আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

ম্যাজিষ্ট্রেট মেয়ে

আব্দুল বারীঃ

আমার সিনিয়র ফ্রেন্ড একসময় ঢাকার ডিসি অফিসের স্ট্যানোগ্রাফার ছিলেন। ম্যাজিষ্ট্রেট হওয়ার পর কিভাবে তাঁর আদর্শে গড়া মেয়ে দাম্ভিক হয়ে গেল সেই গল্প শুনালেন একদিন।

সারা জীবন জেলা প্রশাসনে চাকরী করেছি। যোগ্যতা থাকার পরও ম্যাজিস্ট্রেট হতে পারিনি। সেই আক্ষেপের যন্ত্রণা হৃদয়ে জাগ্রত রেখে বড় মেয়েকে পড়িয়ে মাস্টার্স পাশ করালাম। অন্য চাকরী না খুঁজে মেয়েকে বিসিএস দেওয়ালাম। সে কোয়ালিফাই করায় হয়ে গেলাম ম্যাজিষ্ট্রেটের বাবা।

আমাদের পায়ে সালাম করে ম্যাজিষ্ট্রেটের চাকরীতে যোগদান করতে গেল মেয়ে। এরপর একই নিয়মে আমাদের সন্মান করে গেল প্রশিক্ষণে গেল। ফিরে আসার পর দেখলাম বদলে গেছে তার আচরণ। সে আর আগের মতো গলা ছেড়ে আব্বা বলে ডাকেনা। মা’র ক্ষেত্রেও তাই। প্রতিবেশীদের সাথে আন্তরিক আচরণ করেনা। আত্মীয়দের সাথে থার্ড পারছনে কথা বলে। ছোটদের কথায় বিরক্ত হয়। বড়দের নাম ধরে ডাকে।

যে মেয়েটির আব্বা ডাক আমাকে রাজা বানাত ম্যাজিষ্ট্রেট হওয়ার পর সে আমাকে প্রজা করে দিলো। যে তার মা ও ছোট ভাই বোনদের সাথে ঘুমাতে যেত তার বিছানা হয়ে গেল আলাদা। ম্যাজিষ্ট্রেটদের এই আচরণ আমার কাছে নতুন নয়। আমার আদর্শে গড়া মেয়ে বাড়ি এসেও ম্যাজিষ্ট্রেসী আচরণে থাকবে এটা আমরা মেনে নিতে পারলাম না।

এক সন্ধ্যায় কাউন্সিলিংয়ের জন্য ডাকলাম। দেরিতে হলেও এলো। কাউন্সিলিং না নিয়ে বললো আমি এখন ম্যাজিষ্ট্রেট। আমি জেল দিতে পারি। হাওয়া থেকে পাওয়া খবরের তদন্ত করতে পারি। আমার নির্দেশে পুলিশ চলে। আমি ১৪৪ ধারা জারী করতে পারি। সাধারণের সাথে এক কাতারে চললে ক্ষুন্ন হবে ম্যাজিষ্ট্রেসীর মর্যাদা।

বুঝলাম, সে আর আমার সেই আদর্শ মেয়ে নেই। ব্যুরোক্রেসির বীজ তার মধ্যে আমিত্বের অহংকার বপন করে দিয়েছে। যে বীজ থেকে অঙ্কুরিত বিষ বৃক্ষের দাপট চিরটা কাল দেখে আসছি। তার সাথে এর কোন পার্থক্য নেই। অহংকারের এই গাছ উপড়ে দেওয়ার ক্ষমতা আমার নেই।
তাঁর নেই সে কথা বিশ্বাস করি। কিন্তু যাদের আছে তারাও কি এভাবেই হেরে যাবে? নিশ্চয়ই না।

আসুন আমরা সবাই মিলে বদলাতে বাধ্য করি তাদের প্রশিক্ষণ পদ্ধতি। একমত থাকলে আওয়াজ তুলুন-
ম্যাজিষ্ট্রেসীতে ডিসি সুলতানা, আরডিসি নাজিম ও এসিল্যান্ড সায়েমা এদের মতো আর কেউ যেন আচরণ নয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ