আজ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ ইং

অসহায় কর্মহীন চা বিক্রেতার আকুতি

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

দোকান ২৫ দিন ধরে বন্ধ। যে টাকা ছিলো বাজার করে খেতে খেতে সেই টাকাও শেষে প্রায়। এখন খবার না পেয়ে ঘরে পরে মরে থাকার অবস্থা। আমার আসে পাশে অনেক মানুষ স্থানীয় নেতাদের কাছে সাহায্য পেলো, আমরা কিছুই পেলাম না।’

‘অনেক দিন থেকে আশুলিয়া বাস স্ট্যান্ডে চায়ের দোকান করি করোনার কারণে দোকান বন্ধে করে দেওয়া হয়েছে। ঘরে চাইল নাই, কোনো বাজার নাই, চুলা জ্বালানোর গ্যাসও শেষ হয়ে গেছে। এই মুহুর্তে লজ্জায় কারো কাছে কিছু চাইতেও পারি না, আবার ঘরে ছেলে-মেয়েদের না খাওয়া মুখের দিকে তাকিয়ে সইতেও পারি না।’

একটি চায়ের ফ্লাক্স ও কিছু ওয়ানটাইম চায়ের কাপ নিয়ে মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে সাভারের আশুলিয়া বাস স্ট্যান্ডে তার বন্ধ দোকানের পাশে চা বিক্রির জন্য দারিয়ে ছিলেন মধ্য বয়সী মিরাজ হোসেন।

তার কাছে গিয়ে দারাতেই চোঁখের পানিতে জ্বল জ্বল অবস্থায় মুখে আকাশ পরিমান অসহায়ের ছাপ রেখে এই প্রতিবেদককে তিনি এসব কথা বলেছেন।

খুলনা থেকে প্রায় ২০ বছর আগে ঢাকায় চলে আসা চায়ের দোকানী মিরাজ হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, আমি প্রায় ২০ বছর যাবৎ এখানে চায়ের দোকান করি। কখনো এমন সমস্যাই পরি নাই। দোকানের রোজগারে সন্তান, মা-বাবাকে নিয়ে ভালোই চলছিলাম হটাৎ করোনার কারণে সব শেষ হয়ে গেলো। ২৫ দিন যাবৎ দোকান বন্ধ রয়েছে এই ২৫ দিন ঘর থেকে বের হয়নি। এখন ঘরে খাবার নাই সন্তান, মা-বাবাকে কি খাওয়াবো তাই বাধ্য হয়েই আজ চায়ের ফ্লাস নিয়ে বের হয়েছি৷

তিনি আরও বলেন, গরির, অসহায় মানুষকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার দিয়ে সাহায্য করছে স্থানীর নেতারা। তাদের কাছে ঘরে খাবার নেই বললে নেতারা আরও হাসি ঠাট্টা করে। তারা বলে, চোখে তেল দিয়ে কান্নাকাটি করো? তোমার ব্যবসা আছে, দোকান আছে। তোমার ঘরে খাবার নেই কিভাবে?। দোকান চালাতে পারি না। দোকান খোলা থাকলে তো আর তাদের কাছে লজ্জা ফেলে চাইতাম না। বর্তমানে আমরা এখন কি করবো, কি খাবো৷

মিরাজ হোসেনের আশে পাশে থাকা আরও চায়ের দোকানী আকরাম, রফিকুল, আসরাফের একই অবস্থা। চায়ের দোকান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কেউ টেবিল বসিয়ে মাস্ক বিক্রি করছেন৷ কেউবা আবার পানের থলে ঘাড়ে নিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন। তাদেরও ঘরের এই অবস্থা। দেকান বন্ধ তাই রোজগার বন্ধ। জীবন বাঁচাতে বাধ্য হয়ে আজ রাস্তায় রাস্তায় এভাবে ঘুরছেন তারা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ