আজ ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ ইং

মাছচাষে নিজেকে পাল্টে ফেলা ফরিদগঞ্জের তরুণ উদ্যোক্তা সোহেলের গল্প 

কে এম নজরুল ইসলাম :
আমাদের দেশ তৃতীয় বিশ্বের একটি স্বল্পোন্নত দেশ। আর জাতি হিসাবেও আমরা উন্নয়নশীল। তাইতো পৃথিবীতে যে কটি দেশে বেকার সমস্যা সবচেয়ে চরমে, তারমধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। প্রতি বছর অসংখ্য তরুণ-তরুণী উচ্চশিক্ষা শেষ করে কর্মসংস্থান করতে না পেরে দিশেহারা হয়ে পড়ছে। যেখানে বেশ বড় অংকের চাকুরিজীবী তরুণ-তরুণী নিজেদের সংসারের হাল ধরতে নাজেহাল অবস্থা পার করছেন, সেখানে কিছু তরুণ-তরুণী সমাজে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তেমনই একজন তরুণ চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার গর্বিত সন্তান মো. সোহেল বেপারী। তিনি একজন তরুণ হয়েও বর্তমানে অসংখ্য তরুণের আইডল হয়ে উঠতে পেরেছেন। উপজেলার ১০নং গোবিন্দপুর (দক্ষিণ) ইউনিয়নের গোয়ালভাওর এলাকার ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাহআলম বেপারীর ছেলে সোহেল বেপারী মাস্টার্স পর্যন্ত লেখাপড়া শেষ করেছেন। লেখাপড়ায় থাকাবস্থায়ই ব্যবসার প্রতি তার আলাদা একটা টান ছিল বলে তিনি জানান। তারই সূত্র ধরে শুরুতে ২০১৫ সালে বাড়ির পাশ্ববর্তী গোয়ালভাওর বাজারে কাপড়ের দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরু করেছিলেন। যদিও সেটা ছিল পারিবারিক ব্যবসার অংশ। পাশাপাশি একটা ঝিলে মাছচাষ করতেন সোহেলের বাবা।
কীভাবে তার এই ব্যবসায়িক জীবনে আসা– জানতে চাইলে মো. সোহেল বলেন, ‘বাবাকে মাছের চাষবাস করতে দেখতাম। ঝিলের পানিতে মাছের লাফালাফি ও চলাফেরা দেখে আমার তরুণ মনেও মাছচাষের আগ্রহ জন্মালো। বাবাকে বলে-কয়ে ওনার ওই ঝিল দিয়েই আমি শুরু করি মাছচাষ।’
একসময় চাকরির জন্য অনেক চেষ্টা করেছিলেন সোহেল। কিন্তু চাকরি নামক সোনার হরিণ মুঠোয় আবদ্ধ করা কি চাট্টিখানি কথা! সোনার বাংলাদেশে সোনার হরিণ সহজে মেলে না। তাই চাকরির জন্য বিভিন্ন পরীক্ষা ও চেষ্টা বাদ দিয়ে পুরোদস্তুর ব্যবসায়ী কিংবা উদ্যোক্তা যা-ই বলি না কেন, তার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য শুরুতে মৎসকেই বেছে নিলেন। সোহেলের সঙ্গে আলাপচারিতার একপর্যায়ে জানতে পারি, ২০১৬ সালে বাবার সেই ঝিলটি নিজের দায়িত্বে এনে শুরু হয় তার মাছচাষের গল্প। শুরুর সেই ঝিলটি ছিল ১ একর ৮০ শতাংশের। ১টি ঝিল থেকে শুরু করে এখন সোহেলের ২৬টি ঝিল (যার পুরো আয়তন ৫৫ একর) ও ১২টি বিশালাকার পুকুর রয়েছে, যেখানে তিনি বিভিন্ন প্রজাতির মাছচাষ করেন। ২৬টি ঝিলের ৬টিতে তিনি ‘একক কালচার’ (শিং, গুলসা, পাবদা, পাঙ্গাস, তেলাপিয়া ইত্যাদি) ও বাকি ২০টিতে ‘মিশ্র কালচার’ (কার্পজাতীয় মাছ) চাষ করছেন।
নিজের এই সফলতার মূলমন্ত্র কী– জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাবাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেক আগে থেকেই স্বপ্ন দেখে আসছিলাম একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও নিজে স্বাবলম্বী হবার। সেই লক্ষ্যেই কাজ শুরু। শুরুটা তেমন ফলপ্রসূ ছিল না। বহুবার বহু যাত্রায় ব্যর্থ হয়ে বর্তমানে মনে করি আমি সফলতা পেয়েছি। পরিশ্রম ও কাজের প্রতি অগাধ মমত্ববোধ আমাকে সফলতার দিকে নিয়ে এসেছে।’ মাছচাষের পাশাপাশি সোহেল পেঁপে, বেগুন ও মিষ্টি কুমড়োর চাষ করছেন। সেদিক থেকেও তার একটা সফলতা রয়েছে। ঝিলের পাড়ে এসব চারাগাছ ও বীজ বপন করে বাড়তি একটা লভ্যাংশের মুখ দেখতে পান তিনি। তার বাগানে ২০০০ এর অধিক পেঁপেগাছ, কয়েক হাজার বেগুনগাছ ও অসংখ্য মিষ্টি কুমড়োর গাছ রয়েছে। ঝিল ও পুকুরের দেখাশোনা করা, খাবার দেওয়া, গাছের যত্নআত্তি করা সহকারে মোটমাট ২২/২৩ জন মানুষ কাজ করছেন। তার ও তার পরিবারের পাশাপাশি অন্যান্যদেরও একটা ভরণপোষণের দায়িত্ব চলে এসেছে তরুণ সোহেলের কাঁধে। কখনও কখনও আরও বেশি লোক-জনবলের প্রয়োজন হয় বলে সোহেল জানান। একসময় মুদি-মনোহারি পণ্যের ডিলারশিপ ব্যবসাও ছিল তার।
লিজ ও একক মালিকানাধীন এসব ঝিল ও পুকুরে মাছচাষ করে ২০২১ সাল পর্যন্ত এসে সোহেল নিজেই গর্বিত। এসব কাজেকর্মে তার সাড়ে ৩ কোটি টাকার ইনভেস্টমেন্ট চলছে বর্তমানে। ঝিলের পাশ দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে সোহেল যখন এগুলো বলছিলেন, তখন তার সঙ্গে সঙ্গে আমারও গর্বে বুকটা ভরে উঠছিল। একফাঁকে তিনি জানালেন, ‘আমি আমার ব্যবসার লভ্যাংশ দিয়ে এ পর্যন্ত সাড়ে ৮৭ শতাংশ জমি কিনতে পেরেছি’। এমন সুখময় গল্পের পাশাপাশি মানুষের অবশ্যই কিছু না কিছু দুঃখ থেকে যায়। ২০১৯ সালে প্রবল বন্যা ও ভাইরাসের কারণে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধিত হয়েছে বলে তিনি জানান। তবুও হাল ছাড়েননি সোহেল। লেগে ছিলেন তার কাজে ভালোবাসা দিয়ে। তাই তো সফলতা তার গলায় মুক্তোর মালা হয়ে ঝুলছে। ব্যবসায়িকভাবে তিনি এখন ফরিদগঞ্জের বড় মাছচাষীদের মধ্যে একজন।
মো. সোহেল বেপারী অর্থনৈতিকভাবে সফল একজন তরুণ। তার আশপাশের এবং দূরদূরান্তের অনেক তরুণদের পরামর্শদাতা তিনি। অনেকেই তার কাছে আসে নানান পরামর্শের জন্য; কাউকেই ভুল পরামর্শ দেননি সোহেল। সৎ এই তরুণ মানুষটিকে তাই তো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে তার সফলতার প্রাপ্য সম্মান প্রদর্শন করেছেন। মৎস অধিদপ্তর থেকে একাধারে পেয়েছেন ২০১৭, ২০১৮, ২০১৯ সালে ফরিদগঞ্জ উপজেলার সেরা মাছচাষীর পুরস্কার। ২০১৮ ও ২০২০ সালে আরটিভি থেকে সম্মাননা পুরস্কার এবং সম্প্রতি ৩১ মার্চ বুধবার ঢাকার তেজগাঁওস্থ ‘বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া স্টুডিও’তে আরটিভি আয়োজিত অনুষ্ঠানে ২০২১ সালে ‘আরটিভি কৃষি পদক’ অর্জনসহ নানারকম সম্মাননা গ্রহণ করেছেন তিনি। বাংলাদেশের কৃষিখাতের উন্নয়ন, সম্প্রসারণ, গবেষণা, নতুন নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও বৈচিত্র্যপূর্ণ চাষাবাদ পদ্ধতিতে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে তাকে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়।

Comments are closed.

     এই বিভাগের আরও সংবাদ