আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

প্রাণের ক্যাম্পাসে ফেরার অপেক্ষায়

 

আব্দুল্লা আল মামুন :

আমার ধুলোবালি জমা বই
আমার বন্ধুরা সব কই?
আমার ভাল্লাগেনা মিথ্যা শহর,
রাতের আধারে রই

প্রত্যেকটা স্টুডেন্টের কাছেই ক্যাম্পাস আবেগ ও ভালবাসার যায়গা। আড্ডা, খেলাধুলা, গানবাজনা, বন্ধুবান্ধব, অভিভাবকতূল্য শিক্ষক, বড় ভাইবোন, ছোট ভাইবোন কি নেই ক্যাম্পাসে? জীবনের সবচেয়ে আনন্দময় সময়টা হয়তো ক্যাম্পাসে থাকাকালীন সময় টায়। কিন্তু আজ যে ক্যাম্পাসটাই শূন্য

১০০ দিন হতে চলছে অদৃশ্য শক্তি করোনার কারনে সব থমকে আছে। দিন দিন ক্যাম্পাসে ফেরার আসক্তি টা যেন বেড়েই চলছে। আচ্ছা সব কিছু ঠিকঠাক আছে কি? চার দেওয়ালে বন্দী জীবন টা ক্যাম্পাসে ফিরতে হাহাকার করছে। কবে হবে সেই গ্রীন গার্ডেনের আড্ডায় বসে লেক দেখা, টেবিল টেনিসে ঘা ঘামানো, ক্যাম্পাসের কোনো এক কোনায় গানের আসরে মেতে উঠা।

টং দোকানের মামাকে ও অনেক মনে পড়ছে। আচ্ছা উনি সুস্থ আছে তো? ক্যাম্পাস জীবনে চা এক অন্যতম আড্ডা সঙ্গী। মামাকে সেই কতদিন বলা হয়না ” চিনি বেশি দিয়ে চা দেন ” আচ্ছা ক্যাম্পাসের নিচের ফুচকাওয়ালা, মুড়িওয়ালা মামা কেমন আছে? আবার কবে বলবো মামা অনেক ঝাল দিয়ে ১০ টাকার মুড়ি দেন

অপেক্ষায় আছি তীব্র অপেক্ষায় কবে শুনতে পাবো আজ ক্যাম্পাসে যেতে হবে। সেদিন হয়তো ঘুম থেকে উঠেই অগোছালো ভাবে বাসে উঠে জ্যাম উপভোগ করতে থাকবো আর হটাৎ শুনতে পাবো গ্রিন ইউনিভার্সিটি কেউ নামবেন?

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ