আজ ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুলাই, ২০২১ ইং

করোনায় দেশে আটকা পড়েছে ফটিকছড়ির সহস্রাধিক প্রবাসী

 

ডেক্স রিপোর্ট : 

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের কারনে প্রবাসে কর্মরত বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিক ইতিমধ্যে চাকরি হারিয়ে বাধ্য হয়েছেন দেশে ফিরে আসতে। লকডাউনের কারণে আটকে পড়ায় নতুন করে আবার বিদেশ গিয়ে চাকরি করতে পারবেন কিনা সেটি নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

এছাড়াও বিমান টিকিট প্রাপ্তিতে জটিলতা, হয়রানি ও অব্যবস্থাপনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রবাসীরা।

গত বছর চট্টগ্রাম থেকে বিদেশে গেছেন প্রায় ৪৬ হাজার শ্রমিক। প্রবাসীদের বিরাট একটি অংশ চট্টগ্রাম হয়েই আসা যাওয়া করে। এর বড় একটি অংশ ফটিকছড়ি উপজেলার বাসীন্দা। করোনায় ফটিকছড়ি উপজেলা কতজন প্রবাসী আটকা পড়েছেন তার সটিক তথ্য জানা না থাকলে কেউ কেউ মন্তব্য করছেন প্রায় সহস্রাধিক প্রবাসী আটকা পড়েছে এই করোনায়। এছাড়াও যারা দেশে এসে আটকা পড়ে এখন ফিরে যেতে চাচ্ছেন তারা নানা কারণে দুর্ভোগে পড়ছেন। করোনার স্যাম্পল দিতেও পোহাতে হচ্ছে নানা ভোগান্তি।

ভুজপুরের বাসিন্দা মোঃ আব্দুল্লাহ সৌদি আরবে ১৮ বছর ধরে কাজ করতেন। করোনার কারণে গত মার্চে তিনি দেশে ফিরে আসেন। কিন্তু তার জমানো টাকা এরইমধ্যে খরচ হয়ে গেছে। কবে ফিরে যেতে পারবেন, আদৌ ফিরে যেতে পারবেন কিনা তার কোনো আশ্বাস পাচ্ছেন না। তিনি বলেন,‘‘ এরই মধ্যে এক লাখ টাকা ধার করেছি। ধার চাইতেও লজ্জা লাগে।

ফটিকছড়ি পৌরসভার বাসিন্দা দুবাই প্রবাসী মোঃ লোকমান হাকিম বলেন, সবচেয়ে ভালো হতো যদি বিমানবন্দরে প্রবেশের আগেই কোনোভাবে টেস্টের ব্যবস্থা করা হতো। তাহলে আর প্রবাসীদের নানা দিকে ছুটাছুটি করতে হতো না। অন্যদিকে বাংলাদেশ থেকে কয়েকটি ফ্লাইট চলাচল করলেও সম্প্রতি একটি ফ্লাইটের যাত্রীদের দুবাই এয়ারপোর্ট থেকে যাত্রীদের বের হতে দেয়নি। তাই আমি টিকেট করেও আবার বাতিল করেছি।

এদিকে, দেশে ফিরে আসা প্রবাসীদের আবার ফেরত পাঠানো এবং দেশের ভেতরেই পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা খুবই জরুরী বলে মন্তব্য করেছেন সচেতন মহল।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ