আজ ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জানুয়ারি, ২০২১ ইং

চরমপন্থী নেতা লিপটন ও মামুনকে গ্রেপ্তার দাবিতে মানববন্ধন, সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

কুষ্টিয়ায় যুবলীগ নেতা রাশিদুল ইসলামকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর প্রতিবাদ ও ষড়যন্ত্রে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও, মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছেন কয়েক হাজার নারী পুরুষ। বৃহস্পতিবার ৭ জানুয়ারি সকালে এসব কর্মসূচী পালন করেন এলাকার বিক্ষুব্ধ এলাকবাসি।
রাশিদুল ইসলাম কুষ্টিয়া জেলা যুবলীগের প্রস্তাবিত কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং সদর উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক। গত ২৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ভবানীপুর বাজার থেকে একটি ইজিবাইকে করে এসে ৪ জন সাদা পোষাকধারী র‌্যাব সদস্য রাশিদুল ইসলামকে তুলে নিয়ে যায়।
পরে র‌্যাবের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় রাশেদুল ইসলামের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার হয়েছে। ওই মামলায় রাশিদুল বর্তমানে কারাগারে আছেন। ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও, মানববন্ধন ও সমাবেশ করে কয়েক হাজার মানুষ।
এ সময় বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগ সভাপতি রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব বাদশা, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজু, আওয়ামী লীগ নেতা একরামূল হক প্রমুখ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, যুবলীগ নেতা রাশিদুল ইসলাম রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার। এলাকার আলোচিত র‌্যাবের সোর্স হিসেবে খ্যাত পুলিশের তালিকাভুক্ত আসামী জাহাঙ্গীর কবির লিপটন ও মামুন অর রশিদ মামুন এ ষড়যন্ত্রের মূল হোতা বলে জানা যায়। কাঞ্চনপুরে বিএনপি-জামায়াতের এক সময়কার অন্যতম পৃষ্ঠপোষক আনিচুর রহমান ঝন্টু নির্বাচন ও নেতৃত্ব দেয়াকে কেন্দ্র করে এলাকাজুড়ে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। ঝন্টুর পিতা স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে পিচ কমিটির অন্যতম নেতা ছিলেন। এখন চরমপন্থিসহ নানা অবৈধ কর্মকান্ডের নেতৃত্ব দিচ্ছে ঝন্টু। লিপটন তার আপন বড় ভাইয়ের ভাইয়রা ছেলে হওয়ায় তাকে কাজে লাগাচ্ছে নিরীহ লোকজনকে ফাঁসাতে। যারা এ ইউনিয়নের প্রকৃত আওয়ামী লীগ পরিবারের লোকজন তাদের টার্গেট করা হয়েছে। ঝন্টুর আপন বড় ভাইয়ের ভাইয়ার ছেলে এক সময় কার চরমপন্থি নেতা লিপটন ও মামুন তার হয়ে এলাকায় সাধারন মানুষকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, রাশিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় কোন মামলা নেই। তিনি অস্ত্রের রাজনীতিও করেন না। অথচ তাকে আটকের পর র‌্যাব বলছে তিনি চরমপন্থী নেতা, তার বিরুদ্ধে নাকি ৫টা মামলা রয়েছে। এছাড়া তার কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের নাটকও সাজানো হয়েছে। বক্তারা বলেন, লিপটন ও মামুন আইন শৃংখলা বাহিনী র‌্যাবের নাম ভাঙ্গিয়ে মাদক ব্যবসা, অস্ত্র ব্যবসা, ও নিরীহ লোকজনকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে অর্থ বানিজ্য করছে। যারা অর্থ দিতে অপরাগতা প্রকাশ করছে তাদের সন্ত্রাসী তমকা লাগিয়ে ফাঁসিয়ে দেয়া হচ্ছে। অতীতে এ জেলায় অনেক ঠিকাদার, ব্যবসায়ী ও নিরীহ মানুষকে হত্যার নেতৃত্ব দিয়েছে লিপটন। এখনো তারা চাঁদাবাজি করছে। ঠিকাদার জামু, নাসির উদ্দিনসহ অরো একডজন মানুষকে সে হত্যা করেছে। আর এখন এলিট ফোর্স র‌্যাবের নাম ভাঙ্গিয়ে বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে সে অস্ত্র এনে ব্যবসা করছে। আর এসব অস্ত্র নিরীহ মানুষকে ফাঁসাতে ব্যবহার করছে। তার বৈধ কোন আয়ের উৎস না থাকলেও দামি গাড়িসহ নানা সম্পদ রয়েছে। সে র‌্যাবের কিছু অসাধূ কর্মকর্তা ও সদস্যের সহযোগিতায় অবাধে চলাচল ও অপকর্ম করে সাধারন মানুষের মাঝে ভীতি ছড়ালেও কোন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। এতে সাধারন মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে রাশেদুল ইসলামের মুক্তি দাবির পাশাপাশি তাকে ফাঁসানোর হোতা লিপটন ও মামুনকে গ্রেফতারের দাবি জানান।

কুষ্টিয়া জেলা ও সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকদ্বয় যুবলীগ নেতা রাশিদুলের মুক্তির দাবিতে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক বরাবর স্বারকলিপি প্রদান,

স্বারকলিপিতে উল্লেখ রয়েছে, যুবলীগ নেতা রাশিদুলকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর মুলহোতারা কুখ্যাত চরমপন্থি জাহাঙ্গীর কবির লিপটন ও মামুন অর রশিদ মামুনকে গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে।
কুষ্টিয়া জেলা ও সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকদ্বয় জেলা প্রশাসক বরাবর নিবেদন করেন, আপনি অবগত আছেন যে গত ২৭ ডিসেম্বর রাতে কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন যুবলীগের অন্যতম নেতা রাশিদুল ইসলামকে কুখ্যাত চরমপন্থি নেতা জাহাঙ্গীর কবির লিপটন ও মামুন অর রশিদ মামুনের সহযোগিতায় র‌্যাব আটক করে। পরে অস্ত্র উদ্ধার দেখিয়ে তাকে মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। যা উদ্বেগের বিষয়। একজন দ¶ ও ভাল সংগঠক হিসেবে রাশিদুল দলীয় নেতা কর্মি ও এলাকার মানুষের কাছে জনপ্রিয়। প্রতিটি দলীয় কর্মসুচীতে তার অংশগ্রহণ চোখে পড়ার মত। সে সংগঠনের পাশাপাশি ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। একজন সুনাগরিক হিসেবে সে কোন সমাজবিরোধী কাজে লিপ্ত ছিল না। রাষ্ট্রের আইনের প্রতি সে শ্রদ্ধাশীল। আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও এলাকার নেতৃত্ব দেয়াকে কেন্দ্র করে রাশিদুলকে ফাঁসিয়ে দেয়া হয়েছে। এর আগে একই ভাবে ফাঁসিয়ে দেয়া হয় যুবলীগ নেতা আব্দুল আলিম, হাবিবুর রহমান ও শহর যুবলীগের সাবেক নেতা ইমনকে। রাশিদুলের নামে ৬টি মামলার কথা বলা হলেও বাস্তবে এলাকার ১টি মারামারির মামলা ছাড়া আর কোন মামলা তার নামে নেই। মিথ্যা প্রপাগন্ডা ছড়ানো হচ্ছে তাকে ও যুবলীগ নেতাদের নিয়ে। বাংলাদেশ যুবলীগের কোন নেতা-কর্মী অন্যায় কাজে লিপ্ত ছিল না। সমাজ গঠনকে যুবলীগ কাজ করে যাচ্ছে। আপনি এ জেলার সাধারন মানুষের অভিভাবক। আপনার ঐক্লান্তিক প্রচেষ্টায় জেলা থেকে মাদক, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজদের উৎখাত করে শান্তির শহরে পরিণত করা সম্ভব হয়েছে। এ জেলার সকল সরকারি উন্নয়ন আপনার মাধ্যমে সুচারু ভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে। জেলাকে আধুনিক ও মডেল জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে আপনি নিরলস ভাবে কাজ করে চলেছেন। আপনার যোগ্য নেতৃত্বে জেলার মানুষ আগের তুলনায় দ্রুত সেবা পাচ্ছে। যা আপনার প্রতি সাধারন মানুষের ভালবাসা, আস্থা ও বিশ্বাসের জায়গা অর্জন হয়েছে। আপনার অবগতরি জন্য জানাচ্ছি যে, জেলার মানুষ যখন শান্তিতে আছে তখন একটি চক্র একের পর এক দলীয় নেতা ও নিরীহ মানুষ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ