আজ ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

অদেখা প্রেমিকার মৃত্যুর খবরে কাঁদলেন অপেক্ষারত প্রেমিক

 

পরিমল চন্দ্র বসুনিয়া,লালমনিরহাট প্রতিনিধি:

দীর্ঘ ৩ বছর ধরে মোবাইলে কথা বলাবলির মাধ্যমে পরকীয়া প্রেমের সৃষ্টি হলেও কখনো ভিডিও কলে বা সরাসরি দেখা হয়নি দীপালী দেবী ও রিকন মিয়ার। গত ১৫ জুলাই দীপালী দেবী হত্যাকাণ্ডের শিকার হলেও সেই খবর জানতো না প্রেমিক রিকন মিয়া। আটকের পর রোববার দুপুরে পুলিশের কাছে তার প্রেমিকার মৃত্যুর খবর শুনে কেঁদে ফেলেন রিকন মিয়া। এ সময় রিকন মিয়া বলেন, আমি দীপালীকে না দেখলেও তাকে অনেক ভালোবাসি। তাকে হত্যা করে ঠিক করে নাই। আমি তার অপেক্ষায় ছিলাম।

দীপালী দেবী সিংহ লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার টংভাঙ্গা ইউনিয়নের পূর্ব বেজগ্রাম এলাকার পরিমল দেব সিংহের স্ত্রী ও রিকন মিয়া হবিগঞ্জ জেলার আজমেরীগঞ্জ উপজেলার জলশুকা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের হিরন মিয়ার পুত্র বলে জানা গেছে।

ওই হত্যাকাণ্ডের আরো রহস্য বের করতে হবিগঞ্জ জেলার আজমেরীগঞ্জ থানা পুলিশের সহযোগিতায় প্রেমিক রিকন মিয়াকে ওই এলাকা থেকে গ্রেফতার করেন হাতীবান্ধা থানা পুলিশ। তাকে রোববার দুপুরে হাতীবান্ধা থানার মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। এ সময় পুলিশের কাছে তার প্রেমিকা দীপালী দেবীর হত্যাকাণ্ডের খবর শুনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন রিকন মিয়া।

পুলিশ জানান, দীপালী দেবী সিংহ’র সাথে রিকন মিয়ার মোবাইল ফোনের মিস কল থেকে ৩ বছর আগে পরকীয়া প্রেমের সূত্রপাত। গত ৯ জুলাই রিকন মিয়াকে বিয়ে করতে সন্তান ও স্বামী ছেড়ে দীপালী দেবী সিংহ তার স্বামীর ৩ লক্ষ টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়। পরে দীপালী দেবী ওই এলাকার আফজাল হোসেনের পুত্র রমজান আলী ও ধনর উদ্দিনের পুত্র নজরুল ইসলামের শরণাপন্ন হন। রমজান আলী ও নজরুল ইসলাম দুই জনে দীপালী দেবীকে নিয়ে ওই দিন রাতে পাটিকাপাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম হলদিবাড়ী এলাকার আবুল হোসেনের পুত্র ওসমান আলীর বাড়িতে আশ্রয় নেয়। ১৪ জুলাই রাতে ওসমান আলী ও ওই এলাকার মেছের আলীর পুত্র রবিউল ইসলাম দু’ জনে দীপালী দেবীকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী জলঢাকার কথা বলে তিস্তা নদীর চরে নৌকা যোগে নিয়ে যায়। এ সময় ওসমানের সাথে রিকন মিয়ার মোবাইল ফোনের কথা হয়। ওসমান দীপালীকে ঢাকায় নিয়ে যাবে। ঢাকা থেকে রিকন তাকে নিয়ে হবিগঞ্জ গিয়ে বিয়ে করবেন। কিন্তু ওই দিন গভীর রাতে ওসমান ও রবিউল টাকার লোভে দীপালী দেবী সিংহকে হত্যা করে বালু চরে পুতিয়ে রাখে। এ সময় দীপালী দেবী সিংহ’র ব্যাগে থাকা টাকা তারা ভাগাভাগি করে নেয়।

এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে রমজান আলী, নজরুল ইসলাম ও ওসমান আলীসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দীপালী দেবী সিংহ’র ভাসুর বিমল চন্দ্র দেব সিংহ বাদী হয়ে হাতীবান্ধা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

হাতীবান্ধা থানার ওসি ওমর ফারুক বলেন, এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে আমরা অধিকতর তদন্ত শুরু করেছি। প্রকৃত আসামীরা যাতে সাজা পায় সেই বিষয়ে আমরা কাজ করছি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ