আজ ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুলাই, ২০২১ ইং

নওগাঁয় প্রাইম ল্যাবএন্ড হসপিটালে পাইলসের রোগীর পিওথলির অপারেশন, রুগির অবস্থা আশঙ্কাজনক

 

মোঃ ফিরোজ হোসাইন
নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁ শহরের প্রাইম ল্যাব অ্যান্ড জেনারেল হাসপাতালে আসমা খাতনু (২৫) নামের এক রোগীর পাইলসের অপারেশন করতে গিয়ে পিত্তথলির অপারেশান করেছেন চিকিৎসক। পিত্তথলিতে কোনো পাথর না পেয়ে প্রায় ৪ ঘণ্টা পর তার পাইলসের অপারেশন করা হয়। দুই দফা অপারেশন করায় এখন ওই রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। রোগী ওই ক্লিনিকে ভর্তি থাকলেও সঠিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না বলে পরিবারের অভিযোগ। বুধবার বিকেলে রোগীর বড় ভাই আতোয়ার রহমান নওগাঁ প্রেস ক্লাবের এসে সাংবাদিকদের কাছে এসব অভিযোগ করেন।

আতোয়ার রহমান জানান, বদলগাছী উপজেলার কাষ্টডোব গ্রামের হাবিবুর রহমানের মেয়ে আছমা খাতুন পাইলস অপারেশনের জন্য গত মঙ্গলবার সকালে ওই ক্লিনিকে ভর্তি হন। ওই দিন দুপুর একটার দিকে নওগাঁ সদর হাসপাতালের সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডা. মুক্তার হোসেন এবং একই হাসপাতালের অ্যানেসথেসিয়া চিকিৎসক ও প্রাইম ল্যাব ক্লিনিকের স্বত্বাধিকারী ডা. ইসকেন্দার হোসেন রোগীর অপারেশন করেন। ওইদিন অপারেশন থিয়েটারে তিন জন রোগীর পিত্তথলির পাথর ও আসমা খাতুনের পাইলস অপারেশন করার কথা ছিল। কিন্তু ওই চিকিৎসক আছমা খাতুনের পিত্তথলির অপারেশন শুরু করেন। এ সময় আসমা বাঁধা দিতে গেলেও ওই দুই চিকিৎসক কোনো কথা না শুনে তাকে অজ্ঞান করে পেট কেটে দেখেন পিত্তথলিতে পাথর নাই। এরপর সেলাই করে ৬ তলার ১৫ নং কেবিনের বেডে রাখা হয় রোগীকে। ওই তিন রোগীর পিত্তথলির অপারেশন করার পর আছমা খাতুনের পাইলস অপারেশন করেন তারা। দুটি অপারেশন করায় বর্তমানে রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর ডা. মুক্তার হোসেন ও ডা. ইসকেন্দার ক্লিনিক থেকে সটকে পড়েন।

আতোয়ার রহমান বলেন, ‘আমার বোন পাইলসের রোগী বলার পরও তারা জোর করে তার পিত্তথলির অপারেশন করে। মাত্র তিন ঘণ্টার ব্যবধানে তারা দ্বিতীয় দফায় পাইলসের অপারেশন করে তার। আমার বোনের শারীরিক অবস্থা এখন ভালো না। তাকে ওই ক্লিনিকের বেডে ফেলে রাখা হয়েছে। কিন্তু কোনো চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে না। ক্লিনিকের লোকজনকে বললে তারা বলছেন, অজ্ঞান করার কারণে রোগীর অবস্থা এমন হয়। চিন্তার কিছু নেই।’

এ ব্যাপারে ডা. মুক্তার হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি হননি। এদিকে ক্লিনিক মালিক ডা. এসকেন্দার হোসেন বলেন, ‘রোগীর সঠিক নিয়মেই চিকিৎসা করা হয়েছে। তার সুচিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে নওগাঁর সিভিল সার্জন ডাক্তার মোঃ আখতারুজ্জামান আলাল বলেন, তিনি ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ