আজ ১৩ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

মানবিকতা কোথায়? বিত্তশালীদের আচরণ রহস্যজনক

 

 

আকমল হোসেনঃ

 

মানুষ এখন ঘর বন্দী, কর্মহীন। যে পরিবারটি একদিন কাজ না করলে, পরেরদিন সংসার চলেনা। সে পনের দিন ধরে আটকে আছে ঘরে। এভাবে বেঁচে থাকা সম্ভব কি? সরকারী সহযোগীতা? সেতো সোনার হরিণ। প্রতি ওয়ার্ডে প্রয়োজন চারশ থেকে পাঁচ শত মানুষের খাদ্য সামগ্রী। অথচ এপর্যন্ত এসেছে পঁচিশ থেকে ত্রিশ জনের। তাও আবার চেয়ারম্যান মেম্বারের কাছের লোকগুলো অগ্রাধিকার পাচ্ছেন। স্বদ্যোগে কিছু ব্যাক্তি কিছু ত্রাণ দিয়েছেন। তবে প্রয়োজনের তুলনায় তাও অপ্রতুল। এভাবে মানুষকে ঘরে বন্দী রাখা খুবই দুরুহ কাজ। এক সময় মানুষ না খেয়ে মরার চেয়ে করোনয় মৃত্যু শ্রেয় চিন্তা করে ঝুঁকি নেবে। সামনের দিনগুলো আরও ভয়াবহ হবে। লকডাউন চলবে পুরো মাস জুড়ে। মানুষের ক্ষুধা বাড়বে। বাড়বে সামাজিক অস্থিরতা। বৃদ্ধি পাবে চুরি-ডাকাতি থেকে শুরু করে বিভিন্ন অসামাজিক অপরাধ। মানুষকে দুবেলা দু মুঠো খাবারের ব্যবস্থা না করতে পারলে এই অবস্থা রোধ করা কঠিন হবে। বিত্তশালী এবং ব্যবসায়ীরা এগিয়ে না আসলে সরকারের পক্ষে কোনোক্রমেই এই বিপুল জনগোষ্ঠীর অন্ন সংস্থানের ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে না। বিত্তশালীদের আচরণ রহস্যজনক। ব্যবসায়ীরা আরো ভয়ঙ্কর তারা মানুষকে সহযোগিতা করা দূরে থাক, দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়িয়ে মানুষকে হতাশার মধ্যে নিমজ্জিত করছে। বহু এনজিও এইসব নিম্নবিত্ত মধ্যবিত্ত লোকদের রক্ত চুষে অর্থ নিয়েছে। কিন্তু আজ তারা মানুষের দুর্দিনে পাশে নেই।এটি ও দুঃখজনক। যদি বাংলাদেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায় এবং শিল্পপতিরা একটু সহানুভূতিশীল হত তাহলে অনায়াসে মানুষকে তিন মাসের জন্য লকডাউনে রাখা যেত। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটাই সত্যি যে ওনারা শুধু নির্বাচনের সময় নিজেদের স্বার্থে বস্তা ভরে টাকা নিয়ে আসেন মানুষের দুর্দিনে আসেন না। স্বার্থের বাইরে মানবতা বলে কিছু তাদের মধ্যে নেই। টাকা নিয়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে পারবেন না একটু মানবিক হোন।

এডভোকেট আকমল হোসেন,ফেসবুক টাইমলাইন থেকে থেকে

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ