আজ ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ধামরাইয়ের এমপি নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে

রনজিত কুমার পাল (বাবু) ধামরাই প্রতিনিধি :

 

 

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ধামরাইয়ের এমপি জনগণের সুরক্ষায় নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে
বলে সকলের জ্ঞাতার্থে ধামরাইবাসিদের উদ্দেশ্য তা তুলে ধরলেন ধামরাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোঃ সিরাজ উদ্দিন।
প্রিয় ধামরাই বাসি, আসসালামু আলাইকুম,

বর্তমান বিশ্বের এক নম্বর সমস্যা নভেল করোনাভাইরাস Covid -19. এ-ই করোনা আতঙ্কে সারা পৃথিবীর ন্যায় আমার প্রিয় ধামরাই বাসি আপনারাও আতঙ্কগ্রস্ত দিন কাটাচ্ছেন এটাই স্বাভাবিক।

বৈশ্বিক এই সমস্যাটি নিয়ে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা যথাসময়ে দক্ষতার সাথে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে জাতিকে দিক-নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন,
তারই ধারাবাহিকতায় ধামরাইয়ের গণমানুষের নেতা আমাদের অভিভাবক মাননীয় জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব বেনজির আহমদ তার প্রিয় ধামরাই বাসীর জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন।
উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ, উপজেলা পরিষদসহ মাননীয় মেয়র মহোদয়, কাউন্সিলর বৃন্দ, সকল ইউনিয়নের সম্মানিত চেয়ারম্যান বৃন্দ, ইউনিয়ন পর্যায়ে আমাদের সকল রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ দিকনির্দেশনা ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশে প্রথম করোনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয় মার্চ মাসের ৮ তারিখে, আপনারা অনেকেই হয়তো জানেন না মার্চ মাসের ১২ তারিখেই শ্রদ্ধেয় নেতা রোয়াইল ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের কৃষ্ণনগর গ্রামে দীর্ঘসময় অব্যবহৃত ২০ শয্যা বিশিষ্ট একটি হাসপাতাল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে প্রস্তুত রাখার নির্দেশ দেন, আজ জরুরি প্রয়োজনে ঐ হাসপাতালটি ব্যবহার করা যাবে, যা ছিল বেনজির আহমদ এর একটি দূরদর্শী সিদ্ধান্ত।

প্রিয় ধামরাই বাসিকে এ-ই মহামারি করোনা ভাইরাস থেকে নিরাপদ রাখার জন্য শুরুতেই আলহাজ্ব বেনজির আহমদ সারা ধামরাইতে নেতা কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছিলেন জনগণের পাশে দাঁড়ানোর জন্য।

ইতিমধ্যেই আপনারা লক্ষ্য করেছেন আমাদের বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন নেতা-কর্মী এবং সমাজের বিত্তবান অনেকেই যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

বিশেষভাবে উল্লেখিত আমাদের ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ ও যুব সমাজের অনেকেই শুরু থেকে জনসাধারণকে নভেল করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলেন, এলাকায় এলাকায় মাইকিং করা জনসচেতনতা মূলক লিফলেট বিতরণ সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা, বিভিন্ন প্রকার হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা সহ হাট বাজার, মসজিদ ও রাস্তাঘাটে জীবাণুনাশক ঔষধ ছিটানো এবং নিম্নআয়ের মানুষের ঘরে ঘরে প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য পৌঁছে দিয়ে মানবতার এক নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

জাতীয়ভাবে দেশ আজ লকডাউন থাকার কারণে যেই শ্রমজীবী মানুষ কাজ হারিয়েছেন সেই প্রান্তিক জনসাধারণের কথা চিন্তা করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় আমাদের প্রিয় নেতা আলহাজ্ব বেনজির আহমদ স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে সরকারিভাবে ত্রান সামগ্রী বিতরন কর্মসূচী শুরু করেছেন।

ইতি মধ্যেই প্রিয় নেতা ব্যক্তিগতভাবেও ৫০০০ প্রান্তিক জনগণের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন।যতদিন পর্যন্ত দেশ লক ডাউন থাকবে ততদিন পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলমান থাকবে।

বেনজির আহমদ মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ এবং মাতৃভূমি স্বাধীন করার পর থেকে নিরলসভাবে ধামরাইয়ের জনগণের পাশে আছেন সেটা ক্ষমতায় থাক বা না থাক।

নতুন প্রজন্মের অনেকেরই জানার কথা নয় ১৯৯৬ সালে বালিয়া ইউনিয়নে অত্যন্ত দারিদ্র্যপীড়িত এলাকা রামরাবন গ্রামে কলেরা মহামারী আকার ধারণ করেছিল, সেদিন সেই কলেরা পিরিত জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন আলহাজ্ব বেনজির আহমদ। ১৯৮৮ সালের বন্যা কবলিত মানুষের পাশে ছিলেন ত্রান নিয়ে, ১৯৯৮ সালে আবারও বন্যায় দীর্ঘদিন পানিবন্দি বিপদগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন বেনজির আহমদ।

সুখে-দুখে দুর্দিনে দীর্ঘ ৫৫ টি বছর থেকে ধামরাই বাসি যাকে এক পরিক্ষীত, বিশ্বস্ত বন্ধু হিসেবে কাছে পেয়েছে তিনি আলহাজ্ব বেনজির আহমদ।

এই প্রচার বিমুখ মানুষটি বর্তমানে ফেসবুকের যুগে সেলফি রাজনীতিতে একেবারেই অভ্যস্ত নন। যিনি নিভৃতে সেবা দিতে স্বচ্ছন্দবোধ করেন সেই মানুষটিকে নিয়ে যারা ফেসবুকে রাজনীতি করতে গিয়ে মনগড়া লিখা লিখেন তাদের উদ্দেশ্যে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি দয়া করে বেনজীর আহমেদকে আরও জানুন, বুঝুন, তারপর কিছু লিখুন। আমি হলফ করে বলছি আপনি অবশ্যই তখন লিখবেন জাতির পিতার স্নেহধন্য বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ধারক বাহক সত্যিকারের সোনার বাংলা গড়ার এক সৈনিক, জননেত্রী শেখ হাসিনার ভ্যানগার্ড, দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য ঠিকানার নাম অবশ্যই বেনজির আহমদ।

সবশেষে বলবো এই দুঃসময়ে দুর্দিনে করোনা ভাইরাসের এই মহামারী থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে মহান আল্লাহর প্রতি ভরসা রেখে রাজনীতির ঊর্ধ্বে দল-মত জাতি-ধর্ম সবকিছুর ঊর্ধ্বে উঠে করোনার বিরুদ্ধে লড়তে হবে। মানবতার পাশেই দাঁড়াতে হবে, এটাই হোক আমাদের সকলের সিদ্ধান্ত।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ