আজ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই মে, ২০২১ ইং

করোনা কালে নৃসিংহ চতুর্দশী মহোৎসব

 

রনজিত কুমার পাল (বাবু)
নিজস্ব প্রতিবেদক:

আগামীকাল ৬ মে বুধবার ভগবান শ্রীনৃসিংহদেবের শুভ আবির্ভাব তিথি নৃসিংহ চতুর্দশী মহোৎসব।

মরনব্যাধী করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব এর কারণে মহাসংকট পরিস্থিতেতে সকল ভক্তবৃন্দ নিজ নিজ গৃহ মন্দিরে সংকট বিনাশক,বিগ্ন বিনাশক, বিপদ ভঞ্জক ভগবানের অভিষেক অনুষ্ঠান সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে পালন করবেন।

নৃসিংহ চতুর্দশীতে নির্জলা উপবাস করে গোধূলি লগ্নে মহাঅভিষেক করবেন। মহাঅভিষেক শেষে অসমর্থ ভক্ত অনুকল্প প্রসাদ গ্রহন করবেন। যাদের পক্ষে সম্ভব তারা পরের দিন সকালে উপবাস ভঙ্গ করবেন।
আজ ৫ মে মঙ্গলবার রাত ১২ ঘটিকার পূর্বে রাতের খাবার শেষ করবেন। রাত ১২ ঘটিকার পর পঞ্চ রবিশস্য গ্রহন করা উচিত নয়। কেউ অসুস্থ বা তৃষ্ণার্থ থাকলে ব্রহ্ম মুহূর্ত পর্যন্ত জল পান করতে পারবেন। যারা প্রসাদভোজী নয় তারা আজ ৫ মে মঙ্গলবার অবশ্যই নিরামিষ আহার করবেন।
সকল দীক্ষিত এবং আশ্রিত ভক্ত শুদ্ধ বস্ত্র পরিধান করে উত্তম উপায়ে ভগবানের অভিষেক অনুষ্ঠান করবেন। প্রভুরা ধুতি এবং উত্তরীয় পরিধান করবেন। মাতাজিদের জন্য শাড়ী সব থেকে উত্তম।
যারা প্রসাদভোজী নয় কিন্তু উপবাস করবেন তারা শুদ্ধতা বজায় রেখে নিজ নিজ গৃহে ভগবান শ্রীনৃসিংহদেবের চিত্রপটে দুধ, ঘী, মধু, জল, ফলের জুস (যদি সম্ভব হয়) অভিষেক করবেন।
সকল ভক্ত বেশি বেশি জপ করবেন। সম্ভব হলে বিশ্বশান্তির জন্য নৃসিংহদেবের চরনে ১০৮ জোড়া তুলসীপত্র নিবেদন করবেন।
যারা অসুস্থ এবং উপবাস করতে অসমর্থ তারা চেষ্টা করবেন পঞ্চ রবিশস্য বাদ দিয়ে একাদশীর মতো দিনটা কাটাতে ।।

ভগবান বিষ্ণু নৃসিংহ রুপে আবির্ভূত হয়েছিলেন কেন?

নৃসিংহের পূর্ববর্তী অবতার বরাহ হিরণ্যাক্ষ নামে এক রাক্ষসকে বধ করেন। হিরণ্যাক্ষের ভাই হিরণ্যকশিপু এই কারণে প্রবল বিষ্ণুবিদ্বেষী হয়ে ওঠেন। দাদার হত্যার প্রতিশোধ মানসে তিনি বিষ্ণুকে হত্যা করার পথ খুঁজতে থাকেন। তিনি মনে করেন, সৃষ্টিকর্তা ব্রহ্মা এই জাতীয় প্রবল ক্ষমতা প্রদানে সক্ষম। তিনি বহু বছর ব্রহ্মার কঠোর তপস্যা করেন। ব্রহ্মাও হিরণ্যকশিপুর তপস্যায় সন্তুষ্ট হন। তিনি হিরণ্যকশিপুর সম্মুখে উপস্থিত হয়ে তাঁকে বর দিতে চান। হিরণ্যকশিপু বলেন: হে প্রভু, হে শ্রেষ্ঠ বরদাতা, আপনি যদি আমাকে সত্যই বর দিতে চান, তবে এমন বর দিন যে বরে আপনার সৃষ্ট কোনো জীবের হস্তে আমার মৃত্যু ঘটবে না। আমাকে এমন বর দিন যে বরে আমার বাসস্থানের অন্দরে বা বাহিরে আমার মৃত্যু ঘটবে না; দিবসে বা রাত্রিতে, ভূমিতে বা আকাশে আমার মৃত্যু হবে না। আমাকে এমন বর দিন যে বরে শস্ত্রাঘাতে, মনুষ্য বা পশুর হাতে আমার মৃত্যু হবে না। আমাকে এমন বর দিন যে বরে কোনো জীবিত বা মৃত সত্তার হাতে আমার মৃত্যু হবে না; কোনো উপদেবতা, দৈত্য বা পাতালের মহানাগ আমাকে হত্যা করতে পারবে না; যুদ্ধক্ষেত্রে আপনাকে কেউই হত্যা করতে পারে না; তাই আপনার কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই। আমাকেও বর দিন যাতে আমারও কোনো প্রতিযোগী না থাকে। এমন বর দিন যাতে সকল জীবসত্তা ও প্রভুত্বকারী দেবতার উপর আমার একাধিপত্য স্থাপিত হয় এবং আমাকে সেই পদমর্যাদার উপযুক্ত সকল গৌরব প্রদান করুন। এছাড়া আমাকে তপস্যা ও যোগসাধনার প্রাপ্তব্য সকল সিদ্ধাই প্রদান করুন,যা কোনোদিনও আমাকে ত্যাগ করবে না। ‘ হিরণ্যকশিপু যখন মন্দার পর্বতে তপস্যা করছিলেন, তখন ইন্দ্র ও অন্যান্য দেবগণ তাঁর প্রাসাদ আক্রমণ করেন।দেবর্ষি নারদ হিরণ্যকশিপুর স্ত্রী কায়াদুকে রক্ষা করেন। দেবর্ষি দেবগণের নিকট কায়াদুকে ‘পাপহীনা’ বলে উল্লেখ করেছিলেন। নারদ কায়াদুকে নিজ আশ্রমে নিয়ে যান। সেখানে কায়াদু প্রহ্লাদ নামে একটি পুত্রসন্তানের জন্মদেন। নারদ প্রহ্লাদকে শিক্ষিত করে তোলেন। নারদের প্রভাবে প্রহ্লাদ হয়ে ওঠেন পরম বিষ্ণুভক্ত।এতে তাঁর পিতা হিরণ্যকশিপু অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হন। ক্রমে প্রহ্লাদের বিষ্ণুভক্তিতে হিরণ্যকশিপু এতটাই ক্ষুব্ধ ও বিরক্ত হন যে তিনি নিজ পুত্রকে হত্যা করার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু যতবারই তিনি বালক প্রহ্লাদকে বধ করতে যান, ততবারই বিষ্ণুর মায়াবলে প্রহ্লাদের প্রাণ রক্ষা পায়।হিরণ্যকশিপু প্রহ্লাদকে বলেন তাঁকে ত্রিভুবনের অধিপতি রূপে স্বীকার করে নিতে। প্রহ্লাদ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন একমাত্র বিষ্ণুই এই ব্রহ্মাণ্ডের সর্বোচ্চ প্রভু। ক্রুদ্ধ হিরণ্যকশিপু তখন একটি স্তম্ভ দেখিয়ে প্রহ্লাদকে জিজ্ঞাসা করেন যে ‘তার বিষ্ণু’ সেখানেও আছেন কিনা। প্রহ্লাদ উত্তর দিলেন, তিনি এই স্তম্ভে আছেন, এমনকি ক্ষুদ্রতম যষ্টিটিতেও আছেন। হিরণ্যকশিপু ক্রোধ সংবরণ করতে না পেরে গদার আঘাতে স্তম্ভটি ভেঙে ফেলেন। তখনই সেই ভগ্ন স্তম্ভ থেকে প্রহ্লাদের সাহায্যার্থে নৃসিংহের মূর্তিতে আবির্ভূত হন বিষ্ণু। ব্রহ্মার বর যাতে বিফল না হয়, অথচ হিরণ্যকশিপুকেও হত্যা করা যায়, সেই কারণেই বিষ্ণু নরসিংহের বেশ ধারণ করেন: হিরণ্যকশিপু দেবতা, মানব বা পশুর মধ্য নন, তাই নৃসিংহ পরিপূর্ণ দেবতা, মানব বা পশু নন; হিরণ্যকশিপুকে দিবসে বা রাত্রিতে বধ করা যাবে না, তাই নৃসিংহ দিন ও রাত্রির সন্ধিস্থল গোধূলি সময়ে তাঁকে বধ করেন; হিরণ্যকশিপু ভূমিতে বা আকাশে কোনো শস্ত্রাঘাতে বধ্য নন, তাই নৃসিংহ তাঁকে নিজ জঙ্ঘার উপর স্থাপন করে নখরাঘাতে হত্যা করেন; হিরণ্যকশিপু নিজ গৃহ বা গৃহের বাইরে বধ্য ছিলেন না, তাই নৃসিংহ তাঁকে বধ করেন তাঁরই গৃহদ্বারে। ভাগবত পুরাণ-এ আরও বলা হয়েছে: হিরণ্যকশিপুকে বধ করার পর সকল দেবতাই নৃসিংহদেবের ক্রোধ নিবারণে ব্যর্থ হন। নৃসিংহকে শান্ত করতে শিব প্রথমে বীরভদ্রকে প্রেরণ করেন। বীরভদ্র ব্যর্থ হল। বিফল হন স্বয়ং শিবও।(বীরভদ্র ব্যর্থ হলে শিব স্বয়ং মনুষ্য-সিংহ- পক্ষী রূপী শরভের রূপ ধারণ করেন। এই কাহিনির শেষভাগে বলা হয়েছে, শরভ কর্তৃক বদ্ধ হয়ে বিষ্ণু শিবের ভক্তে পরিণত হন। ) সকল দেবগণ তখন তাঁর পত্নী লক্ষ্মীকে ডাকেন; কিন্তু লক্ষ্মীও স্বামীর ক্রোধ নিবারণে অক্ষম হন। তখন ব্রহ্মার অনুরোধে প্রহ্লাদ এগিয়ে আসেন। ভক্ত প্রহ্লাদের স্তবগানে অবশেষে নৃসিংহদেব শান্ত হন। প্রত্যাবর্তনের পূর্বে নৃসিংহদেব প্রহ্লাদকে রাজা করে দেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ