আজ ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জুলাই, ২০২১ ইং

ময়মনসিংহবাসী আন্দোলন করে আর কিছু হারাতে চাইনা- নাজনীন আলম

 

হাসনাত কাইয়ূম :

 

 

ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম মেম্বার নাজনীন আলম এক বার্তায় বলেন, আন্দোলন করে বিমানবন্দরসহ অনেক কিছুই হারিয়েছি; আর হারাতে চাইনা

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ময়মনসিংহকে বিভাগ ঘোষণার সময় বলেছিলেন ময়মনসিংহ সিটি হবে লণ্ডনের আদলে দেশের তিলোত্তমা নগরী। যেখানে থাকবে স্টেডিয়াম এবং অত্যাধুনিক আবাসিক এলাকাসহ কত কি! এছাড়া, ব্রাহ্মপুত্র নদে হবে আরো তিনটি সুন্দর সেতু। রেললাইন চলে যাবে শহরের বাহির দিয়ে চুরখাই দাপুনিয়া হয়ে কালির বাজার। কিন্তু আমরা দেখলাম মুক্তাগাছার বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি উল্টাপাল্টা প্রচার এবং বাঁধার কারনে চলে গেলো অন্য জেলায়। আমাদের কারণে বৃহৎ সেনানিবাস চলে গেল অন্য জেলায়। ত্রিশালে বিমানবন্দর নির্মাণ এবং ময়মনসিংহ বিভাগীয় নগরীর ভূমি হুকুমদখলে বাঁধাসহ বিভিন্ন প্রশ্ন তুলে বঞ্চিত করা হলো ময়মনসিংহবাসীকে। এগুলো বাস্তবায়িত হলে এ অঞ্চলে শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থান শতগুণে বেড়ে যেত। মানুষের জীনযাত্রার মান বৃদ্ধি, ভূমির মূল্য বৃদ্ধি এবং দেশে বিদেশে এলাকার গুরুত্ব বৃদ্ধিসহ মানুষের আয় রোজগারের পথ বহুগুণে প্রশস্ত হত। উন্নত জীবন ব্যবস্থা এবং লক্ষ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগকে আমরা নিজ হাতে কবর দিলাম।

এ পর্যায়ে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ মাঠের সৌন্দর্য বর্ধনসহ এটিকে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পরিনত করতে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। জাতির পিতার স্মৃতিকে চির অম্লান করে রাখতে মাঠের একধারে নির্মান করা হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুসহ ১৯৭৫ এর ১৫ আগস্টে তার পরিবারের শহিদ সদস্যদের ম্যুরাল। ফলে, লাখো মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদনের সুযোগ পাবে এখানে।

প্রাচীর নির্মাণ মানে এই নয় যে জনসাধারণের প্রবেশে বাঁধা দেয়া। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে ক্রিকেট ও ফুটবলসহ ক্রীড়াপ্রেমীদের জন্য মাঠের অভ্যন্তরে অক্ষুণ্ণ থাকবে খেলার ব্যবস্থা। মহিলা– পুরুষের ব্যবহারের জন্য থাকবে ভিন্ন ভিন্ন ২টি ওয়াশব্লক। মাঠের চারপাশে সবুজায়নসহ থাকবে আধুনিক আলোকসজ্জা। মাঠের ভিতরে ওয়াকওয়ের সাথে বসার স্থান থাকবে চারটি। বিভিন্ন দিক দিয়ে বড় ছোটো মিলিয়ে আটটি গেইট থাকবে। যা প্রয়োজন মতো খোলা থাকবে। মাঠের চারপাশে ৩ফিট ওয়ালের উপর থাকবে ৩ফিট লোহার গ্রীল। ফলে মাঠের বাহির থেকেও খেলা বা সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে কোন সমস্যা হবে না। এ প্রকল্পের মাধ্যমে পুরো সার্কিট হাউস মাঠের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

আজ আমাদের প্রাণের শহরের ঐতিহ্য সার্কিট হাউজ মাঠের সৌন্দর্য্য বর্ধন কাজে কেউ কেউ বাঁধা দিচ্ছি। কিন্তু কেন আমরা ময়মনসিংহের মানুষ হয়ে ময়মনসিংহকে আধুনিকায়নে বাঁধা দিচ্ছি? কি স্বার্থ আমাদের।

প্রকল্পটিতে বাধাঁর চিন্তা না করে প্রয়োজনে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সুশিল সমাজ, উন্নয়নবিদ এবং প্রশাসনের প্রতিনিধিদের নিয়ে পরামর্শ করে ভালোর জন্য সংশোধনী আনা যায়।

ইতোপূর্বে বিভিন্ন বাঁধার কারণে ময়মনসিংহের জামাতা সাবেক রাস্ট্রপতি প্রয়াত হুসেইন মোঃ এরশাদের কাছ থেকেও আমরা উন্নয়ন বুঝে নিতে পারিনি। আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে অতীতে আমরা বাররবার নিজেদের পায়ে কুড়াল মেরেছি! আর কত? এ সরকারের আমলে যে সুযোগ আমরা পেয়েছি আগামী ১০০ বছরে কি সে সুযোগ আবার ফিরে আসবে?

একটি বিমানবন্দর নির্মাণ এবং প্রস্তাবিত আধুনিক সিটি গড়ে তোলা, সার্কিট হাউজ মাঠের চলমান সৌন্দর্য্য বর্ধন কার্যক্রম অব্যাহত রাখাসহ ময়মনসিংহ বিভাগের সার্বিক উন্নয়নে ঐক্যবদ্দ হওয়ার এখনই সময়।

সাধারণ জনগনকে ভুল বার্তা না দেই। প্রাণের ময়মনসিংহকে সরকারের উন্নয়ন থেকে আর বঞ্চিত না করি।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ