আজ ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুলাই, ২০২১ ইং

ভোলায় গাড়ি ভর্তি যাত্রী ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের হিড়িকে অতিষ্ট জনতা

 

মোঃ মুশফিকুর রহমান হাওলাদার, লালমোহন, ভোলা প্রতিনিধি :

ভোলা জেলার বিভিন্ন রুটের গণপরিবহনে ডবল ভাড়া আদায়ের হিড়িকে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে জনগণ। করোনার ভাইরাসের সংক্রমণের তীব্রতা রোধ করার জন্য , সরকার কর্তৃক ৬০% ভাড়া বৃদ্ধি করলেও, গণপরিবহন কর্তৃপক্ষ এসব নিয়মের কোন তোয়াক্কা করছেন না।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেল, পরিবহনের মালিকরা পরিবহনের সকল মাধ্যম যেমনঃ- অটোরিকশা, রিকসা,মাহিন্দ্র, বাস সহ সকল ধরনের বাহনে লোক ভর্তি যাত্রী নিয়ে চলাচল করে। কোন সিট খালি রাখার বালাই নেই।এছাড়া ভোলা জেলার কোন গণপরিবহন স্বাস্থ্যবিধি মানাও হচ্ছে না।
গণপরিবহন কর্তৃপক্ষকে এই ব্যাপারে কোন প্রশ্ন করলে, তারা কোন প্রকার সদোত্তর দিতে পারে না। গনপরিবহনের প্রতি দুই সিটে, একটি সিট ফাকাঁ রাখার কথা থাকলেও সিটে কোন জায়গাই ফাঁকা জায়গা রাখা হচ্ছে না। উল্টো বলে এখন থেকে এই নিয়মেই পরিবহন চলাচল করবে। এই বিষয়ে ভোলা জেলার সাধারণ মানুষ অতিষ্ট হয়ে পড়ছে।ডবল ভাড়া আদায় এবং ডবল যাত্রী পরিবহনের তামাশায়, ভোলা জেলার সাধারণ মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ এবং জনরোষের সৃষ্টি হচ্ছে। পরিবহনের কর্তৃপক্ষের স্বেচ্ছাচারিতা কবে বন্ধ হবে এই নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে জনতার মধ্যে।
এইদিকে নিম্ন আয়ের মানুষের কাছ থেকে গাড়ি ভাড়া দ্বিগুণ আদায়ের ফলে চরম ভোগান্তি পড়তে হচ্ছে ।যাত্রীদের অনেকে ৬০% হারে ভাড়া সাথে করে নিলেও নানা ধরনের অজুহাতে ডাবল দিতে বাধ্য করা হয়।
যাককে বলা চলে মরার উপর খরার ঘাঁ।সাধারণ জণগণ অসহায়ত্ব ও দুর্দিনে ভাড়াবাজিতে শোষিত হচ্ছে।
যেখানে গণপরিবহন কর্তৃপক্ষকে মানবিক হওয়ার কথা। প্রতিটি যাত্রীদের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে পরিবহন মালিকরা। তাই সংগাত এড়াতে, নিম্ন আয়ের সহ সকল ধরনের যাত্রী এর থেকে মুক্তি চায়।
এমন চলতে থাকলে সাধারণ মানুষের মধ্যে এই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের তীব্র আরো বৃদ্দি পাবে।সাথে সাথে দরিদ্র মানুষের হাহাকার আরো বহুগুণে বৃদ্ধি পাবে। এই ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে ভোলা জেলার সাধারণ মানুষ।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ