আজ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ইং

সরাইলে স্ত্রী কম শিক্ষিত হওয়ায় তালাক দিলেন শিক্ষক

 

সরাইল প্রতিনিধি ( ব্রাহ্মণবাড়িয়া) :

স্বামী বেচারা মাস্টার্স পাশ, আর স্ত্রী প্রাইমারি স্কুল পাশের পর মাদ্রাসা পর্যন্ত পড়ালেখা করেছেন বলে এক যুবক তার স্ত্রীকে বিয়ের ১৪ দিনেই তিন তালাক দিয়েছেন। অথচ বিয়েতে ৫০ হাজার টাকা ও সোনার আংটি যৌতুকও নেওয়া হয়েছিল। ৬০ হাজার টাকায় গরু কিনে বরযাত্রী ও দাওয়াতি লোকদের মেহমানদারিও করা হয় কনের দরিদ্র পরিবারের পক্ষ থেকে। হাতের মেহেদি’র রং মুছার আগেই তালাকপ্রাপ্তা হয়ে ওই মেয়ে এখন মানবেতর জীবনযাপন করছেন। এই ঘটনা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা সদরের সৈয়দটুলা গ্রামের মীরপাড়া এলাকার।

ভুক্তভোগী পরিবার ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সদরের সৈয়দটুলা মীরপাড়ার মাহফুজ মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম প্রথমে মেয়েটির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। পরে বিয়ের প্রলোভনে মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন এবং ধরা পড়ে সামাজিক চাপে গত ৩ জানুয়ারি এই মেয়েকে বিয়ে করেন। বিয়েতে মেয়ের দরিদ্র পরিবারের কাছ থেকে নগদ ৫০ হাজার টাকা ও সোনার আংটি যৌতুকও নেন রফিকুল ইসলাম। এতোকিছুর পরেও ১৬ জানুয়ারি মেয়েটিকে তিন তালাক দেন তিনি। রফিকুল ইসলাম সদরের বেসরকারি ‘আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল’ এ সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকুরি করেন।

ভুক্তভোগী সেই মেয়েটি জানান, রফিকুল ইসলামের সঙ্গে প্রথমে আমার দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিয়ের প্রলোভনে আমার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক গড়েন।পরে সামাজিক চাপে আমাকে বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু আমার পড়ালেখা কম, তিনি উচ্চ শিক্ষিত, করেন শিক্ষকতা, এসবে সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্ন হওয়ার আশঙ্কায় বিয়ের ১৪ দিনেই তিনি আমাকে তালাক দেন। মেয়েটির আক্ষেপ, তিনি (রফিক) উচ্চ শিক্ষিত হয়েও কেন এসব আগে ভাবলেন না? আমার সর্বনাশ করার পর তাঁর উচ্চ শিক্ষার অহংকার জেগেছে। আমি বাবা হারা এতিম দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। জানি, এই দুনিয়াতে আমি এ অন্যায়ের বিচার পাবো না, তাই আল্লাহর দরবারে এই বিচার চেয়ে বসে আছি। আমার বুকফাটা অভিশাপ সারাজীবন তাঁর (রফিক) ওপর থাকবে।

মেয়েটির বিধবা মা জানান, এই রফিকদের বসত বাড়ির জায়গা রক্ষা করতে গিয়ে গ্রামের ঝগড়ায় টেটা বিদ্ধ হয়ে আমার স্বামী মারা গেছেন, সন্তানেরা হয়েছে পিতৃহারা। সে (রফিক) জেনেশুনে আমার মেয়ের জীবনটা ধ্বংস করে দিয়েছে। সে শিক্ষক নামে কলংক। এই চরিত্রের শিক্ষকের কাছ থেকে ছাত্র-ছাত্রীরা ভালো কিছু শিখবে না। আমি এই লম্পটের দৃষ্টান্ত বিচার দাবি করছি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে, আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের শিক্ষক রফিকুল ইসলাম জানান, আমি মাস্টার্স কমপ্লিট করা একজন মানুষ। সেই অশিক্ষিত মেয়েকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে সমাজে চলা আমার পক্ষে সম্ভব নয়, তাই তাকে তিন তালাক দিয়েছি। যৌতুকের নগদ টাকা, আংটি ও দেনমোহর বাবদ সালিশের মাধ্যমে নগদ ৪ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ওই মেয়ের পরিবারকে দিয়েছি। ওই মেয়ের সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্কই ছিল না। সমাজের চাপে আমাকে সেদিন এ বিয়ে করতে হয়েছিল।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ