আজ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

রাজারহাট গবাদি পশুর শরীরে ‘বিরল ভাইরাসের’ সংক্রমণ

 

 

ডাঃ রফিক
কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি :

 

কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার গবাদিপশুর শরীরে ভাইরাস সংক্রমণে গত বছর অক্টোবরে ভারত হয়ে বাংলাদেশে আসা এই আফ্রিকান ভাইরাসটির সংক্রমণ এবার ব্যাপক আকার ধারণ করেছে।

রাজারহাট উপজেলার উমর মজিদ ইউনিয়নের, ৪ নং ওয়ার্ডের ফুল খাঁ মোজাহিদ পাড়া গ্রামের
মোঃ আঃ রশিদ মিয়ার একটি গরু, মোঃ আব্দুল ছালাম মিয়ার একটি গরু, মোঃ ওমর আলীর একটি গরু মোট ৩/৪ টা গরু এই ভাইরাস সংক্রান্ত হয়ে গত ০৪ জুলাই ২০২০ ইং মারা যায়। এই গ্রামের মোঃ হবিবর রহমানের একটি গরু এই ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে ভুগছেন। তার চিকিৎসা খরচ বহন করতে করতে অসহায় পরিবারটি অনেক ক্ষতি গ্রস্থ হয়ে পরেছে। তার পরও কোন কিছুতেই সুস্থতার লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

গরু পালনই তাদের একমাত্র জীবিকা। মাস তিনেক আগে একটি করে বাচ্চা দেয় তার গাভী। কিছুটা স্বস্তি নিয়ে তিনি ভেবেছিলেন, এবার এই গরুর দুধ বিক্রি করে অন্তত আগামী এক বছর নিশ্চিন্তে তার সংসার খরচ মিটবে। আর বাছুরটি বড় হলে বিক্রি করে তিনি আরও কিছু টাকা পাবেন। কিন্তু বুলবুলির স্বপ্নে বাধ সাধে “বিরল প্রজাতির” এক ভাইরাস।

ভাইরাসের সংক্রমণে শরীরে গোটা আর ক্ষতের সৃষ্টি হয়ে সপ্তাহখানেক আগে মারা যায় বাছুরটি। শুধু ওই গ্রামের অনেকেই রাজারহাট উপজেলার শতাধিক খামারির গবাদি পশুর শরীরে ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। কোরবানি ঈদের আগে হঠাৎ এই রোগের প্রাদুর্ভাবে লোকসানের আশঙ্কা করছেন তারা।

রাজারহাটে প্রাণি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত বছর অক্টোবরে ভারত হয়ে বাংলাদেশে আসা এই আফ্রিকান ভাইরাসটির সংক্রমণ এবার ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। এক ধরনের আরএনএ ভাইরাস সৃষ্ট ‘‘লাম পি স্কিন ডিজিস’’ নামের রোগটি গবাদি পশু বিশেষ করে গরুর মধ্যে ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছে।

জেলার রাজারহাট উপজেলার প্রাণি সম্পদ দপ্তর বলছে, এই রোগের সুনির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই। এতে আক্রান্ত পশুর চামড়া ফুলে গোটা গোটা সৃষ্টি হয়। পরে সেগুলো ফেটে গিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ঘায়ের মতো হয়ে যায়, তারপর আক্রান্ত পশুর জ্বর আসে। এক সময় আক্রান্ত পশু অত্যন্ত দুর্বল হয়ে ওজন কমে গিয়ে সেটি মারা যায়।

ভেটেরিনারি সার্জনরা বলছেন, বয়স্ক পশুর তুলনায় আক্রান্ত শাবকের মৃত্যু ঝুঁকি কিছুটা বেশি।

জেলার রাজারহাট উপজেলার প্রাণি সম্পদ দপ্তরের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, জেলার রাজারহাট
উপজেলায় ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসটি এ পর্যন্ত সাড়ে তিন থেকে চার হাজার গরুকে আক্রান্ত করেছে। এর মধ্যে এক থেকে দুই শতাংশ গরু মারা গেছে।

এই গ্রামের গরু পালনকারী লোক মারফত “”দৈনিক আগামীর সংবাদ””কে জানায়, দাপ্তরিক হিসেবে শুধু রাজারহাট উপজেলাতেই অন্তত শতাধিক গরু এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এর বাইরেও অনেক গরু আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারে, যার তথ্য প্রাণি সম্পদ দপ্তরে পৌঁছাচ্ছে না। অনেকেই বাধ্য হয়ে কসাইয়ের কাছে এসব রোগাক্রান্ত গরু বিক্রি করে দিচ্ছেন।

রাজারহাট উপজেলার এই এলাকার ফুল খাঁ, মোজাহিদ পাড়া গ্রামের খামারি মোঃ আব্দুল ছালাম মিয়া (৪০) জানান, তার খামারে ৭টি গরু এই রোগে আক্রান্ত না থাকায়, তার মতামতে এলাকার অনেকেরই গরু এই ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার বাকিগুলোর অবস্থা এখনও খারাপ। তিনি সরকারি পশু চিকিৎসালয়ে না গিয়ে বাইরের ভেটেরিনারি সার্জনদের দিয়ে চিকিৎসা করাচ্ছেন।

মোঃ আব্দুল ছালাম মিয়া বলেন, ‘‘ঈদে বিক্রির জন্য গরুগুলো পালন করেছিলাম। হঠাৎ এই

এলাকায় গরুগুলোর এই ভাইরাস আক্রান্ত রোগে স্বাস্থ্যহানীসহ চামড়ায় ক্ষত সৃষ্টি হওয়ায় বিক্রি এবং উপযুক্ত দাম পাওয়া নিয়ে সংশয়ে আছি।’’

এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা.তৈয়বুর রহমান জানান, প্রতিদিন গড়ে তিন থেকে পাঁচটি আক্রান্ত গরু চিকিৎসার জন্য উপজেলা প্রাণি সম্পদ দপ্তরে আসছে। আকস্মিক এই বিরল রোগে আক্রান্ত গবাদি পশুর মৃত্যু হার কম হলেও এর সুনির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা এখনও পাওয়া যায়নি। সিন্ড্রোমেটিক ট্রিটমেন্ট (লক্ষণ দেখে চিকিৎসা) করেই আক্রান্ত পশু সুস্থ হয়ে উঠছে।

তিনি আরও বলেন, ‘‘বিরল এই ভাইরাসজনিত রোগের সুনির্দিষ্ট কোনো ওষুধ নেই। প্রথমদিকে এর চিকিৎসায় গোট টিস্যু ভেক্সিন প্রয়োগ করলেও তাতে খুব একটা ফল পাওয়া যায়নি। আক্রান্ত পশুর লক্ষণ অনুযায়ী আমরা বিভিন্ন মেডিসিন প্রয়োগ করে ইতিবাচক ফল পাচ্ছি। আক্রান্ত পশু সুস্থ হতে এক থেকে দেড় মাস সময় লাগতে পারে।’’

রোগ প্রতিরোধে গবাদি পশুকে মশা-মাছি থেকে দূরে রাখা, বিচরণ স্থান পরিচ্ছন্ন রাখা এবং আক্রান্ত পশুকে সুস্থ পশু থেকে আলাদা রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন ভেটেরিনারি সার্জনরা।

আরও জানান, দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে খামারিরা দুঃশ্চিন্তাগ্রস্থ হলেও এই রোগে পশুর মৃত্যুহার কম। সিন্ড্রোমেটিক ট্রিটমেন্টে আক্রান্ত পশু সুস্থ হয়ে উঠছে। কোনো পশু আক্রান্ত হলে দ্রুত প্রাণি সম্পদ কার্যালয়ে যোগাযোগের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ