আজ ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং

একজন সৎ ও সাহসী অফিসার এস আই বাপন চক্রবর্তী

 

হাসনাত কাইয়ূম,সরাইল প্রতিনিধি :

পুলিশ নিয়ে অনেকের বিরূপ ধারণা থাকলে ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল থানার পুলিশ উপ-পরিদর্শক বাপন চক্রবর্তী সে ধারণা সম্পূর্ণ বদলে দিয়েছেন। এস আই বাপন চক্রবর্তী একজন ব্যতিক্রমধর্মী মিষ্ট ভাষি,ধর্ম প্রাণ পুলিশ অফিসার।

প্রতিনিয়ত তিনি সহকর্মী ও সাধারণ জনগণের আদর্শগত ভিন্নতা মেনে নিয়ে পরস্পরের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছেন জনগন ও দেশের কল্যাণে । “পুলিশ জনগণের বন্ধু” তিনি এই বাক্যটির উৎকৃষ্ট নিদর্শন।

তিনি অন্যতম একজন আদর্শ পুলিশ অফিসার যিনি সরাইল উপজেলার অরুয়াইল পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই সততা,ন্যায় নিষ্ঠা আর মেধার দক্ষতা দিয়ে অপরাধ দমন ও অরুয়াইল এলাকাকে শান্ত রাখতে অাপ্রান চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

“পুলিশ জনতার, জনতা পুলিশের” এই স্লোগানকে বাস্তবে রূপ দিয়েছেন এই পুলিশ অফিসার বাপন চক্রবর্তী । এই অফিসার ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল থানার অরুয়াইল এলাকার মানুষের চোখে একজন সৎ, আদর্শবান, ন্যায়নিষ্ঠ ও গরিবের বন্ধুসুলভ পুলিশ অফিসার। অধিকাংশ মানুষই তাকে গরিবের বন্ধু আর অন্যায়কারীদের জম ভাবে।

তিনি তার সততা, ন্যায়নিষ্ঠা ও তার বিচক্ষণ বুদ্ধিমত্তা এবং মেধার বিকাশে তার দায়িত্বরত এলাকার সকল মানুষের চোখে ধনী-গরিব, ভ্যান চালক হতে সব শ্রেণিপেশার মানুষ সমান।তিনি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বেশে মানুষের মাঝে উপস্থিত হয়ে মানুষের সুখ দুঃখের কথা শুনেছেন। তিনি শুধু একজন পুলিশ অফিসারই নন পাশাপাশি অনেক সামাজিক ও সেবামূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ ও অবদান রাখেন।

এস আই বাপন চক্রবর্তী অরুয়াইল পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ হিসেবে যোগদানের পর থেকেই তিনি একে একে অপরাধ দমনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে থাকেন। অরুয়াইলে যোগদানের কয়েক দিন পরই ধামাউরা গ্রামের ক জন জুয়ারীকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠান, বাজারে অসুস্থ্য গরুর মাংস বিক্রেতাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা প্রদানের ব্যাবস্থা করেন। ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী গ্রেফতারে সদা তৎপর, এলাকার কোথাও জগ্রা হলে দ্রুত গতিতে চলে যাচ্ছেন ঘটনাস্থলে। করোনা পরিস্থিতিতে বাজারে মাস্ক বিহীন মানুষ জনকে মাস্ক পড়িয়ে দিয়ে জনগনকে সচেতন করে তুলতে আপ্রাণ চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। বন্যা পরিস্থিতিতে সাউন্ড বক্স দিয়ে প্রকট আওয়াজে গান বাজনা ও অশ্লীলতা বন্ধ করছেন। মদ, জোয়া, গাজা ও সকল প্রকার অন্যায় ও অপকর্মের বিরুদ্ধে উনার কঠোর হুংকার। প্রতিনিয়তই ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মন্দিরে পূজা প্রান্ডপের ব্যাবস্থা করে থাকেন। অরুয়াইলের যোগদানের পর কয়েকটি মন্দির ও মসজিদে সিলিং ফ্যান দান করেন।

হিন্দু মুসলিম মূলে বাপন চক্রবর্তীর নিকট কোন ভেদাভেদ নেই। এক প্রসঙ্গে তিনি বলেন আমার মা যখন গুরুতর অসুস্থ্য তখন আমার মাকে এক মুসলিম ভাই রক্ত দিয়ে জীবন বাচিয়েছিলেন। মুসলিম আমার ভাই। হিন্দু মুসলিম এতে আমি কোন ভেদাভেদ মনে করি না।সবাই আমরা মানুষ এবং স্রষ্টার তৈরি।

তার দায়িত্বরত এলাকার লোকজন বলেন, তিনি একজন সৎ ও অন্যায়ের কাছে আপোষহীন পুলিশ অফিসার। তিনি আমাদের বন্ধু তার অক্লান্ত পরিশ্রমে আজ আমাদের এলাকা শান্ত। তাঁর মতো একজন সৎ, ন্যায়নিষ্ঠা এবং অন্যায়ের বিরুদ্ধে বজ্রকন্ঠী আওয়াজ তোলা পুলিশ অফিসার পেয়ে আমরা সত্যিই ধন্য।

উপ-পরিদর্শক বাপন চক্রবর্তী কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি থানার পুটিয়া গ্রামের শিক্ষক পরিবারে তার জন্ম। তার পিতাঃ স্বপন কুমার চক্রবর্তী মাতাঃ স্বর্গীয় মিরা চক্রবর্তী। ১ ভাই ১ বোনের মধ্যে সে কনিষ্ঠ ।

২৩ নভেম্বর ২০১৩ সালে তিনি প্রথম পুলিশ বাহিনাতে উপ- পরিদর্শক হিসেবে যোগদান করেন। শুরু থেকেই আধুনিকতা এবং দক্ষতার সাথে তার মেধার বিকাশ ঘটিয়ে অপরাধ নির্মূলে নিরলশ কাজ করতে থাকেন। তিনি সততা, নিষ্ঠা এবং দক্ষতা দিয়ে অপরাধ দমন করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন ও সফলতাও এনেছেন। একজন সৎ পুলিশ অফিসার হিসেবে তার সুনাম রয়েছে। বিপদে পড়া অসহায় মানুষদের নিজের পকেট থেকে আর্থিক সহযোগীতা করতেও দিধাবোধ করেন না তিনি।

অরুয়াইল পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ উপ- পরিদর্শক বাপন চক্রবর্তী বলেন সরকারের নির্দেশ তথা সরাইল থানার ওসি নাজমূল আহমেদ স্যারের দিক নির্দেশনায় সততা আর নিষ্টার সহিত সরকারি দায়িত্ব পালন চেষ্টা করছি। অসহায় মানুষদের সেবা আর দান করা আমার মানবিক নৈতিকতা।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ