আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২৪ ইং

ইউনিয়ন পর্যায়ে স্প্রে প্রয়োগে কমতে পারে ডেঙ্গু আক্রান্তের হার

কে এম নজরুল ইসলাম : 
যারা একটু সচেতন পরিবারের, তারা সন্ধ্যার আগেই বাসার দরজা-জানালা বন্ধ করে দেয়। তবুও পড়তে বসলে মশা কামড়াচ্ছে বলে একটু পরপর বাচ্চাদের অভিযোগ শুনতে হয় বাবা-মাকে। আবার মশারির ফাঁক দিয়ে ঢুকে পড়া মশা মারতে গিয়ে রাতের ঘুম নষ্ট হয় অনেকের। শুধু রাতে নয়, দিনেও মশার উৎপাতে জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে।
এরকম চিত্র ফরিদগঞ্জ উপজেলার সর্বত্রের। প্রতিবেদককে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন ফরিদগঞ্জের ৯নং গোবিন্দপুর উত্তর ইউনিয়নের চাঁদপুর গ্রামের গৃহিণী শামীমা খাতুন।
শুধু শামীমা খাতুনের পরিবার নয়, ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১৫টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরে তারাও মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ। দিনে-রাতে সমানতালে চলছে মশার উপদ্রব। মশার উৎপাত এতটাই বেশি যে দরজা-জানালা খুলে রাখার উপায় নেই। বিশেষ করে সন্ধ্যার আগে আগে মশাগুলো ঢুকতে শুরু করে ঘরের ভেতর।
উপজেলার সদরস্থ পৌরসভার থানা এলাকা, ওয়াপদা এলাকা, দাস পাড়া, এ আর পাইলট রোডসহ আশেপাশের রেসিডেন্সিয়াল এরিয়া এবং অন্যান্য ইউনিয়নে প্রতিটি গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে মশার উপদ্রব মাত্রাতিরিক্ত বেড়েছে বলে জানান বাসিন্দারা। ঘরে-বাইরে, কর্মস্থলে সবখানেই মশায় অতিষ্ঠ তারা।
কেন মশার এত উপদ্রব– এই প্রশ্নে ফরিদগঞ্জবাসী বলছেন, উপজেলার বিভিন্ন নালা-নর্দমা, পরিত্যক্ত ডোবা, দীর্ঘদিনের পানিবদ্ধ থাকা জলাশয় থেকে মশার উৎপত্তি। নালা-নর্দমা নিয়মিত পরিষ্কার করা হয় না, তাই বদ্ধ পানিতে ব্যাপক হারে বংশ বিস্তার করছে মশারা। আর বিভিন্ন এলাকার অসচেতন জনগণ এদিক-সেদিক ময়লা ফেলে রাখার কারণে মশার বংশবৃদ্ধি হয়। পৌরবাসী বলছেন, যদিও পৌর কর্তৃপক্ষ মাঝেমধ্যে ড্রেনের ময়লা পরিষ্কার করার কাজ করে। কিন্তু, ইউনিয়নবাসীর অভিযোগ, কখনোই মশা নিধনের জন্য কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি প্রশাসন।
এ তো গেল সচেতন মানুষদের গল্প। যারা একটু বেশিই অসচেতন এবং অপরিচ্ছন্ন, তাদের পরিস্থিতি আঁচ করুন। তারা কতটা অতিষ্ঠ হতে পারে মশার উপদ্রবে। খোলা ঘরের বিছানায় যারা দিব্যি ঘুমায়,তাদের কি ঘরের দরজা জানালা বন্ধ করার দরকার পড়ে মশা আটকাতে! দরকার পড়ে না। বলা চলে অনেকের বসতিই মশার সঙ্গে।
উপজেলা সদরের আম্বিয়া ইউনুছ ফাউন্ডেশনের ‘আইফা পাঠাগার’ পরিচালক সাংবাদিক নূরুল ইসলাম ফরহাদ বলেন, ‘মশার উপদ্রবে তো অফিসে বসা যায় না। মশার কামড়ে টিকতে না পেরে এরোসেল স্প্রে করি। তবুও কমে না। পৌরসভার মধ্যে সরকারিভাবে মশা নিধনের স্প্রে করাটা তো মৌলিক একটা দাবি। অচিরেই পৌরসভাসহ পুরো উপজেলায় ধীরে ধীরে প্রয়োগ শুরু হোক মশা নিধন কার্যক্রম।’
পৌরবাসীরা বলছেন, ‘সাধারণত বর্ষাকাল শুরু হলেই মশার উপদ্রব বাড়ে। কিন্তু এ বছর বর্ষাকাল শুরুর আগেই ফরিদগঞ্জে বেড়েছে মশার উপদ্রব। প্রায় মাসখানেক ধরে পৌর এলাকার সর্বত্র ঝাঁকে ঝাঁকে মশা রাজত্ব বিস্তার করছে। নিয়মিত উপজেলার সর্বত্র যদি ফগার মেশিন দ্বারা স্প্রে করা হয়, তাহলে কিছুটা হলেও মশার উপদ্রব কমবে।’
ফরিদগঞ্জ বঙ্গবন্ধু ডিগ্রি কলেজ রোডে বসবাসকারী সাহিত্যকর্মী মোস্তফা কামাল মুকুল বলেন, ‘মশার যন্ত্রণায় দরজা জানালা খেলা যায় না। বাচ্চারা পড়তে বসলে মশা কামড়ে তারা স্থির থাকতে পারে না। কয়েল জ্বালালে কিংবা এরোসল স্প্রে করলেও কোনো লাভ হয় না।’
নয়াহাট বাজারের ঔষধ ব্যবসায়ী মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, ‘একে তো করোনার প্রাদুর্ভাব, অন্যদিকে চক্রবৃদ্ধি হারে বাড়ছে মশার উপদ্রব। তাই মশাবাহিত রোগ নিয়ে শঙ্কায় রয়েছি। আমরা ইউনিয়নের অধিবাসী। শহরের মতো গ্রামাঞ্চলে কখনোই মশা মারার স্প্রে মারা হয় না। মশার উপদ্রব নিয়ন্ত্রণে প্রতিটি ইউনিয়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ মশা নিধনের স্প্রে মারার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করছি।’
পরিসংখ্যানে দেখা গেছে গত দুই বছরে (২০১৯ ও ২০২১) মশার কামড়ে ৯২ জন এই পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন। সরকারি হিসাব মতে ২০১৯ সালে ফরিদগঞ্জে ৮০ জন রোগী চিকিৎসা গ্রহণের জন্য হাসপাতালে এসেছিলেন, যারমধ্যে সরকারি হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা ৬৯ এবং বেসরকারি হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা ১১ জন এবং ২০২১ সালের ৩১ আগস্ট পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১২ জন। যার মধ্যে ২ জনকে ফরিদগঞ্জ উপজেলা কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে দীর্ঘদিন চিকিৎসা নিতে হয়েছিল। সরকারি পরিসংখ্যান বলছে এই ২ বছরে মশার কামড়ে কোনো মৃত্যু ঘটেনি। এছাড়া পরিসংখ্যানের বাইরে নিশ্চয়ই আরও আরও আক্রান্ত রোগী হিসাবের বাইরে রয়েছে। ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেনও সম্প্রতি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এমন অসংখ্য মানুষ জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন। কে কীভাবে আক্রান্ত হচ্ছেন তা পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমেই জানা সম্ভব। কিন্তু সকলেই তো আর পরীক্ষা নিরীক্ষার ধারেকাছে যায় না। তাই ধারণা করা হচ্ছে, গ্রামাঞ্চলেও পৌরসভার মতো যদি মশার কীটনাশক ছিটানো যেতো, তাহলে হয়তো কমে আসতো ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা।
ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আশরাফ আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘মানুষের মধ্যে করোনা ভাইরাস নিয়ে মানুষের শঙ্কা বেশি। তাই মশাবাহিত রোগে আক্রান্ত তেমন দেখা যায়নি। যদিও মশার কামড়ে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু, চিকনগুনিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা রয়েছে; কিন্তু সেসব রোগ গ্রামেগঞ্জের সর্বত্র নয়। আমাদের ফরিদগঞ্জে মশার কামড়ে তেমন বড় ধরনের কোনো রোগী পাওয়া যায়নি। তবে যেভাবে মশার উপদ্রব বাড়ছে তাতে যেন ভয়ানক পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয় এজন্য পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা এবং প্রয়োজনে সরকারিভাবে ঔষধের প্রয়োগ করা যেতে পারে।’
পৌরসভা অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ১ সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে ফরিদগঞ্জ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারী পৌর এলাকায় ডেঙ্গু প্রতিরোধে পৌর কর্তৃপক্ষ কীটনাশক ছিটানোর মাধ্যমে অভিযান শুরু করেছে। এরপর ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও মশার কীটনাশক ছিটানো হয়েছে কিছুদিন পূর্বে। তবে জনগণ চাইছে মাঝেমধ্যে ঘটা করে নয়, নিয়মিতভাবে মশা নিধনে স্প্রে ছিটানো হোক।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘আসলে পৌরসভায় মাঝেমধ্যে মশার স্প্রে করা হয়, ওটা পৌরসভার কাজের অংশ। আর ইউনিয়ন পর্যায়ে এই বিষয়ে কোনো কার্যক্রম এখনও আমাদের কাছে নেই। যদি সরকারের পক্ষ থেকে কোনো কার্যক্রম আসে তাহলে হতে পারে।’
উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা নিজেরাই যদি মশার প্রজননেরজন্য নিজের আঙিনা নোংরা করে রাখি, পানির গর্ত করে রাখি তাহলে কীভাবে একটা উপজেলা বা মিউনিসিপ্যালিটির মাধ্যমে সেটা দমন করবেন!
যারা আমাদের সম্মানিত নাগরিক তাদের উচিত আগে তাদের চারপাশ পরিস্কার রাখা। জলাবদ্ধতা থাকলে সেটা নিরসন করে ফেলা, যাতে মশা জন্মাতে না পারে। আর এখন যেই অবস্থা ফগার মেশিন দিয়ে স্প্রে করলেও মশা মারা যায় না, ওরা চালাক হয়ে গেছে! ওদেরকে কাবু করা যায় না। আসলে প্রকৃতির চারপাশ জনগণের দ্বারাই সুন্দরভাবে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখলে মশার প্রজননও হবে না আর মিউনিসিপ্যালিটির ফগার মেশিনের স্প্রেরও দরকার পড়বে না। তাই আসুন আমরা সবাই সামাজিক সচেতনতা তৈরি করি।’

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ