আজ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ ইং

বৃষ্টি ভেজা সরস্বতী পূজো

প্রিন্স ঘোষ

সরস্বতী পুজো মানেই অন্য রকম একটা ব্যাপার। ভোরবেলা ঘুম থেকে উঠেই কাচা হলুদে রাঙিয়ে তোলার ভাবনাতেই যেন ঘুম আসে না ছোট ছোট বাচ্চাদের।

বিদ্যার দেবী সরস্বতী।সরস্বতী পূজা হিন্দু বিদ্যা ও সঙ্গীতের দেবী সরস্বতীর আরাধনাকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠেয় একটি অন্যতম প্রধান হিন্দু উৎসব। শাস্ত্রীয় বিধান অনুসারে মাঘ মাসের শুক্লা পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পূজা আয়োজিত হয়। তিথিটি শ্রীপঞ্চমী বা বসন্ত পঞ্চমী নামেও পরিচিত। উত্তর ভারত, পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা, নেপাল ও বাংলাদেশে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে বিশেষ উৎসাহ উদ্দীপনা পরিলক্ষিত হয়। শ্রীপঞ্চমীর দিন অতি প্রত্যুষে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ছাত্রছাত্রীদের গৃহ ও সর্বজনীন পূজামণ্ডপে দেবী সরস্বতীর পূজা করা হয়। সাভারে অনেক ধর্মপ্রাণ হিন্দু পরিবারে এই শুভদিনে শিশুদের হাতেখড়ি ও ব্রাহ্মণভোজন করেছেন। সন্ধ্যায় সর্বজনীন পূজামণ্ডপগুলিতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন অনেকে।
যদিও পূজোর দিন সকাল থেকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি ছিল তবুও যেন ভক্তদের আটকে রাখা যায়নি।মাঘের এই শীতের সকালে সবাই স্নান করে নতুন জামা পরে অঞ্জুলির জন্য চলে গেছে মন্ডবে।

সাভারে অনেক জায়গায় জাকজমক ভাবে আয়োজন করা হয় পূজোর।সাভারে অনেক ছোট ছোট ক্লাব আরো এক মাস আগে থেকেই প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে পূজোর।ক্লাব গুলোর মধ্যে চলেছে প্রতিযোগিতা।সবগুলো ক্লাবের চেষ্টা ছিক সব থেকে সেরা আয়োজনের।সাভার অবস্থিত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিল সরস্বতী পূজোর আমেজ।প্রায় সবগুলো ফ্যাকাল্টি থেকেই আয়োজ করা হয়েছে হিন্দুদের বিদ্যার দেবী সরস্বতীর পূজো।
ভক্তদের সমাগমো ছিল দেখার মতো।নাচ,গান,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হয় হিন্দুদের পবিত্র এই দিনটি।আগামী কাল অর্থাৎ ৩০ জানুয়ারি সকাল ১১ পর্যন্ত পালিত হবে সরস্বতী পুজো।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ