আজ ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

আখাউড়ায় মুক্তিযোদ্ধা সন্তানকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগে মানববন্ধন 

 

 

মো সুজন হাজারী,

আখাউড়া প্রতিনিধি :

 রবিবার (১৭ মে) ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া উপজেলার মনিয়ন্দ ইউপির টনকি শিকারমোড়া গ্রামে একটি কবরস্থান মাঠে ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে তুচ্ছ বিষয়ে জামাত- শিবিরের কতিপয় সন্ত্রাসী কর্তৃক ব্যক্তিগত আক্রোশের শিকার হন ঢাকা কলেজের অনার্সের মেধাবী ছাত্র ও অত্র গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত ফজলুল হক ভূঁইয়ার ছেলে মারুফ ভূঁইয়া৷ সন্ত্রাসীরা তাকে শুধু হেনস্থা করে ক্ষান্ত হয়নি থানায় মিথ্যা মামলা করে বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়েছে৷
ঘটনায় প্রকাশ, গত ১৯ মার্চ কর্মমঠ ডিএনটি মাঠে ক্রিকেট খেলার বিষয়ে তর্কাতর্কির জেরে সন্ধ্যা ৭ টায় কর্মমঠ এলাকায় ঝগড়া হয়৷এ ঝগড়াকে কেন্দ্র করে পরের দিন কর্মমঠ বাজারে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়৷ এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৭ মার্চ শিকারমোড়া মসজিদের আশে পাশে আবার তাদের মধ্যে মৃদু সংঘর্ষ হয়৷ কিন্তু এ সামান্য বিষয়ে তারা পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে মারুফ ভূঁইয়ার দুজন লোককে মেরে আহত করে তারা ক্ষান্ত হয়নি পরবর্তীতে তাদের বাড়িঘর ভাংচুর করে৷ এতে স্থানীয় জামাত শিবিরের কুদ্দুস চৌধুরী ও লোকমান চৌধুরীর নেতৃত্বে মারামারি, হামলা ও পরবর্তীতে আখাউড়া থানায় মিথ্যা মামলা দায়ের করেন৷ পুলিশ তাদের কথায় প্রলুব্ধ হয়ে একদিন মারুফের বাড়িতে গিয়ে হয়রানি করে৷
মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, আখাউড়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন শফিক আলেয়া, মনিয়ন্দ ইউপির ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার হামদু মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক ভূঁইয়ার বড় ছেলে মামুন ভূঁইয়া, মনিয়ন্দ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, শাহিন মিয়া, সম্পাদক, রাজিব ভূঁইয়া, হ্রদয় চৌধুরী, রাব্বি ভূঁইয়াসহ এলাকার সচেতন জনগণ ৷ বক্তারা অবিলম্বে নিরীহ ও মেধাবী ছাত্র মারুফ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করার দাবি জানান, অন্যথায় আরও বৃহত কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে৷
জানতে চাইলে, ভোক্তভূগি মারুফ ভূঁইয়া বলেন, আমি ছাত্রলীগের রাজনীতি করি বিধায় আমাকে স্বাধীনতা বিরুধী জামাত শিবির চক্র সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিহিংসা মূলক হয়রানি ও মানহানি করার জন্য থানায় মামলা করে আমার বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়েছে, এ বিষয়ে মাননীয় আইনমন্ত্রী মহোদয়ের নিকট সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি ৷
মামলার বাদির কুদ্দুস চৌধুরীর চাচাত ভাই, হুমায়ূন চৌধুরী বলেন, আমার জানা মতে মারুফ ভালো ছেলে, আমাদের তার বিরুদ্ধে কোন ক্লেইম নেই৷ একটু ভুল বোঝাবুঝি সৃষ্টি হয়েছে পরে ঠিক হয়ে যাবে৷
মনিয়ন্দ ইউপির চেয়ারম্যান কামাল ভূঁইয়া বলেন, যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারুফকে জড়িত করা হয়েছে তখন সে আমার সাথে মন্ত্রী মহোদয়ের দেয়া ত্রাণ সামগ্রী বিতরণে উপস্থিত ছিল, সুতরাং তার এ ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত থাকার প্রশ্নই উঠে না৷

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ