আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জুন, ২০২১ ইং

এক টাকার জামার দোকান

 

প্রিন্স ঘোষ:

 

অসহায় মানুষের জন্য লকডাউনের শুরু থেকেই কাজ করে আসছে সাভারের একটি সামাজিক সংগঠন ‘ছবিঘর’। কিন্তু রমজান মাস উপলক্ষে এবার তারা শুরু করেছে ব্যতিক্রমী এক কার্যক্রম।
২৫ এপ্রিল থেকে শুরু হয়েছে রমজান মাস। এই উপলক্ষে সাভারে তারা স্থাপন করেছে ‘এক টাকার দোকান’ নামে একটি দোকানের। এই দোকান থেকে যে কেউ এক টাকার বিনিময়ে ছোলা, মুড়ি, বেসন, ময়দা, চিনিসহ অনেক পণ্য ক্রয় করতে পেরেছে পুরো রমজান মাস জুরে। সাভারের বাইরেও বরিশালের মঠবাড়িয়াতেও এই ভিন্নধর্মী কার্যক্রম চালু করেছে সংগঠনটি৷ কিন্তু ২৮ রমজান থেকে তারা শুরু করেছে “এক টাকার জামার দোকান” যেখানে অসহায় পায়ে চালিত রিকশাচালক ও তাদের পরিবারের জন্য ছিল ঈদের নতুন জামা।তদের এই দোকানে সব ধরনের পোশাকের দাম নির্ধারন করা হয় মাত্র এক টাকা। সাভারের বিভিন্ন এলাকায় সংগঠনের সেচ্ছাসেবীরা ভ্যানে করে নতুন জামা বিক্রি করেছে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে তারা সবাইকে জীবাণুনাশক দিয়ে জীবাণু মুক্ত করছে, তারপর সামাজিক দূরুত্ব বজায় রেখে তারা তাদের এই দোকানে ক্রেতাদের চাহিদা পূরণ করছে।
ছবিঘরের এক স্বেচ্ছাসেবী রাতুল ঘোষ তাদের এই কার্যক্রম সম্পর্কে বলেন, ‘আমাদের এই কার্যক্রম চালানোর উদ্দেশ্য যাতে অসহায় মানুষের মুখে এই দূর্যগের সময়েও হাসি ফোটাতে পারি।’
এক টাকা নেওয়ার কারণ সম্পর্কে স্বেচ্ছাসেবী প্রিয়ম ঘোষ বলেন, ‘সাধারণ মানুষ যাতে মনে না করে এটা তাদের ত্রাণ বা দান করা হচ্ছে, তাই আমরা নামমাত্র মূল্য হিসেবে এক টাকা নিচ্ছি।’
‘আমরা দোকান দিয়েছি আর মানুষ আমাদের দোকানে ক্রেতা হয়ে প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে আসছে, এতে লজ্জার কিছু নেই। আমি বিক্রেতা হিসেবে তাদের কাছে আমাদের পণ্য বিক্রি করছি’, বলেন তিনি।
অনেক ক্রেতাও এতে খুশি। অনেকেই বলছে এই কার্যক্রমের জন্য তারা হয়তো নিশ্চিন্তে কাটাতে পারবে পবিত্র এই রমজান মাস। তাই পুরো দেশে ধনীরা যদি এমন ব্যবস্থা করেন, তাহলে করোনাকালীন অসহায় একটু হলেও সহায় খুঁজে পাবেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ