আজ ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

শতভাগ বিদ্যুতায়িত নবাবগঞ্জে পিছিয়ে পড়েছে শিক্ষার আলো

 

রানা ভূইয়া :

 

 

শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলা নবাবগঞ্জ। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন এখন বিদ্যুতায়িত। উপজেলায় ঢুকতেই বড় বড় অক্ষরে লেখা। কিন্তু দেশের অন্যান্য উপজেলার তুলনায় এই উপজেলার সন্তানেরা পিছিয়ে পড়ছে শিক্ষার আলো থেকে। যদিও শিক্ষার যাবতীয় সুযোগ সুবিধা সরকারী বেসরকারী দুই ধরনের প্রতিষ্ঠানেই বৃদ্ধি করা হয়েছে। তথাপি নানাবিধ কারনে এই উপজেলা। এমনকি আগের সেই অবস্থানটাও ধরে রাখতে পারছে না। এক্ষেত্রে সমাজের শিক্ষিত মানুষের ভূমিকা রাখা প্রয়োজন বলে মনে করছেন অভিজ্ঞ মহল।
খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি ইউনিয়নে গড়ে ৭/৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সমপরিমান কিন্টার গার্ডেন স্কুল রয়েছে। কোন ইউনিয়নে এক বা একাধিক মাধ্যমিক স্কুলও রয়েছে। কোন কোন ইউনিয়নে আবার কয়েকটি কলেজ রয়েছে।
একটি শিশু জন্ম গ্রহন করার পর তার শিক্ষার যাবতীয় সুযোগ সুবিধা সরকারের পাশাপাশি বেসরকারীরভাবেও অবদান রাখছে। অর্থাৎ একটি সন্তান শিক্ষা গ্রহন করে উপরের উঠার যাবতীয় সুযোগ নিশ্চিয়তা দিচ্ছে সরকার এবং সমাজ। যেটি এই দেশে এক সময় খুব কম সুযোগ সুবিধা ছিলো। পুরো ৬টি ইউনিয়নে শিকারীপাড়া টি কে এম উচ্চ বিদ্যালয় এবং বান্দুরা হলিক্রস স্কুল ছিলো। পড়াশুনা করতো এই অঞ্চলের ছেলে মেয়েরা। প্রাথমিক বিদ্যালযও ছিলো হাতেগুনা কয়েকটি।
কলেজ ছিলো মানিকগঞ্জের দেবেন্দ্র কলেজ ও দোহার নবাবগঞ্জ কলেজ।
সুজাপুর, দাউদপুর নারায়ণপুর শেরপুর বকচর সহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকার ছেলেমেয়েরা কয়েক মাইল পায়ে হেঁটে শিকারিপারা টি কে এম উচ্চ বিদ্যালয়ে যেত। অনেক পরিবারের আয়ের কোন পথ ছিলো না। ভাই বোন অনেক। কিন্তু বাবা মা ছেলে মেয়েদের পড়াশুনা থেকে বিচ্যুত করেননি । পুরো সমাজ ব্যবস্থায় পড়াশুনার একটি পরিবেশ ছিলো। একইভাবে কান্দাবাড়্যিল্লা, কুমারবাড়িল্লা,কাউনিয়াকান্দি, বারুয়াখালী, দরিকান্দ্রি সহ আশেপাশের গ্রামগুলোর চিত্র একই ছিলো। পড়াশুনার পাশাপাশি ছিলো খেলাধূলা এবং সাংস্কৃতি চর্চা। অন্য সব মায়ের মতো আমার মা সেই সময় এতোটা শিক্ষিত ছিলো না। কিস্তু প্রশাসনের সবই ছিলো জানা। খুব ভোরে যখন মসজিদে আজান শুনা যেতো পাখিদের কলতানি শুরু হতো- মায়ের মুখের মুখে ২৫/৩০টি কবিতা স্কুলে ভর্তি হওয়ার আগে ই মুখস্ত হয়েছিলো। আর রাজা রানীর গল্প শুনে শুনে চাঁদের দেশে কতবার যে আমার দাদী নিয়ে গিয়ে ছিলো আজও মনে পড়ে। আমার মতো প্রতিটি পরিবারই একইভাবে সবাই বড় হয়েছে। দেশ বিদেশে প্রতিষ্টিত হয়েছে। আজ উচ্চ শিক্ষায় হাতেগুনা ২/৩ জনের বেশী খুঁজে পাওয়া যায় না। দল বেঁধে স্কুলে যাওয়ার দৃশ্য আর চোখে পড়ে না। ঝরে পড়ে প্রাথমিকে, ঝরে পড়ছে মাধ্যমিকে, ঝড়র পড়েছে উচ্চ মাধ্যমিক, ডিগ্রিতে। ঝঁরে পড়ার অনেকগুলোর কারনের মধ্যে অন্যতম কারনগুলো অভিভাবকদের অবহেলা, শিক্ষায় বানিজ্যকরন প্রবেশ, নিবেদিত শিক্ষকের অভাব, বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরর্ষদের যুগ্য লোকের অভাব প্রভূতি।
শিক্ষা নিয়ে কাজ করছেন , শিকারীপাড়া প্রাক্তন মেধাবী ছাত্র যিনি বর্তমানে সরকারী কর্মকর্তা হিসাবে কর্মরত আছেন জনাব মফিজুল শিশির এর মতে :” শিক্ষায় পিছিয়ে পড়ার প্রধান কারন পরিবার। গ্রামে আগের সেই একান্নবর্তী পরিবার আর দেখা যায় না । লেখাপড়ার সিদ্ধান্তু ‍গুলো বাবা মায়ের পাশাপাশি চাচা ফুবু ভূমিকা পালন করতেন। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় পুরো পরিবারটি শিক্ষিত হয়ে উঠতো। কিন্তু আজ সেই পরিবারগুলো ভেঙ্গে খান খান । বর্তমান পরিবারগুলোতে কোন বয়জৈষ্ঠ্য অভিভাবক থাকে না। বাবা হয়তো চাকুরী করেন প্রবাসে – মা সর্বসর্বা। চাচা, ফুবু, দাদা দাদীর সিদ্ধান্ত লওয়ার সুযোগ নেই।”
আজকের মা আমাদের আগের মায়েদের মতো না। আজকের মায়েরা নানা বিনোদন নিয়ে ব্যস্ত থাকে। সন্তানের পড়াশুনার বিষয়গুলো পরিবারের গুরত্বপূর্ন অংশ- এটি অনেক পরিবারই মানছেন না। যার ফলে সন্তানও হয়ে উঠছে অশান্ত। এখনকার মায়েরা জানে সন্তান পড়াশুনা না করলে বিদেশে গিয়ে কাজ করবে, আগেই নির্ধারন করে রাখেন।
বাবা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে টাকা পাঠিয়ে যাচ্ছেন কিন্ত ফলাফল শুন্য। এভাবেই দোহার নবাবগঞ্জে দিনকে দিন পিছিয়ে পড়ছে শিক্ষার আলো “ শিকারীপাড়া প্রাক্তন ছাত্র সংঘের অনলাইন গ্রপে এক আলোচনা সভায় উঠে আসে এই বিষয়গুলো। আলোচনায় মুল বক্তব্য উপস্থাপন করেন কানাডা প্রবাসী মেজর ( অবঃ) সুধীর সাহা,শিক্ষানুরাগী, লেখক ও গবেষক, কর্নেল অবঃ) আশিকুর রহমান খান,প্রভাষক , এমআইএসটি , শিকাারীপাড়া টি কে এম উচ্চ বিদ্যলয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি কাজী শওকত শাহীন, রাজনীতিবিদ ও কলামিষ্ট, দাউদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব অনিল কুমার চক্রবর্তী , বারুয়াখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক জনাব মোঃ হারুন অর রশিদ ও ঘোষাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি জনাব সামিউল হক শিমুল। ইঞ্জিনিযার আমিনুল ইসলাম ও জনাব আনিসুর রহমান সঞ্চালকের ভূমিকা পালন করেন। আগামীদিনগুলো এই ধরনের স্টীম ইয়ার্ডে শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্টদের অংশগ্রহনের মাধ্যমে বিষয়গুলো সমাধানের পথ খুঁজে পাওয়া যাবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ