আজ ২৭শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই মে, ২০২১ ইং

রাজশাহীর বাগমারার সুখেন কুমার হত্যা কান্ডের মূল রহস্য উদঘাটন

মোহাম্মদ ইসহাক  

রাজশাহীর বাগমারা থানাধীন নয় নম্বর শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের ধামীন কামনগরের এক আমবাগানের মধ্যে এক আমগাছের নীচে গলায় লাইলনের রশি পেঁচানো অবস্থায় শ্রী সুখেন কুমার সরকার, পিতা : মৃত গোবিন্দচন্দ্র সরকার , সাং ধামিন কামনগর, থানা: বাগমারা, রাজশাহী নামক এক ব্যক্তির মরদেহ পাওয়া যায়। এ বিষয়ে মৃত ব্যক্তির ভাই বাগমারা থানায় হত্যা সংক্রান্ত নিয়মিত মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে রাজশাহী জেলাপুলিশ সুপার জনাব মো: শহিদুল্লাহ বিপিএম, পিপিএম এর দিকনির্দেশনায় তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেন বাগমারা থানা পুলিশ। তদন্তের এক পর্যায়ে গোপন সূত্রে রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) জনাব সুমন দেবের নেতৃত্বে পুলিশ হত্যাকান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত মোসা: তাহমিনা বেগম(৩৮), পিতা: মো: আনসার আলী, স্বামী : মো: আব্দুস সাত্তার, গ্রাম: ধামিন কামনগর, থানা: বাগমারা, রাজশাহীকে গ্রেফতার করেন। উক্ত নারী হত্যাকান্ডের বিষয়ে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন। মূলত অবৈধ সম্পর্ক অর্থাৎ পরকীয়া ও টাকার লোভে এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে।

তাহমিনা দুই বছর ধরে সুখেনের বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করে আসছে। এ সময় তাদের মধ্যে অবৈধ সম্পর্ক ছিল বলে জানা যায়। এছাড়া তাহমিনা পল্লব নামক আরো এক ব্যক্তির বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করত এবং তার সাথেও এক পর্যায়ে তাহমিনার অবৈধ সম্পর্ক গড়ে উঠে। আর এ বিষয়টি নিয়ে সুখেন ও পল্লবের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এছাড়া সুখেন পল্লবের কাছে পঞ্চাশ হাজার টাকা পেত যা পল্লব দিচ্ছিল না। পল্লব রাতের বেলায় এক আমবাগানে সুখেনকে ডেকে নিয়ে আসার জন্য তাহমিনাকে পাচ হাজার টাকা দেয় এবং কৌশলে রাতের বেলায় তাহমিনাকে দিয়ে সুখেনকে আমবাগানে ডেকে নিয়ে আসে। সুখেন আমবাগানে আসলে সুখেন ও পল্লবের মধ্যে তর্কবিতর্ক শুরু হয় এবং একপর্যায়ে পরিকল্পিতভাবে পল্লব ও তাহমিনা সুখেনের গলায় লাইলনের রশি পেঁচিয়ে সুখেনকে হত্যা করে লাশ আমগাছের নীচে ফেলে রেখে নিজ নিজ বাড়ি চলে যায়। তাহমিনাকে বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ