আজ ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুলাই, ২০২১ ইং

রাবির ৬৭তম জন্মদিন : নেই রং, নেই উৎসব

 

 

জিয়াউল কবির, আনোয়ার, তানভীর,, রাজশাহী ব্যুরো :

 

৬৮ বছরে পদার্পণ করলো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)। আজ ৬ জুলাই বাংলাদেশের অন্যতম এ বিদ্যাপীঠের ৬৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

প্রতিবছর নানা আয়োজন ও কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। কিন্তু এবার মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে বড় পরিসরে উদযাপিত না হলেও সীমিত পরিসরে উদযাপন করা হয়েছে। ভোর ছয়টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও সকাল নয়টায় বৃক্ষরোপণের মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

করোনাকালের সাজসজ্জাহীন প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘প্রতিবছরই আমরা নানা আয়োজনে দিবসটি উদযাপন করে থাকি। কিন্তু এ বছর করোনা ভাইরাসের কারণে তেমন কোনো কর্মসূচি নিতে পারিনি। সকালে পতাকা উত্তোলন ও ক্যাম্পাসে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির মধ্য দিয়েই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আজকের এই দিনটি উদযাপন করে৷’

১৯৫৩ সালের ৩১ মার্চ প্রাদেশিক আইনসভায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য আইন পাস হয়। প্রথম নবনিযুক্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইতরাৎ হোসেন জুবেরীকে সঙ্গে নিয়ে মাদার বখ্শ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঠামো পরিকল্পনা প্রণয়ণ করেন। এরপর ১৯৫৩ সালের ৬ জুলাই মাত্র ১৬১ জন শিক্ষার্থী নিয়ে শুরু হয় রাবির পথচলা ।

বর্তমানে ৭৫৩ একর জমির উপর অবস্থিত এ বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে ১১৭৭ জন শিক্ষক ও ২০০০ জন প্রশাসনিক কর্মকর্তা-কর্মচারী। শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩৮ হাজার ৩৩০ জনে। এর মধ্যে ছাত্র ২৫ হাজার ৫৭৯ জন ও ছাত্রী ১২ হাজার ৫৫১ জন। বর্তমানে ৯ অনুষদের অধীনে বিভাগ রয়েছে ৫৮টি। ১২টি একাডেমিক ভবনসহ বর্তমানে ছাত্রদের জন্য ১১টি ও ছাত্রীদের জন্য ৬টি আবাসিক হল রয়েছে। এছাড়া গবেষক ও বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে একটি আন্তর্জাতিক ডরমিটরি।

বিভিন্ন সময়ে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন, বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় অনন্য ভূমিকা রেখেছেন। ১৯৬৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীব প্রক্টর ড. মোহাম্মদ শামসুজ্জোহার প্রাণের বিনিময়ে স্বাধিকার সংগ্রামের ইতিহাসে যুক্ত হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করেছে ভাষা বিজ্ঞানী ও সাহিত্যিক ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, সেলিনা হোসেন, ইতিহাসবিদ আব্দুল করিম, তাত্ত্বিক ও সমালোচক বদরুদ্দীন উমর, চলচ্চিত্র পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম, নাট্যকার মলয় ভৌমিক এর মতো প্রতিভাধরদের।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ