আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

রান্দিয়া গ্রামে ভিজিএফ চাল বিতরন করেছেন এমপি ধনু

 

বিশেষ প্রতিনিধি
মো.গোলাম মৌলা :

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ভিজিএফ কর্মসূচীর আওতায়, ভালুকা উপজেলার অন্তর্গত ধীতপুর ইউনিয়ন এর রান্দিয়া গ্রামে অতি দরিদ্র পরিবার এর মাঝে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়।

এসময়,করোনা মোকাবেলায় রান্দিয়া গ্রামের মসজিদ গুলোর মধ্যে ১০০০ মাস্কও বিতরণ করা হয়।

চাল বিতরণ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব আবুল কালাম আজাদ, ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম পিন্টু,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা রশিদ। আরও উপস্থিত ধীতপুর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান জনাব আশরাফুল আলম, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।
সভাপতিত্বে ছিলেন,
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব মাসুদ কামাল।

রান্দিয়া গ্রামের ৪০০ পরিবার এর মধ্যে ভিজিএফ কর্মসূচীর এই চাল বিতরণ করা হয়।ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের মাধ্যমে ভিজিএফ কর্মসূচীর চাল এর কার্ডগুলো দরিদ্র পরিবার এর মাঝে পৌঁছে দেয়া হয়।

এমপি কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু তার বক্তৃতায়, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভুয়সী প্রশংসা করে বলেন ” এই করোনাকালীন সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন, যাতে বাংলাদেশের কাউকেই অভুক্ত থাকতে না হয় এজন্যই প্রতিটি দরিদ্র পরিবার এর মাঝে তিনি সহযোগীতা পৌঁছে দিয়েছেন”।

উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব আবুল কালাম আজাদ বলেন,
ভালুকার প্রতিটি দরিদ্র পরিবার এর মাঝে করোনাকালীন সময়ে উপজেলা পরিষদ ত্রাণ বিতরণ করেছে যেটা ভবিষ্যতেও অব্যহত থাকবে।

ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম পিন্টু, তার বক্তৃতায় বলেন ভালুকা উপজেলা পরিষদ ভবিষ্যতেও অসহায় মানুষের পাশে দাড়াবে।

“দৈনিক আগামির সংবাদ ” এর সাথে একান্ত সাক্ষাৎ কারে রফিকুল ইসলাম পিন্টু বলেন ভিজিএফ কর্মসূচীর আওতায় ভালুকার দরিদ্রদের এই ঈদুল আজহার আগে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ বিতরণ করা হচ্ছে।
রান্দিয়ার ৪০০ পরিবার এর মাঝে এই ত্রান বিতরণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

৪ নং ধীতপুর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান জনাব আশরাফুল আলম “আগামির সংবাদ কে জানান, ধীতপুর ইউনিয়ন এর ৩৬০০ পরিবার কে ভিজিএফ কর্মসূচীর আওতায় ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হবে৷
রান্দিয়ার প্রতিটি মসজিদ এ ১০০ টি করে মোট ১০০০ মাস্ক দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। মাস্কগুলো শুক্রবার জুমার পর বলে বিতরণ করা হবে বলে তিনি জানান৷ মসজিদ কমিটির পক্ষে প্রতিনিধি গণ মাস্কগুলো গ্রহণ করেন।

ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে সকলের মাস্ক পরিধান না করা নিয়ে,অসন্তোষ প্রকাশ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব মাসুদ কামাল। পরবর্তী সময়ে এরকম অনুষ্ঠানে মাস্ক পরিধান না করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

ত্রান বিতরণ কার্যক্রম শেষ করতে দুপুর ২ঃ৩০ বেজে যায়।
ত্রান বিতরণ কার্যক্রম সম্পর্কে এলাকার মানুষ ইতিবাচক মতামত দিয়েছেন।
হাফেজ আলামিন মন্তব্য করেন,” আজকের ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম খুব সুন্দর হয়েছে।

এলাকাবাসী ত্রান বিতরণ নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ