আজ ২৬শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই জুন, ২০২১ ইং

বরিশালে কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা

 

খান ইমরান

বাউফলের কালিশুরী ইউনিয়নের সিবপুর গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রেদোয়ান (১৯) নামের এক কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। কুপিয়ে জখম করা হয়েছে তার অপর দুই ছোট ভাই আবদুল্লাহ (১৬) ও ফয়সালকে (৮)। শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে। নিহত রেদোয়ানের বাবার নাম নুরুল হক সিকদার। জানা গেছে, গত ৯ এপ্রিল (শব-ই-বরাতের দিন) কাঁথা ও কম্বল রোদে দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশী আলম খানের স্ত্রী সাহিদা বেগমের সাথে নিহত রেদোয়ানের ভাবি রেশমা বেগমের ঝগড়াঝাটি হয়। রেশমা বেগম অভিযোগ করেন, ওই ঘটনার জের ধরে ঘটনার দিন রাত আড়াইটার দিকে সাহিদা (৪০) বেগম ও তার ছেলে ইমরান (১৬) তাদের নির্মাণাধিন ঘরে প্রবেশ করে তার ঘুমন্ত তিন দেবর রেদোয়ান, আবদুল্লাহ ও ফয়সালকে এলাপাতাড়ি ভাবে কুপিয়ে জখম করে। এসময় বাইর থেকে তার রুমে দরজার রশি দিয়ে বাধা ছিল। রুমের ভিতর থেকে তিনি কেবল ডাক চিৎকারের শব্দ শুনতে পাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে তার ছোট দেবর ফয়সাল এসে দরজার খুলে দিলে তাকে রক্তাক্ত অবস্থা দেখতে পান এবং অন্য রুমে গিয়ে তার অপর দুই দেবরকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর তার ডাকচিৎকারের বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসেন। এ ঘটনার সময় রেদোয়ানের মা মমতাজ বেগম ও বড় ভাই দ্বিনার সিকদার বাড়ি ছিলেননা। ওই সময় তারা ঢাকা াবস্থান করছিলেন। নিহত রেদোয়ান কালিশুরী ডিগ্রী কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র ছিল। এ ছাড়াও তার অপর দুই ভাই আবদুল্লাহ কালিশুরী এসএ ইনিস্টিটিউটের নবম শ্রেণীতে এবং ফয়সাল স্থানীয় একটি হাফেজি মাদ্রাসা পড়াশুনা করছেন। বাউফল থানার পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আজ রবিবার সকাল ৯টার দিকে কালিশুরী কুমারখালী বাজারের কাছ থেকে সাহিদা বেগমকে (৪০) গ্রেফতার করেছে। তার ছেলে ইমরান পলাতক রয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ