আজ ৭ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

পটুয়াখালির দশমিনায় পল্লী বিদ্যুতের ঘন ঘন লোড শেডিং চরম বিপাকে মানুষ

 

মোঃ সাফায়েত

পটুয়াখালী জেলার দশমিনা উপজেলায় বিদ্যুৎ সরবরাহে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে লোডশেডিং। যার ফলে বিদ্যুৎ বিভ্রাটে এলাকাবাসী। অধিকাংশ সময়ে বিদ্যুৎ সরবারাহে বিভিন্ন প্রকার বাধার সম্মুখিন হয়ে প্রায়ই আসা-যাওয়ার লুকোচুরি খেলা চলছে এই আসে আবার এই যায়। আর এ আসা যাওয়ার কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন গ্রাহকরা।

বর্তমান সময়ে মহামারি করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে লকডাউন দেশে দীর্ঘদীন যাবৎ মানুষ ঘরবন্দী। তাই সমগ্র দেশের ন্যায় দশমিনা উপজেলার মানুষও আজ ঘরবন্দী। প্রচণ্ড গরমে ঘরবন্দী মানুষগুলো বিদ্যুৎ বিভ্রাটে এখন অতিষ্ট প্রায়। উপজেলায় বিদ্যুতের এ লুকোচুরি থেকে নিস্কৃতি চায় গ্রাহকরা। এ বিষয় উপজেলা সদরের বাসিন্দা সাইদুল বলেন, করোনার প্রভাবে উপজেলার সকল মিল কারখানা দোকান পাট বন্ধ থাকায় খুব কম বিদ্যুৎ ব্যাবহৃত হচ্ছে তারপরেও উপজেলায় বিদ্যুতের এ ঘাটতি কেন- তা সহজে বোধগম্য নয় । এছাড়াও উপজেলার একাধিক ব্যাক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় প্রতিদিন প্রতিনিয়ত সকাল হলেই বিদুৎ চলে যায়। একবার চলে গেলে ঘন্টার পর ঘন্টা আর তার দেখা মেলেনা। অনেক সময় বিদ্যুৎ চলে যাবার পর তা ফিরে আসলেও দুই তিন মিনিটের মধ্যেই ভেলকী খেলার মত চলে যায়। বড়গোপালদী গ্রামের মোস্তাফিজ জানান, এখানে সকাল থেকেই লোডশেডিং শুরু হয়ে প্রায় দিনব্যাপী লোডশেডিংয়ের মাধ্যমে লুকোচুরি খেলা চলতে থাকে। আর বিদ্যুতের এ লুকোচুরি খেলার কারনে (অধিক সময় বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার ফলে) বৈদ্যুতিক বাতি সহ নষ্ট হচ্ছে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি। শুধু তাই নয় পুজাখোলা গ্রামের স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্রছাত্রীর অভিভাবকদের পক্ষে ওয়াজেদ আলী লিটন বলেন, আমার মেয়ে এবার আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষার্থী করোনায় স্কুল বন্ধ, বাসায় বসে লেখাপড়া করে, কিন্তু বিদুৎ এর এই লোডশেডিংয়ের ফলে তাদের পড়াশুনায় বিগ্ন ঘটছে। আমরা সকল অভিভাবকেরা ছেলে-মেয়েদের পড়ালেখা নিয়ে দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছি। একটু বৃষ্টি হইলে বিদ্যুৎ হাওয়া ৮ থেকে ১০ ঘন্টার মধ্যে আর বিদ্যুৎ ফিরে পাওয়া যায় না। পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে যোগাযোগ করে বিদ্যুথ বিভ্রাট সমস্যা সমাধান হচ্ছে না। অফিসে ফোন করলেই বলে লাইনে সমস্যা গাছ পালায় লাইনে ক্ষতি করেছে অথচ কিছু দিন আগে দুই বারে টানা ২০ দিন বিদ্যুৎ বন্ধ রেখে লাইনের সংস্কার করেছিল পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে উপজেলা পল্লী বিদ্যুতের এজিএম স্বপন কুমার পালের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, একটি ফিডারের আওতায় বাউফলের গোসিংগা, হাজির হাট, দশমিনা,আরজবেগী, গছানী লাইন চলে। তাই কোণ ধরনের ক্রটি দেখা দিলে মেরামত করতে একটু সময় লাগে। তবে আশার কথা হচ্ছে দশমিনায় ৩৩ কেঃবিঃ লাইন নির্মান হয়েছে ১১ কেঃবিঃ লাইনে খুটি বসানোর কাজ শেষ পর্যায়ে, সাব ষ্টেশনের কাজ চলমান, করোনার কারনে নির্মান কাজ একটু ধীরগতিতে চলছে। করোনা বিপর্যয় কেটে গেলে আমরা জুন মাস থেকে শতভাগ বিদ্যুতায়নের সুবিধা সহ নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবারহ করতে পারব।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ