আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৭শে মে, ২০২৪ ইং

চান্দিনার কামারখোলা গ্রাম যেন মৌসুমি সবজির স্থানীয় বাজার

খোরশেদ আলম :

চান্দিনা উপজেলার ছোট একটি গ্রাম কামারখোলা। এই গ্রামের লোক সংখ্যা ১৫০০ জন। জনসংখ্যার শতকরা ৯৫ ভাগ লোক কৃষি পেশায় নিয়োজিত। এই গ্রামের অন্যতম একটি দিক হল, বারো মাস কৃষক এই গ্রামের ফসলি মাঠে ফসল ফলাতে পারেন।আজ থেকে ছয় বা সাত বছর আগে স্থানীয় বাজার গিয়ে কৃষক তার উৎপাদিত কৃষি ফসল ও মৌসুমি সবজি বিক্রি করতেন। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন গ্রাম পর্যন্ত বিস্তার লাভ করায় স্থানীয় বাজার গুলো আগের মত জমজমাট হয় না । বর্তমান সরকার গ্রামীণ রাস্তা পাকা করার পলে মৌসুমী সবজির আড়ৎদারের শহুরে গাড়ী কৃষকের ফসলি জমির দোরগোড়ায় পৌঁছে যায়। গত টমেটো ও লতির সবজি মৌসুমে কামারখোলায় প্রবেশকৃত এইসব সবজি আড়ৎদারের গাড়ী গুলো স্বেচ্ছায় কামারখোলা ফোরকানিয়া মাদ্রাসায় গাড়ী প্রতি দুই শত টাকা আড়ৎদারের পক্ষ হতে দান করে। স্থাানীয়লোক মুখে শোনা যায় উক্ত মুক্ত হস্তে স্বেচ্ছায় যে অনুদান পেয়েছে , ত্রিশ হাজার টাকার কম নয়। তাই অনুদাবন করা যায় যে কি পরিমান মৌসুমী সবজি এই গ্রামে উৎপাদন হয় । উৎপাদিত সবজির সিংহ ভাগ কৃষক বিক্রি করেন , কেননা এই গ্রামের কৃষক সহ আশেপাশের গ্রামের কৃষক বাণিজ্যিক ভাবেই কৃষি জমি চাষাবাদ করে থাকেন। উৎপাদিত সবজি গুলো হল, টমেটো ,কচুর লতি,শশা,আলু,লাউ,কুমরা সহ আরো অন্যন সবজি ও চাষ করা হয়।কামারখোলা গ্রামের তিনটি পয়ন্টে মৌসুমি সবজি গুলো পাইকার রাতে বাড়ি বাড়ি থেকে আর দিনে ফসলি জমি থেকে সবজি ক্রয় করে জমায়েত করে থাকেন। তিনটি পয়েন্ট হলো হাজী সিরাজুল ইসলামের বাড়ী সংলগ্ন চার রাস্তার মোড়,কামারখোলা ফোরকানিয়া মাদ্রাসার প্রাঙ্গন ও জামালের মুদি দোকান সংলগ্ন পুকুর পাড়। মেীসুমের ফলন সময়ে,এই গ্রাম থেকে রাত দিন ২৪ ঘন্টা আড়ৎদারের পিক-আপ গাড়ী লেগে থাকে এই সব সবজি যাতায়ত করে নেবার জন্য। আর মৌসুমের ফলনের আগে ও পরে সপ্তাহে তিন দিন পাইকাররা ব্যস্ত সময় পার করেন ফ্রেশ সবজি ক্রয় করার জন্য।সব মিলিয়ে দেখলে মনে হয় ,গ্রামটি যেন মৌসুমি সবজির স্থানীয় বাজার,তবে প্রকৃত অর্থে এই গ্রামে কোন বাজার নেই।

লেখক/মোঃ খোরশেদ আলম
পি এ টু পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়,রংপুর

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ