আজ ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ ইং

ধামরাইয়ে ধর্ষণের চেষ্টার পর হত্যা, গাড়ি চালক গ্রেপ্তার

ধামরাই প্রতিনিধি

ঢাকার ধামরাইয়ে মমতা (১৯) নামের এক সিরামিকস কারখানার শ্রমিককে ধর্ষণের চেষ্টার পর হত্যা করার অভিযোগ ।
শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১১ টার দিকে বালিয়া ইউনিয়নের কাওয়ালী পাড়া এলাকা থেকে এক কিলোমিটার ভিতরে একটি রাস্তার পাশ থেকে উদ্ধার করে ধামরাই থানা পুলিশ।

নিহত মমতা ধামরাইয়ের বালিয়া ইউনিয়নের শাজাহান খাঁর মেয়ে। সে স্থানীয় প্রতীক সিরামিকস কারখানায় শ্রমিক বলে জানায় পুলিশ।

ধর্ষণের চেষ্টা ও হত্যার মুলঘাতক হলেন, ফিরোজ ওরফে সোহেল (৩১)। সে রাজবাড়ীর পাংশা এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গেছে। সে ওই কারখানার শ্রমিকদের বাসে করে আনা-নেওয়ার কাজে নিয়োজিত ছিল।

শনিবার (১১ জানুয়ারি) সকাল ১০ টার দিকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক দীপক চন্দ্র সাহা।

তিনি বলেন, গতকাল রাত ৮ টার দিকে একটি নিখোঁজ ডায়েরি হয় থানায়। এরপর থেকে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। পাশাপাশি এলাকাবাসী তাকে খুঁজতে থাকে। এক পর্যায়ে বালিয়া ইউনিয়নের কাওয়ালী পাড়া থেকে এক কিলোমিটার ভিতরে রাস্তার পাশ থেকে নিহত ওই নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়। ভোর ৪টার বাসের ড্রাইভার সোহেল কে গাড়িসহ গ্রেপ্তার করে। রাতেই কাওয়ালীপারা অতিক্রম করে তাকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে মমতাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে রাস্তার পাশে লাশ ফেলে রেখে চলে যায় সে।

নিহত নারীর লাশ ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। ধামরাই থানায় ধর্ষণের চেষ্টা ও হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানায় পুলিশ।
পুলিশ আরও জানায় মেডিকেল রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত বলা যানে না ধর্ষণ হয়ে ছিলো কি না।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ