আজ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

আশুলিয়া স্থায়ী হাটবাজারের বেহাল অবস্থা

 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

ঢাকার সাভারের আশুলিয়া ইউনিয়নে আশুলিয়া স্থায়ী হাটবাজার প্রতিষ্ঠার পর থেকে অবকাঠামোগত সহ অন্যান্য পদ্ধতিগত তেমন কোনো উন্নয়ন সাধন হয়নি। সরেজমিন বিষয়টি নিয়ে তথ্য সংগ্রহকালে বাজারে গেলে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের সাথে আলাপকালে বিষয়টি সামনে আসে।

এই প্রতিবেদক আশুলিয়া হাটবাজার গিয়ে সরেজমিন গিয়ে বাজারের স্থায়ী দোকানপাটগুলোর বেহাল অবস্থা দেখতে পান। স্থায়ী দোকানপাটগুলোর সংস্কার কাজ হয়নি দীর্ঘদিন ধরে। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে মূল বাজারটির মাছ ও কাচাবাঁজারটিকে আশুলিয়া স্কুল ও কলেজের মাঠে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। প্রসঙ্গত আরো উল্লেখ্য, বর্তমানে এই বাজারটি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান সম্রাট এর নিয়ন্ত্রণে তার ভাই ইজারাদার জসিমউদদীন পিন্টু চালাচ্ছেন।

সম্প্রতি স্থানান্তরিত মূল বাজারের মাছ বাজারটিও আশুলিয়া স্কুল ও কলেজের মাঠে অস্থায়ীভাবে সরিয়ে আনা হয়েছে গত ১৪ মার্চ, ২০২০ তারিখে। এই বাজারটি মূল বাজারের যেখানে ছিলো, সেখানে গেলে বাজারটির করুন হাল চোখে পড়ে। উপরের টিনের শেড অনেক জায়গায় নেই। দেয়ালগুলি জায়গায় জায়গায় ভেঙ্গে পড়ে আছে।

অন্যান্য দোকানগুলিও সেগুলো যেভাবে বর্তমানে থাকার কথা ছিলো, সেভাবে নেই। সংস্কারের অভাবে ধুঁকছে। পুরা বাজারে নেই একটা টয়লেট। বাজারের দোকানমালিক এবং স্থানীয়রা বিষয়টি নিয়ে জানান যে, টয়লেটের অভাবে তাদেরকে বাজারে অবস্থানকালে নিকটস্থ মসজিদে গিয়ে কাজ সারতে হয়।

এছাড়া, বাজারের বর্জ্য নিস্কাশনের নেই কোনো ব্যবস্থা। ফলে ‘সুয়ারেজ লাইনের’ অভাবে যত্রতত্র ময়লা ও নোংরা আবর্জনা বাজারের পরিবেশকে কলুষিত করে রেখেছে। বাজারে প্রবেশের জন্য নেই কোনো মানসম্মত প্রবেশপথ। এসব কিছু মিলিয়েই বাজারের বেহাল দশা দর্শণার্থীদের চোখে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয়।

এব্যাপারে, আশুলিয়া বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ভিডিও বক্তব্যে এই প্রতিবেদককে জানান, আমি বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হলেও এই বাজার পরিচালনা কমিটির কেউ নই। এই বাজার বহু বছর ধরে স্কুল কমিটি ডাক নেয় এবং নিয়মানুযায়ী আমাদের টাকাপয়সা যা দেবার আশুলিয়া স্কুল পরিচালনা কমিটির কাছে হস্তান্তর করি। এখন ওই কমিটি আমাদের বাজারের টাকা দিয়ে স্কুল চালালেও তারা আমাদের বাজারের উন্নয়ন করে নাই এতদিন।

আশুলিয়ার নতুন ইজারা নেয়া বাজারটির পরিচালনা কমিটির সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মোল্লা বাজারের বেহাল দশা সম্পর্কে জানান, গত ১৪ এপ্রিল থেকে এই বাজারটির ইজারা আমরা বুঝে নিয়েছি। আপনারা জানেন বর্তমানে আশুলিয়া স্কুল ও কলেজ মাঠে যে অস্থায়ী বাজারটি রয়েছে সেটা সহ এই মূল বাজারটিও আমরা পরিচালনা করছি। এই স্থায়ী বাজারের বর্তমান যে অবস্থা দেখছেন সেটা আগের ইজারাদারদের ব্যর্থতার কারণেই এ অবস্থায় রয়েছে। সেটা কেন হয়েছে তা আমরা বলতে পারবো না। এখানে বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও সেক্রেটারি রয়েছেন, তারা ভালো বলতে পারবেন। তবে আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান সম্রাট এর পক্ষ থেকে বর্তমান করোনার কারণে এখানে সকল ব্যবসায়ীদের খাজনা মওকুফ করে দিয়েছি।

তিনি আরও জানান, যেহেতু আমরা নতুন ইজারাদার, এলাকাবাসী ও এই বাজারের ব্যবসায়ী সমিতি পাশে থাকলে বাজারের অবকাঠামোগত জীর্ণদশা সহ সংস্কার কাজ করে একে আধুনিক ভাবে গড়ে তুলতে পারবো। আর সরকার ও প্রশাসন যদি এদিকে একটু সুদৃষ্টি দিয়ে আমাদের এই বাজার আধুনিকায়নে কিছু আর্থিক সহায়তা দেয়, তাহলে বর্তমান বাজারটিকে আমরা একটি মডেল বাজার হিসেবে গড়ে তুলতে পারবো।

আশুলিয়া হাটবাজারের বর্তমান ইজারাদার জসিমউদদীন পিন্টু মোল্লা বাজারটির বেহাল দশা সম্পর্কে জানতে চাইলে বলেন, আসলে হাট-বাজারের সামগ্রিক দায়িত্বে থাকে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে জেলা প্রশাসন। আমরা সরকারি বিধি মোতাবেক সম্প্রতি নিলামে ডাক নিয়ে গত ১৪ এপ্রিল এই বাজারের ইজারা লাভ করেছি। এরপর আপনারাও দেখেছেন, আশুলিয়া স্কুল ও কলেজ মাঠে স্থানান্তরিত অস্থায়ী বাজারটিকে আমরা দায়িত্ব নেবার পর অতি অল্প সময়ে কিভাবে একটি আদর্শিক বাজারে পরিণত করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু এই স্থায়ী বাজারটির বর্তমান বেহাল অবস্থা আপনারা গণমাধ্যম ও দেখছেন, আমরাও এভাবে পেয়েছি। এতে আমরাও মর্মাহত বাজারটির উন্নয়নহীনতায়। আমি সাইদুর রহমান সম্রাটের পক্ষ থেকে আপনাদের এবং এখানের সকল ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের নিশ্চয়তা দিতে চাই, বর্তমান অস্থায়ী বাজারটিকে যেমন আদর্শিক রুপে দেখেছেন, এই স্থায়ী বাজারটিকেও আমরা আমাদের সময়সীমার ভিতরে গড়ে তুলতে পারবো। তবে এর সাথে কিছু আর্থিক বিষয়াদি জড়িত রয়েছে বিধায় আমি আপনাদের দ্বারা উপজেলা ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করবো যেনো উনি আমাদেরকে আর্থিকভাবে সহায়তা প্রদান করলে ইনশা আল্লাহ আমরা এই বাজারটিকে একটি রোল মডেল হিসেবে গড়ে তুলবো।

তবে আগের ইজারদার কারও সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি বিধায় এব্যাপারে তাদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান সম্রাট এর নিয়ন্ত্রনাধীন এই বাজারের ব্যবসায়ীদের সকল ধরণের খাজনা করোনা পরিস্থিতির কারণে সাইদুর রহমান সম্রাট মওকুফ করে দিয়েছেন। পাশাপাশি আশুলিয়া স্কুল ও কলেজে সম্প্রতি স্থানান্তরিত অস্থায়ী বাজারটিকে একটি আদর্শিক বাজারে রুপ দিয়েছেন। তাঁর নেতৃত্বে ওখানে একটি ‘ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পেইন’ বসেছে। প্রতিদিন বাজারে আগতদের বিভিন্ন ধরণের স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের পাশাপাশি ও ক্যাম্প করোনা সম্পর্কীয় বিভিন্ন ধরণের সচেতনতামূলক কর্মকান্ড করে যাচ্ছেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ