আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা মার্চ, ২০২১ ইং

৯৯৯ কল করে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে নারীর বিরুদ্ধে

আব্দুস সালাম রুবেল -বিশেষ প্রতিনিধি।

টাংগাইলের মেয়ে সুমি আক্তার । দীর্ঘদিন সাভারের জিনজিরা এলাকায় ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে আসছে। ভুক্তভোগী মিরাজ জানায় জিঞ্জিরার ওই বাড়িতে অবস্থান কালে সুমি আক্তার বিভিন্ন সময় অর্থের বিনিময়ে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হতো। যার ধারাবাহিকতায় গত পাঁচ মাস আগে আশুলিয়ার আনারকলি এলাকায় ৪-৫ জন খদ্দেরের সাথে আনারকলি বাসস্ট্যান্ডের পাশে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পেছনের বাউন্ডারিকৃত খালি মাঠে মধ্যরাতে অনৈতিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়। উল্লেখ্য সুমি আক্তার গত এক বছরের মধ্যে অর্থের বিনিময়ে মিরাজের সাথে ও একাধিকবার অনৈতিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছিল। এক পর্যায়ে তাদের সম্পর্কটি আর শুধুমাত্র অর্থনৈতিক লেনদেন এবং শারীরিক সম্পর্কের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি বরং সেটি একসময় সুমি আক্তার মিরাজের প্রতি মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ে। পরে পরিকল্পনা করে মিরাজকে বিয়ে করবে। যেমন চিন্তা তেমন কাজ।

মিরাজ যেহতু অর্থের বিনিময়ে তার সাথে অনৈতিক কাজে মাঝে মাঝেই লিপ্ত হতো তাই ওই মেয়েকে বিয়ে করার স্বপ্ন বা চিন্তা কখনোই মিরাজ করতো না। কিন্তু সুমির দীর্ঘদিনের স্বপ্ন এবং পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে গত পাঁচ মাস আগে চার-পাঁচজন খদ্দেরকে ম্যানেজ করে এবং চুক্তি করে যে এবার অর্থ নয় শুধুমাত্র মিরাজের সাথে তার বিয়ে করিয়ে দিতে পারলেই সে নিজেকে বিলিয়ে দিবে। চুক্তি মোতাবেক একই রাতে সুমির চার বন্ধুর সাথে অনৈতিক কার্য সম্পন্ন শেষে সুমি মিরাজকে ফোনে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্জন বাউন্ডারির ভিতরে ডেকে নেয় এবং কাছাকাছি অবস্থান করেন কিন্তু সেদিন মিরাজকে শরীর বিলিয়ে না দিয়ে হৈচৈ করে মানুষ জড়ো করে মিরাজকে একান্ত আপন করে পাবার চূড়ান্ত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মিরাজ তার ইজ্জত ছিনিয়ে নিয়েছে মর্মে উপস্থিত জনতাকে অভিযোগ করেন।
তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা হামলার ভয় দেখিয়ে মিরাজের মতামত ছাড়াই স্থানীয় বাবুল সহ অন্যান্যদের সহযোগিতায় মিরাজকে বিয়ে করেন সুমি।

কিন্তু চোরে না শুনে ধর্মের কাহিনী। পাল্টাইনি সুমির পুরনো অভ্যেস স্বামি মিরাজকে ঘরে রেখেই সে বিভিন্ন সময় পুরনো বন্ধুদের সাথে অর্থের বিনিময়ে সম্পর্কে লিপ্ত হতো। বাধা দিলে মিরাজকে মাঝেমাঝেই সুমির বন্ধুদের দিয়ে হামলার ভয় দেখাতো এবং শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করতো।
বিগত পাঁচ মাসের মধ্যে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগের ভিত্তিতে ট্রিপল নাইনে ফোন করেন সুমি চার বার পুলিশ নিয়ে আসেন।

মিরাজ জানান সুমি পুলিশকেও বিভিন্নভাবে ম্যানেজ করে মাসখানেক আগে নারী শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা ঠুকে দেন তার বিরুদ্ধে। তারপর অনেক কাঠ-খড় পুড়িয়ে মিথ্যে মামলায় জামিন নিয়ে স্বাভাবিক জীবন ধারণ করতে শুরু করে। জামিন পাওয়ার বিষয়টি যেনো সুমি মানতেই পারছিলোনা যার ফলশ্রুতিতে নিজ ঘরে শুয়ে থেকেই আবারো ট্রিপল নাইনে ফোন করে হয়রানির উদ্দেশ্যে পুলিশকে জানায় যে তাকে মিরাজ ও তার বন্ধুরা অপহরণ করে একটি ঘরে আটকে রেখেছে।

পরে আশুলিয়া থানার এস আই রফিকুল ইসলাম সুমির অভিযোগের প্রেক্ষিতে আনারকলি বাস স্ট্যান্ড থেকে মিরাজ ও রাজীবকে আটক করেন এবং সুমিকে কোথায় লুকিয়ে রেখেছে সেটা জানতে চান। পরে মেরাজ ও রাজিব এ বিষয়ে কিছু জানে না বলে পুলিশকে জানান তারপরও পুলিশ তাদেরকে নিয়ে সুমিকে উদ্ধারে প্রানপন চেষ্টা করতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে সুমিকে বহালতবিয়তে পাওয়া যায় তার পরিবারের সাথে নিজ রুমেই।

পরে পুলিশ ভবিষ্যতে এমন হয়রানি করলে সুমির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে হুঁশিয়ার করেন এবং গ্রেফতারকৃত মিরাজ ও রাজিব কে ছেড়ে দেন।

প্রতিবেদককে মিরাজ জানান শুধু মাত্র পাঁচ লাখ টাকা দিলেই সুমি মিরাজকে এই হয়রানি থেকে মুক্তি দিবে আজ ১৪-০১-২০২০ তারিখে সুমি মিরাজকে আবারও এই হুমকি প্রদান করেন। হুমকির বিষয়ে মিরাজ সাভার মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে সুমীর বিরুদ্ধে। ডায়েরি ৭০৫ তারিখ ১৪ জানুয়ারি ২০২০ সন।

সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক লোকমান হোসেন বলেন জিডির বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে বলে জানায়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ