আজ ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ব্রাহ্মণবাড়িয়া এএসআই আমির হত্যা মামলার প্রধান আসামী মামুন বন্দুক যুদ্ধে নিহত

 

হাসনাত কাইয়ূম,সরাইল প্রতিনিধি :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) আমির হোসেন হত্যা মামলার অন্যতম আসামি মামুন মিয়া র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে। সোমবার (২০ জুলাই) ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ হত্যা, অস্ত্র, মাদক ও ডাকাতি প্রস্তুতি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি মামুন মিয়াকে ধরতে গত দুই দিন ধরে র‌্যাব ও পুলিশ যৌথভাবে অভিযান পরিচালনা করে আসছে। র‌্যাবের কাছে খবর আসে, মামুন সহযোগীদের নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার চান্দপুর বাজারের একটি পরিত্যক্ত দোকান ঘরে বসে আড্ডা দিচ্ছে। এরপর র‌্যাব -১৪ ভৈরব ক্যাম্পের একটি দল সেখানে অভিযানে যায়। এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে মামুন ও তার সহযোগীরা র‌্যাব কে লক্ষ্য করে গুলি করে। র‌্যাব ও পাল্টা গুলি করে। পরে একপর্যায়ে র‌্যাব ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, চার রাউন্ড গুলি ও একটি ছুরিসহ আসামি মামুনকে আহত অবস্থায় আটক করে। পরে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মামুনের লাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত: গত ১৭/০৭/২০২০খ্রিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় কর্মরত এএসআই(নিঃ) আমির হোসেন সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্সসহ অস্ত্র, মাদক ও ডাকাতি মামলার পরোয়ানাভুক্ত পলাতক আসামী মামুন মিয়া (২৮), পিতা-মুসা মিয়া, সাং-চান্দপুরকে পাঘাচং বাজার হতে গ্রেফতারের সময় ধস্তাধস্তিকালে আসামীর কোমরে থাকা ছুরি দ্বারা আমির হোসেনের বুকের বাম পাশে ও বুকের মাঝ খানে আঘাত করে গুরুতর জখম করে ঘটনাস্থল হতে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় এএসআই আমির হোসেনকে তাৎক্ষনিক চিকিৎসার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। পুলিশ সুপার ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ জেলার উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিতে ১৮/০৭/২০২০খ্রিঃ সকাল ১০.০০ ঘটিকায় পুলিশ লাইন্স মাঠে মৃত এএসআই আমির হোসেন এর জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। পুলিশ লাইন্স ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জানাজার নামাজ শেষে পুলিশ স্কটের মাধ্যমে লাশ মৃতের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহ জেলার ডিয়ারচর গ্রামে পৌছানো হয়। সেখানে মৃতের দ্বিতীয় জানাজার নামাজ শেষে সন্ধ্যা ১৮.৩০ ঘটিকায় পারিবারিক কবরস্থানে তার বাবার কবরের পাশে দাফন করা হয়।

আসামী মামুন মিয়ার বিরুদ্ধে
০১। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৩৬ তাং-১৩/০৮/২০১৯ইং ধারা-মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইন, ২০১৮ এর ৩৬(১) এর ১০(ক)/৪১
০২। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৬১ তাং-২৯/১১/২০১৭ ইং ধারা-১৮৭৮ সনের অস্ত্র আইনের ১৯(এ),
০৩। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৩০,তাং-১১/০৮/২০১৭ ইং ধারা-৩৯৯/৪০২ পেনাল কোড
০৪। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৮৩ তাং-২৮/০৮/২০১৬ ইং ধারা-৩৯৯/৪০২ পেনাল কোড,
০৫। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৬০ তাং-২৪/০৯/২০১৮ ইং ধারা-১৯৯০ সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ১৯(১) এর ৯(খ)/২৫,
০৬। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৪২ তাং-১৮/০৮/২০১৮ ইং ধারা-১৯৯০ সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ১৯(১) এর ৯(খ)/২৫
০৭। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৫৭ তাং-০২/০৭/২০১৮ ইং ধারা-১৯৯০ সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ১৯(১) এর ৯(খ)/২১/২৫,
০৮। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার মামলা নং-৪৪ তাং-১৭/০৮/২০১৭ ইং ধারা-১৯৯০ সনের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ১৯(১) এর ৯(ক)/৭(ক)/২১ সহ আরো একাধিক মামলা রয়েছে।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ