আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

তারাকান্দা উপজেলার এক অদম্য কৃষিবিদ মিজানুর রহমানের গল্প’

 

মাহফুজুর রহমান :

সবুজ শ্যামল প্রকৃতিতে ঘেরা ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার এক দুর্গম গ্রাম বিসকা। এই গ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্থা অত্যন্ত অপ্রতুল সেই সাথে মানসম্মত কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নেই বললেই চলে।কিন্তু সকল প্রকার বাধাবিপত্তিকে উপেক্ষা করে দুর্গম সেই গ্রামের সবুজ চত্বর থেকে বেড়ে ওঠা এক অপ্রতিরোধ্য তারকার নাম কৃষিবিদ এ.কে.এম. মিজানুর রহমান।ছোটবেলা থেকেই তিনি ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী ও শান্ত প্রকৃতির। সকল প্রকার প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে জীবন সংগ্রামের স্রোতে কিভাবে এগিয়ে যেতে হয় সেই মন্ত্র তিনি ছোটবেলা থেকেই মনেপ্রাণে ধারণ করেছিলেন।ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ গৌরীপুর আর.কে. সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে পাস করার পর উচ্চমাধ্যমিকেও সেই সফলতার ধারা অব্যাহত রাখেন।এরপর এশিয়া মহাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন।এরপর সেখান থেকে অত্যন্ত কৃতিত্বের সাথে বি.এস.সি(এজি.) ও এম.এস.সি(এজি.) ডিগ্রী অর্জন করার পাশাপাশি টি.ই.এ. ফেলো(আমেরিকা) ডিগ্রীও অর্জন করেন। বর্তমানে তিনি রাজধানীর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত দেশের অন্যতম শ্রেষ্ট বিদ্যাপীঠ ঐতিহ্যবাহী ধানমন্ডি সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।এব্যাপারে কৃষিবিদ এ.কে.এম. মিজানুর রহমানের সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন,শিক্ষকতা একটি মহান পেশা,এটি একমাত্র প্লাটফর্ম যেখান থেকে নিজের অর্জিত জ্ঞান সরাসরি বিতরণের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মকে সঠিক ভাবে গাইডলাইন দেওয়া যায়।আর সেই কাজটি তিনি অত্যন্ত সততা
ও নিষ্ঠার সাথে করে যাচ্ছেন।ফলশ্রতিতে তিনি জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৮ ও ২০১৯ সালে ঢাকা মহানগরে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।সেই সাথে তিনি দক্ষিণ কোরিয়া থেকে আইসিটি সেক্টরে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত হয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন পর্যায়ে প্রশিক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ রয়েছেন।এছাড়া তিনি এনসিটিবি,শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কৃষি শিক্ষা বইয়ের লেখকের ভূমিকায় অবতীর্ণ,সেই সাথে বাংলাদেশ ওপেন ইউনিভার্সিটির বুক রিভিউয়ার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে কৃষিবিদ এ.কে.এম. মিজানুর রহমান বলেন,আমি যে গ্রাম থেকে বড় হয়েছি সেটি একটি দুর্গম,গহীন ও সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত একটি অনগ্রসর গ্রাম, কিন্তু আমার প্রবল ইচ্ছা শক্তি,আত্নবিশ্বাস ও মনের মধ্যে সফলতা অর্জনের তীব্র আকাঙ্কা আমাকে আজ এ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে।আমি অদূর ভবিষ্যতে আরো বহুদূর এগিয়ে যেতে চাই এবং আমার এলাকার সার্বিক উন্নয়নে অবদান রাখতে চাই। উল্লেখ্য বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী কৃষিবিদ এ.কে.এম. মিজানুর রহমান এলাকার রাস্তাঘাট পাকাকরণ ও স্বাস্থ্য সেবা সুনিশ্চিতে ক্লিনিক স্থাপনের জন্যে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।এজন্য তিনি মন্ত্রণালয়ে একাধিক চিঠিও পাঠিয়েছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ