আজ ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৬ই মে, ২০২১ ইং

সময় কাটছে ঘুড়ি উড়িয়ে

 

 

আশুলিয়া প্রতিনিধি মোঃ সেনাম উল তাহমিদ

বিশ্ব হোম কোয়ারেন্টিনে । পুরো সময়টা কাটছে অবসরে । সকলেই বলতে গেলে খুবই বিরক্ত এই এক ঘেয়ে জীবনে । তাই খানিকাটা আনন্দ পেতে এবং সময় কাটাতে অনেকেই ঘুড়ি উড়াচ্ছেন । বিকেলে আশুলিয়ার আকাশটায় যেন শতাধিক রঙের ঘুড়ির সমাবেশ সকলেই তাদের বাসার ছাদে উঠে উড়াচ্ছেন ঘুড়ি । আকাশটা দেখে মনে হয় ফিরে গিয়েছি সেই আগের বাংলায় । আসুন জেনে নিই ঘুড়ি সম্পর্কে ।
ঘুড়ি একপ্রকারের হাল্কা খেলনা, যা সুতা টেনে আকাশে ওড়ানো হয়। পাতলা কাগজের সাথে চিকন কঞ্চি লাগিয়ে সাধারণত ঘুড়ি তৈরি করা হয়। এছাড়াও বিভিন্ন ধরনের এবং বিভিন্ন উপাদান ও নকশার ঘুড়ি রয়েছে। বিশ্বজুড়েই ঘুড়ি ওড়ানো একটি মজার খেলা। এছাড়াও বহু দেশে ঘুড়ি ওড়ানোর উৎসব ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, আফগানিস্তান প্রভৃতি দেশে ঘুড়ি ওড়ানো একটি বিনোদনমূলক অবসর বিনোদন। বাংলাদেশে, বিশেষ করে পুরনো ঢাকায় পৌষ মাসের শেষ দিন, অর্থাৎ পৌষ সংক্রান্তিতে ঘুড়ি ওড়ানো উৎসব পালন করা হয়। ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বিশ্বকর্মা পূজার দিন ঘুড়ি ওড়ানোর প্রথা রয়েছে ।ধারনা করা হয় যে, প্রায় ২,৮০০ বছর পূর্বে চীন দেশে ঘুড়ির সর্বপ্রথম ঘুড়ির উৎপত্তি ঘটেছে। পরবর্তীকালে এটি এশিয়ার অন্যান্য দেশ – বাংলাদেশ, ভারত, জাপান এবং কোরিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও, ইউরোপে ঘুড়ি খেলাটির প্রচলন ঘটে প্রায় ১,৬০০ বছর পূর্বে। প্রথমদিকে ঘুড়ি কাগজ অথবা হাল্কা তন্তুজাতীয় সিল্কের কাপড় দিয়ে উড়ানো হতো। ব্যবহৃত অন্যান্য উপাদানের অংশ হিসেবে ঘুড়িতে বাঁশের কঞ্চি কিংবা অন্যান্য শক্ত অথচ নমনীয় কাঠ দিয়ে তৈরী করা হয়। এছাড়াও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে সুতা কিংবা পাতলা দড়ি ব্যবহৃত হয়।আধুনিককালের ঘুড়িগুলোয় সিনথেটিকজাতীয় পদার্থের প্রচলন রয়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ঘুড়ি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রচলিত। কোনটি আকারে খুব বড় ও দেখতে নয়ন মনোহর। আবার কোনটি আকারে খুবই ছোট যা দ্রুত উড়তে কিংবা প্রতিযোগিতায় ব্যবহৃত হয়ে থাকে।২০১১ সালে অনুষ্ঠিত ব্রিষ্টল ঘুড়ি উৎসব শেষে সবচেয়ে বড় ঘুড়িটি প্রায় ২০ মিনিট আকাশে অবস্থান করে। এটি ভূমির প্রায় ১০,৯৭১ বর্গফুট জায়গা দখল করেছিল ।

শুধু আশুলিয়া নয় সারা দেশের বিভিন্ন জায়াগার আকাশে আজকে ঘুড়ির সমাবেশ । সকলেই করোনার বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছে বাড়িতে থেকে । সকলের একটাই আসা পুরো বিশ্ব একদিন সুস্থ হয়ে উঠবে । সকলে অন্তত ঈদ এর নামাজটা একসাথে পড়বে । আনন্দ করবে আগেরই মত ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ