আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

বায়না

 

দেব জয়োতি ঘোষ অর্নব

শো শো করে বাতাস বইছে। দূর আকাশে বিদ্যুৎ চমকে উঠল তীব্র গর্জন করে। ক্ষুদ্র ফোঁটা থেকে পরক্ষণেই বড় বড় ফোঁটায় বৃষ্টি পড়তে লাগল।
এমন ঝড়ো রাতের অন্ধকার কেটে একটা লোক দ্রুতগতিতে হেঁটে যাচ্ছে। তার হাতে একটা ব্যাগ। ব্যাগটাকে খুব যত্ন করে ধরে রেখে সে এগিয়ে চলছে।

আজ তার একমাত্র মেয়ে কঙ্কার জন্মদিন। জন্মের কিছু দিন পরে মা মারা যায় মেয়েটার। ফুপির সাথে একা বাসায় থাকে। কঙ্কার অনেকদিনের ইচ্ছা ছিল রবীন্দ্রনাথের গল্পগুচ্ছ বইটা পড়ার । কঙ্কা ওর পাঠ্যবই এ রবীন্দ্রনাথ এর একটি গল্প পড়েছিল। এর পর থেকেই বায়না ধরেছে যে ও গল্পগুচ্ছ পড়বে। কিন্তু সংসারের অভাবের কারনে দিতে পারেনি। অনেক কষ্ট করে মেয়েকে গ্রামের একটি স্কুলে পড়ানো হয়। কঙ্কা বলে ও অনেক বড় হতে চায়। পড়াশুনা করে একদিন সবার দুঃখ দূর করবে। বাবা মেয়ের এইসব উচ্চবিলাসি কথা শোনে এবং তার মনের ভিতরে দুমড়ে মুচড়ে যায়। কঙ্কার বাবা কামাল সাহেব। সে শহরে কাজ করে। আজ অনেক কষ্ট করে অফিসের ঊর্ধ্বতনের কাছ থেকে ছুটি নিয়ে বাড়ি যাচ্ছে। অনেক দিন ধরে টাকা জমিয়েও মেয়ের শখ মেটাতে পারে নি।

একদিন তিনি অফিসের ম্যানেজারের বাসায় দাওয়াত খেতে গিয়ে শেলফে গল্পগুচ্ছ বইটা দেখেন। দেখে মনে করলেন সামনে মেয়েটার জন্মদিন, কোনভাবে যদি বইটা মেয়েকে দেয়া যায়।

বৃষ্টি আস্তে আস্তে ঝড়ে পরিণত হল। কামাল দুই পা এগোন তো এক পা পিছোন। আজ মনে হয় তার আর বাড়ি যাওয়া হবে না। ঝড় এর জন্য সামনের কিছুই দেখা যাচ্ছে না।
চিন্তা করেন, এত কষ্ট করেও মেয়ের শখ মেটাতে পারলাম না।

ঝড় এর সাথে যুদ্ধ করে না পেরে কামাল রাস্তার পাশে একটি বাড়ির উঠানে বসলেন।

“বৃষ্টিতে ভিজিস না,ঠান্ডা লাগবে।ভিতরে চলে আয়। তোর বাবা মনে হয় আজকে আর আসবে না।”“আরেকটু পরে আসি ফুপি।” বাবার আশায় সন্ধ্যা থেকে কঙ্কা উঠানে দাড়িয়ে আছে। আর কিছুক্ষণ দাড়িয়ে থেকে ভিতরে চলে গেল কঙ্কা।

সকালবেলা বাবার গলার শব্দে ঘুম ভাঙল কঙ্কার। উঠেই বাবাকে জড়িয়ে ধরল। কামালের চোখ জলে ভরে উঠল। সে ভাঙ্গা গলায় বলল, “মা অনেক চেষ্টা করেও তোর বই কিনতে পারলাম না।” এই বলে সে হাতের ব্যাগ খুলে কিছু কাগজ দিল মেয়েকে। বললেন, “মাফ করে দিস মা, লিখে শেষ করতে পারলাম না।” কঙ্কা বৃষ্টির জলে ভেজা কাগজের তাড়ায় দেখে বাবার হাতের লেখা। কাগজগুলো বুকের কাছে চেপে ধরে ভেজা চোখে কঙ্কা বাবার দিকে তাকিয়ে থাকে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ