলে সবার ভরসা এখন নতুন নতুন প্রযুক্তির।
ফুরিয়ে গেছে ডাকঘরের মাধ্যমে চিঠি পাঠানো কিংবা টেলিগ্রাম সেবার প্রয়োজনীয়তা। অভিজ্ঞদের ধারনা, একটা সময় আসবে যখন ভাষা ও জ্ঞানের শৈলিতে সৃষ্টিশীল ভাবনায় লেখা চিঠির আবেগ, অনুভূতি কখনোই স্পর্শ করবে না বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির আলোয় বেড়ে ওঠা একটি ছেলে-মেয়ের অনুভূতিতে।
একটা সময় ছিল যখন চিঠিই জোগাতো বিনোদনের খোরাক। সাইকেলের বেল বাজিয়ে ডাকপিয়নের সেই হাঁক- ‘চিঠি এসেছে, চিঠি’। সেসব চিঠি ব্যথাতুর হৃদয়ে ঝরাতো কান্না, কখনও করতো উৎফুল্ল আবার কখনও করতো আবেগাপ্লুত।
চিঠি লেখার বাক্যচয়ন, ভাষার প্রায়োগিক ব্যবহারের নান্দনিকতায়, স্নেহ ভালোবাসার পূর্ণতায় অপার মমতা উঠে আসতো এক একটি চিঠিতে। প্রণয়ের চিঠি ছিল তারুণ্যের উচ্ছ্বাস হৃদয়ের আবেগের এক মধুময় পাঠশালা।
প্রেমিক হৃদয়ের আকুলতা-ব্যাকুলতা প্রতীক্ষার প্রহরের খুঁটিনাটি ভাষার মাধুর্যে শত ফুল দিয়ে গাঁথা একটি চিঠি হৃদয়ে জোগাতো মধুময় শিহরণ। মার্জিন টানা কাগজে, কলমের কালিতে প্রিয়জনের কাছে হৃদয়ের কথা ফুটিয়ে তুলে পাঠানো সে চিঠির জবাবের জন্য পথ চেয়ে বসে থাকার কথা এখন যেন স্বপ্ন।
কখনও কাগজের ভাঁজে ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে দেয়া, কখনও পারফিউমের দুই এক ফোঁটা ফেলে চিঠিকে সুগন্ধী করে তোলা ছিল বাড়তি অনুভূতির প্রকাশ। বারবার চিঠি খুলে পড়া আবার ভাঁজ করে রাখতে গিয়ে একসময় ভাঁজের অংশগুলোই ছিঁড়ে যেতো।
এখন আর নেই পিয়নের পানে পথ চেয়ে থাকা প্রিয়জনদের উদ্বিগ্নতা। ডাক বিভাগেও নেই সেই ব্যস্ততা। কেউ আসে না চিঠির খোঁজ নিতে। প্রিয়জনদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষায় এখন আর নেই চিঠির প্রচলন। ফলে চিঠি শূন্য এখন ডাকঘর। তাই কর্মীদেরও চিঠি পৌঁছে দেয়ার নেই কোনো তাগিদ। অলস সময় কাটে সকলের। পথের ধারেও এখন আর দেখা যায় না সুদৃশ্য চিঠি বক্স।
জেলা এবং উপজেলা ডাকঘর ছাড়া গ্রামাঞ্চলের অধিকাংশ ডাকঘর দিনের পর দিন বন্ধ থাকছে। অধিকাংশ ডাকঘরে নেই কোনো ডাকবাক্স। দু-একটি থাকলেও চিঠির পরিবর্তে তার মধ্যে থাকছে ময়লা-আবর্জনা। আবার অনেক ইউনিয়নে সরকারিভাবে নিজস্ব ঘর নেই পোস্ট অফিসের। ইউনিয়ন পোস্টমাস্টার বা পিয়নরা অন্যদের অফিসে জরাজীর্ণভাবে অফিস করেন।
অভিজ্ঞরা মনে করেন, দ্রুত চলমান জীবনে চিঠি লেখার অবকাশ নেই কারো। চিঠি পাওয়ার আকুলতা, পড়ার আনন্দ সবকিছুই আজ দখল করে নিয়েছে ফেসবুক, ইমু, টুইটার, ইনস্ট্রাগ্রাম, হোয়াটসঅ্যাপ। এসব প্রযুক্তির গতির ধাক্কায় কাগজ-কলম হাতে এখন আর লেখা হয় না চিঠি। ফলে কালি-কাগজে, হলুদ-নীল খামের অদ্ভুত সেই অনুভূতির সময়টুকুও আজ হারিয়ে গেছে।
একসময় ডাকবিভাগ ছিল যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। চিঠি, পণ্য পার্সেল, টাকা পরিবহনে একমাত্র ভরসা ছিল ডাক বিভাগ। টেলিফোন এক্সচেঞ্জ আওতা বহির্ভূত এলাকার পোস্ট অফিসে ছিল টেলিগ্রাম ব্যবস্থা। মানি অর্ডারের বদলে মোবাইল ফোনে হচ্ছে মানি ট্রান্সফার। অফিসিয়াল চিঠি ও ডকুমেন্ট পাঠাতে ব্যবহার হচ্ছে কুরিয়ার সার্ভিস। আধুনিক যুগে এসে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে চিঠি আদান-প্রদানের বিষয়টি সম্পর্কে একদমই ধারণা নেই এই সময়ের ছেলেমেয়েদের।
উপজেলার নয়াহাটের তরুণ প্রজন্মের দুই বন্ধু মোস্তাফিজুর রহমান ও রাজু ভূঁইয়া জানায়, ‘মানুষের কাছে শুনতাম ডাকঘরে একসময় প্রচুর ভীড় থাকতো, এখন আমরা সেটা দেখছি না। পত্রমিতালি করার সুযোগটাও আমরা পেলাম না। সবকিছু এখন মোবাইলে মোবাইলেই চলে। কথায় আছে না ‘যায় দিন ভালো, আসে দিন খারাপ’।’
কোনো কোনো পোস্ট অফিসে চিঠি ফেলার বক্স নেই। নেই পর্যাপ্ত লোকজনবল। নেই ভালো বেতন, সুযোগ সুবিধা। কারো কারো নেই নিজস্ব কোনো অফিস রুম, থাকতে হচ্ছে ভাড়ায়। কোনো কোনো অফিস রুমের অবস্থা জরাজীর্ণ, ভয়ঙ্কর। ক্ষোভ আছে পোস্ট অফিসারদের মাঝেও। পুরো ফরিদগঞ্জের চিত্রপট এমনই। চিঠিপত্র বা কাজকর্ম তেমন নেই বলে সরকারিভাবেও অবমূল্যায়ন করা হচ্ছে পোস্ট অফিস সংশ্লিষ্ট চাকুরিজীবীদের- এমনটাই ধারণা করছেন অনেকে। ‘যদি আবারও ফিরে আসতো পুরনো দিন’- বলে একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলেছেন পত্রমিতালি করা ফরিদগঞ্জের এক তরুণ।
ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৯নং গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের নয়াহাট বাজার পোস্ট অফিসের পোস্টমাস্টার মো. আবুল বাশার ভূঁইয়া বলেন, ‘চিঠিপত্রের প্রচলন শূন্যের কোটায় না পৌঁছলেও তা অতটা বেশিও না। পোস্ট অফিসে একসময় প্রচুর কাজের চাপ ছিল, এখনও কাজ কম নয় অবশ্য।
বিভিন্ন অফিস আদালতের চিঠিপত্র বিলি চলে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে। কিন্তু এরপরও আমাদের সম্মানী ভাতা একেবারেই নগন্য। ইউনিয়ন পোস্ট মাস্টারদের ভাতা মাত্র ৪ হাজার ৫ শত টাকা । এ সামান্য টাকায় কিছুই হয় না। আবার দেখা যায় বেতনে বৈষম্য আছে। পোস্ট মাস্টার ও পিয়নের বেতনটাও কাছাকাছি। এগুলোরও উন্নতি ঘটুক।’
ফরিদগঞ্জ উপজেলা সদরের পোস্টমাস্টার মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘কালের আবর্তনে ব্যক্তিগত চিঠিপত্র বিলুপ্ত হলেও অফিসিয়াল কাগজপত্র, পার্সেল ও বিপিসহ পোস্ট অফিসে কাজের চাপ কমেনি বরং আরও বেড়েছে এবং জনবল সংকটে রয়েছে পোস্ট অফিসগুলো। আমাদের উপজেলা সদর পোস্ট অফিসেই এখন ৯টি পদ শূন্য পড়ে আছে। শুধু আমাদের না, সবখানেই জনবল সংকট আছে। কাজের চাপ আছে, তবে সেটা ধরন পাল্টেছে।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ