আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

তাহিরপুরে সাংবাদিককে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৪

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীতে একটি বালুখেকো চক্র নদীর তীর কেটে অবৈধভাবে বালি পাথর উত্তোলন করছে এমন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ছবি তুলতে গেলে বালি খেকো চক্রটি সাংবাদিককে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে চার জনকে গ্রেপ্তার করেছে তাহিরপুর থানা পুলিশ।

সোমবার মধ্যরাতে রাতে সহকারী পুলিশ সুপার (তাহিরপুর- জামালগঞ্জ সার্কেল) মো. বাবুল আখতারের নেতৃত্বে ও এসআই দীপঙ্কর বিশ্বাস, এসআই মো. রাজিবুল ইসলাম, বাদাঘাট পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ এসআই মাহমদুল হাসান, এএসআই রাজু কুমার বিশ্বাসের সহযোগিতায় অভিযান চালিয়ে ঘাগটিয়া গ্রামের বিভিন্ন যায়গা থেকে ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো উপজেলার বাদাঘাট উত্তর ইউনিয়নের ঘাগটিয়া গ্রামের সামছু মিয়ার ছেলে ফয়সল আহমদ (১৯), শাহানুর মিয়ার ছেলে আনহারুল ইসলাম (২০), শাবিরুল ইসলামের ছেলে তাহির হোসেন (২২) ও মৃত গোলাম হোসেনের ছেলে মাসরিবুল ইসলাম (২২)। এ ঘটনায় গুরতর আহত সাংবাদিক কামাল হোসেন বাদী হয়ে তাহিরপুর থানায় ৫ জনের নাম উল্লেখসহ আজ্ঞাত আরো ৫ থেকে ৬ জনের বিরুদ্ধে তাহিরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন (মামলা নং-১)।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার দুপুরে তাহিরপুর উপজেলার যাদুকাটা নদীর তীর কেটে বালু উত্তোলনের সংবাদ সংগ্রহের জন্য সরেজমিনে গিয়ে হামলার শিকার হন তাহিরপুর প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক, দৈনিক সংবাদের তাহিরপুর উপজেলা প্রতিনিধি কামাল হোসেন।

এসময় তাকে মারধোর করে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়। এমনকি কামালের সাথে থাকা মোটরসাইকেল, ক্যামেরাসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা।

তাহিরপুর উপজেলার ঘাগটিয়া এলাকায় গতকাল দুপুরের দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত সাংবাদিককে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা যায়, দীর্ঘদিন থেকে যাদুকাটা নদীর তীর কেটে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছে একটি বালুখেকো চক্র। খবর পেয়ে সাংবাদিক কামাল হোসেন সরেজমিন গিয়ে ছবি ও তথ্য সংগ্রহ করতে চাইলে ঘটনাস্থলে থাকা বালুখেকো চক্রের সদস্যরা সংঘবদ্ধ হয়ে তার ওপর অতর্কিত হামলা করে।

এ সময় তাকে ব্যাপক মারধর করে মারাত্মক আহত করা হয়। একপর্যায় আহত সাংবাদিককে নদীর পাড় থেকে টেনে হিঁচড়ে ঘাগটিয়া বাজারে এনে গাছের সঙ্গে বেঁধেও নির্যাতন করা হয়। নির্যাতনের পর আহত সাংবাদিক কামাল হোসেনকে হামলাকারীরা গাছের সঙ্গে বেধে রাখা অবস্থায় ফেলে চলে যাওয়ার পর খবর পান তাঁর সহকর্মীরা। সহকর্মীরা খবর পেয়ে বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মাহমুদুল হাসানকে জানালে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেছেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে তাহিরপুর থানা পুলিশ ৪জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশী চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। আশা করি দ্রুত সময়ের মধ্যে অন্যান্য আসামীরাও গ্রেফতার হবে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ