আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

চাঁদপুরে গৃহবধুর গলায় ফাঁস দেয়ার ঘটনা নিয়ে জনসাধারণের মাঝে তোলপাড়

 

ইব্রাহীম খলীল সবুজ – চাঁদপুর প্রতিনিধিঃ

চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জে আয়েশা বেগম(২০) নামে তিনমাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা ঘটনা নিয়ে জনসাধারণের মাঝে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। বুধবার রাতে ফরিদগঞ্জ উপজেলার পাইকপাড় দক্ষিণ ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।
সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষনিক থানা পুলিশ বুধবার রাতে লাশ উদ্ধার করে বৃহস্পতিবার সকালে পোষ্টমর্টেমের জন্য চাঁদপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।
এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হলেও ওই গৃহবধূর পিতা জামাতা জসিম উদ্দিনসহ ৪ জনকে আসামী করে লিখিত অভিযোগ করেছে।

জানা গেছে, পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের ইছাপুরা গ্রামের জসিম উদ্দিনের সাথে পাশ্ববর্তী ইউনিয়ন পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নের বিষেরবন্দ গ্রামের আঃ রাজ্জাক পাটওয়ারীর ছোট মেয়ে আয়েশা বেগমের সাথে ৬ মাস পুর্বে ২০১৯ সালের ৩১ অক্টোবর বিয়ে হয়।
বর্তমানে আয়েশা তিন মাসের অন্ত:স্বত্তা ছিল।

আয়েশার পিতা আঃ রাজ্জাক জানান, বিয়ের সময় তার স্বামীকে স্বর্ণালংকার ছাড়াও নগদ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করি। কিন্তু, সেই টাকার পর আবারো সে ৫০ হাজার টাকা দাবী করে এবং তার মেয়েকে মানসিক নির্যাতন করে। তিনি মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে ৫০ হাজার দেয়ার কিছুদিন পর আবারো জসিম টাকা দাবী করে। তিনি বলেন, তারা আমার মেয়েকে শারিরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করে। বুধবার রাতে সেই বাড়ি থেকে মোবাইল ফোনে আমার মেয়ে আয়েশা গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে জানানো হয়।
যা আমার কাছে বিশ্বাস যোগ্য নয়। কোন কারণ ছাড়া সে কেন আত্মহনন করবে।

আয়েশার বোন রুনা জানান, তার ছোট বোন আয়েশা নামাজী এবং আত্মহননকে ভয় পায়। তাছাড়া সে অন্ত:স্বত্তা। এই অবস্থায় তাকে মেরে ঝুলিয়ে দেয়া বা আত্মহত্যা করতে বাধ্য করা ছাড়া আর কোন কারণ থাকতে পারে না।

এ ব্যাপারে আয়েশার স্বামী স্কীম ম্যানেজার জসিম উদ্দিন জানান, ‘ বুধবার সন্ধ্যায় স্বামী-স্ত্রী উভয়ই একত্রে মাগরিবের নামাজ পড়ার পর নাস্তা করেন। পরে সে কৃষি জমিতে পানি দিয়ে কাজ শেষ করে রাত ৯টায় বাড়ি ফিরে, ঘরের দরজায় এসে আয়েশা, আয়েশা, বলি ডাকি, দরজা খুলছে না বলে দরজা ধাক্কা দেই। তারপরও দরজা খুলছে না বলে আমি অনেকক্ষণ অপেক্ষা করে দরজায় লাথি মেরে দেখি, আমার স্ত্রী আয়েশা ঘরের আড়ার সাথে ঝুলে আছে।
আমি চিৎকার দিয়ে উঠি, এই সময় আমার মা সহ বাড়ির অন্য লোকজন এসে ঘর থেকে দাঁ দিয়ে ফাঁসির ওড়না কেটে দেয়’।

এ ব্যাপারে লাশ উদ্ধারকারী ফরিদগঞ্জ থানার এসআই জালাল জানান, সংবাদ পেয়ে লাশ উদ্ধারে করে পোষ্ট মর্টেমের জন্য চাঁদপুর প্রেরণ করেছি। অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। এছাড়া আয়েশার বাবা একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। ময়না তদন্তের রির্পোট আসলে প্রকৃত সত্য জানা যাবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ