আজ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জুন, ২০২২ ইং

ঢাকা ১৮ আসন উপ- নির্বাচনে মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন পিরোজপুরের কৃতি সন্তান ড. আব্দুল ওয়াদুদ

মতিউর রহমান, পিরোজপুর প্রতিনিধি:
ঢাকা- ১৮ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের অকাল মৃত্যুতে আসনটি খালি হয়ে যায়। তারই আসনে তারই স্নেহধন্য ঢাকা ১৮ আসনের উপ- নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন দক্ষিণ অঞ্চলের তথা বৃহত্তর বরিশাল বিভাগের পিরোজপুর জেলার কৃতি সন্তান শিক্ষাবিদ ড. আব্দুল ওয়াদুদ। ছাত্রজীবনে তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও তাঁর হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ১৯৮৫ সালে কার্যনির্বাহী কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পদে ছিলেন। এছাড়াও তিনি তৎকালীন জহিরুল হক হলের ক্রীড়া সম্পাদক ছিলেন। ড. আব্দুল ওয়াদুদ ১৯৯০ এর গণ- আন্দোলনে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একনিষ্ঠ কর্মী ও রাজপথের একজন লড়াকু সৈনিক হিসেবে পরিচিত লাভ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স ও মাস্টার্স করেন।
এবং দিল্লির জহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ঢাকা সিটি কলেজের সহকারী অধ্যাপক এবং নর্থ সউথ ইউনিভার্সিটি, ইন্ডিডেনডেন্ট ইউনিভার্সিটি, কুইনস ইউনিভার্সিটি এবং ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষক হিসেবে সুনামের সাথে দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও তিনি ওয়াইলড লাইফ কনজারভেশন এসোসিয়েশনের মহাসচিব,  অটিজম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন , ফুল পাখি আর্ট সাউথ বেঙ্গল বার্ডপার্ক সহ বহু সামাজিক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি
বর্তমানে ওয়ার্ল্ড ফুটবলার্স ফোরামের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন এবং প্লাটিনাম গ্রুপের মালিক।
ড. ওয়াদুদ জীবনের প্রতিটা সময়ে আওয়ামিলীগ এর সাথে ওতোপ্রোতো ভাবে জড়িত ছিলেন। বিগত দলের দুঃসময়ের  দিনগুলোতে যখন আওয়ালীগ কর্মি সংকট ও দেশের মানুষ যখন গণতন্ত্র সংকটে ভুগেছে, ঠিক তখনই আওয়ামীলীগ ও বঙ্গবন্ধুর একজন প্রকৃত মুজিব সৈনিক হয়ে রাজপথে মাথা উঁচু করে অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন দলকে টিকে রাখার জন্য। দিনে- রাতে দলের যেকোনো প্রয়োজনে ছুটে গিয়েছি, বিরোধী দলের শত অন্যায় অত্যাচার সহ্য করে খেয়ে-না খেয়ে দল চালিয়েছেন নিজের ব্যাক্তিগত অর্থে। তারপরও বিরোধী দলের সাথে আপোষ করেনি এই বর্ষিয়ান শিক্ষাবিদ ড.আব্দুল ওয়াদুদ। বঙ্গবন্ধু’কে তিনি মনে প্রানে বিশ্বাস করতেন ভালোবাসতেন তার দেখানো পথে হাঁটতেন । নেতা হিসেবে নয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে আদর্শে আদর্শিত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন সাধারন সেবাকর্মী হয়ে দীর্ঘদিন তিনি তার নিজ এলাকায় অসহায় নিপিঁডিত হতদরিদ্র কর্মহীন মানুষের পাশে সাহায্যর হাত বাডিয়ে দিয়েছেন। আত্মমানবতার সেবায় তিনি ছিলেন অবিচল। জাতির ক্রান্তিলগ্নে সরকারী সহায়তার পাশাপাশি নিজ ব্যক্তি উদ্দ্যোগে অসংখ্য অসহায় হতদরিদ্র কর্মহীন মানুষকে সহায়তা করেছেন।ঢাকা-১৮ আসনের উপ-নির্বাচনে নৌকায় চড়তে চান সাবেক ছাত্রনেতা শিক্ষাবিদ ড. আব্দুল ওয়াদুদ। ঢাকা-১৮ আসনে উপ-নির্বাচনে গত ২০ অক্টোবর মনোনয়নের জন্য দলীয় আবেদনপত্র সংগ্রহ করেছেন। আওয়ামীলীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডি কার্যালয় থেকে ড. আব্দুল ওয়াদুদ এর পক্ষে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন উত্তরার বিশিষ্ট সমাজ সেবক,  আওয়ামীলীগ নেতা আলহাজ্ব মোঃ ফরিদ জোমাদ্দার ও জনাব আলহাজ্ব মালেক ভান্ডারী। ঢাকা- ১৮ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট সাহেরা খাতুনের অকাল মৃত্যুতে এই আসনটি খালি হয়। ড. আব্দুল ওয়াদুদ দলের দুঃসময়ে আওয়ামিলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামে ছিলেন এক অকুতোভয় সৈনিক ছিলেন। ধারনা করা হচ্ছে এই ছাত্র নেতাই উপ-নির্বাচনে নৌকার টিকিট পাবেন।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আলহাজ্ব মোঃ ফরিদ জোমাদ্দার বলেন, এ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন অতীব সৎ ও দলের জন্য একজন বিশ্বস্ত কর্মী ছিলেন। এ আসনে আমরা প্রধানমন্ত্রীর পাশে এমনই একজন প্রার্থী চাই। ড. ওয়াদুদ তেমনই একজন ব্যক্তি। তিনি দলের দুঃসময়ে রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামে ছিলেন, তিনি দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ।
এদিকে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় গতকাল ড. ওয়াদুদ এর সাথে তার বাস ভবনে দেখা করেন। এ সময় অনেক নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।  তিনি বলেন সৎ, পরিশ্রমী এবং দলের জন্য নিবেদিত প্রাণ ড. ওয়াদুদ ভাইকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা যদি মূল্যায়ন করেন তাহলে দেশ ও জাতি উপকৃত হবে। ড. ওয়াদুদ ভাই আমাদের জন্য একজন আদর্শবান ছাত্রনেতা। বাংলাদেশে আমরা তার লক্ষ কোটি ভক্ত অনুরাগী রয়েছি। তাঁর মত একজন পরিচ্ছন্ন ও ক্লিন ইমেজের ব্যক্তি এই সময়ে জননেত্রীর পাশে খুবই প্রয়োজন।
মনোনয়ন পত্র সংগ্রহের সময় ঢাকা- ১৮ আসনের আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সুধী সমাজের বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মী স্বাস্থ্য বিধি মেনে ধানমন্ডিস্থ’ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উপস্থি’ত ছিলেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ